বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

‘ডাবল’ নামক খাবারের দাম বাড়ায় ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর খাদ্যরসিকেরা উদ্বিগ্ন

"Trinidad doubles is one of the best street food you can get in the world..." Photo by Edmund Gall, used under a CC BY-SA 2.0 license.

ত্রিনিদাদে ‘ডাবল’ রাস্তায় বানানো এমন এক খাবার যা পৃথিবীর অন্যতম সেরা। ছবি এডমুন্ডো গাল-এর

ত্রিনিদাদ এন্ড টোবাগোর রাস্তার খাবার এখন এক সঙ্কটে পতিত হয়েছে, বিশেষ করে যখন দেশটির নতুন অর্থমন্ত্রী গত সপ্তাহে সংসদে ২০১৫-১৬ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেন। বাজেটে তিনি দ্রুত তেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা প্রদান করেন। আর এতে উদ্বেগ তৈরি হয় যে তেলের দাম বাড়লে অন্যান্য ক্ষেত্রেও দাম বাড়বে, বাজেট ঘোষণার একদন পরেই ট্যাক্সি ভাড়া বেড়ে গেছে, যা এই আশঙ্কাকে বাস্তবে পরিণত করার জন্য যথেষ্টঃ

তখন আলোড়ন সৃষ্টি হয় যখন ডাবল নামক খাবার বিক্রেতারা এই খাবারের দাম স্থানীয় ডলারে এক ডলার বাড়ানোর ঘোষণা দেয়। এই ডাবল, যাতে দুটি রুটির (স্থানীয় ভাবে যাকে বাররা নামে ডাকা হয়) ভেতরে ছোলা (যাকে বলা হয় চানা) ভরে দেওয়া হয়, সেটি এখন থেকে ৫ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ডলারে বিক্রি হবে (০.৭৯ মার্কিন ডলারে)- ডাবল হচ্ছে রাস্তায় বিক্রি হওয়া সবার প্রিয় সকালের নাস্তা, যা বিক্রেতারা সস্তা দরে বিক্রি করে। তবে বাস্তবতা হচ্ছে এই খাবার বানানোর উপাদানের দাম কিন্তু আগের মত রয়ে গেছে।

এই ঘোষণার সাথে সাথে অনলাইনে এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে-বিদ্রূপাত্মক ওয়েবসাইট ওয়্যারড৮৬৮-এর পুরোটা জুড়ে ছিল এই বিষয়

এটা। নিঃসন্দেহে তাই। পেয়েছি। আসল জিনিস।

৪৮ বছরের মহেশ কানহাই, কৌতূহলজনক বিষয় হচ্ছে যে বিগত ৩৫ বছর ধরে নিজেকে একজন “ডবল নামক খাবার” বিক্রেতা হিসেবে দাবী করেছে, তাকে সবাই স্মরণে রাখবে এই বিষয়ে প্রথম আঘাত হানার জন্য।

ত্রিনিদাদ গার্ডিয়ানকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কানহাই বলে “এটার দাম ছিল চার ডলার, কিন্তু আমাদের এটির দাম না বাড়িয়ে উপায় ছিল না (৫ ডলার)। আমরা এতে সকল কিছুর দাম যোগ করেছি এবং বাজেট পাশ হওয়ার সাথে সাথে…গ্যাসের দাম বেড়ে গেছে, আর এর ফলে সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে”।

এটা খুব সরলীকরণ অর্থনীতি এবং বেপরোয়া পুঁজিবাদের সংমিশ্রণ যার ফলে স্থানীয় ‘ব্যবসায়ী’ সময়ের সাথে স্মৃতিহীন হয়ে পড়েছে।
[…]

নিঃসন্দেহে, এমনকি ৫ ডলারে ডাবল সস্তায় আপনার ক্ষুধা নিরাময় এবং পাশাপাশি পরিতৃপ্ত করে, আর এই দেশে এটি আপনার ধমনীর শিরা বন্ধ করে দেবে। এটাই হচ্ছে এর নীতি।

সুযোগ সন্ধানীর ধরণ

“এই বিষয়ের যে মূল নীতি” মনে হচ্ছে সেটার কারণে জনগণ বিরক্ত। ফেসবুক ব্যবহারকারী ফ্রাঙ্কা ফিলিপ ব্যাখ্যা করেছে:

আমি মনে করি ডাবল নামক খাবারের বিষয়ে ক্ষোভের মূল বিষয়টি নাগরিকেরা ধরতে পারছে না। এটা হচ্ছে এক ধরনের সুযোগ সন্ধানীর মত ঘটনা, নাগরিকেরা দাম বেড়ে যাওয়ার চেয়ে এ রকম ঘটনায় আরো বেশী হতাশ। বিশ্বাস করুন ডবল বিক্রেতাদের প্রতি একাত্মতা প্রদর্শন করে সবাই যদি এ রকম দাম বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করে তাহলে আটা এবং তেল বাজার থেকে হাওয়া হয়ে যাবে।

:
ত্রিনিদাদ গার্ডিয়ানকে প্রদান করা উক্ত সাক্ষাৎকারে কানহাই বলেন দাম বাড়ার পরেও সাধারণত তিনি যে পরিমাণ গ্রাহককে তিনি খাবার সরবরাহ করেন, তার সংখ্যা কমেনি। উক্ত সংবাদপত্রের একই সংবাদকে উদ্ধৃত করে রোহদা বাহরাত বলেন

অনেক ব্যবসায়ীদের মত ডাবল বিক্রেতাদের এখান থেকে ট্যাক্স দেওয়া উচিত। একই সাথে বার বার দাম বাড়ানোর কারণে এদের বয়কট করা উচিত। দাম বাড়ানোর খুব বাজে এক বিষয়, বছরের পর বছর ধরে সস্তায় আটা আর তেল পাওয়ার পরও তারাতো তখন দাম কমায় নি?

ওয়্যারড৮৬৮, “নৈতিকতা নিয়ে যে আলোচনা” তার ভণ্ডামি চিহ্নিত করার সুযোগ গ্রহণ করেছে :

মুভি টাউনের বিরুদ্ধে কোন নৈতিক অবস্থান নেই। যদিও তারা সোজা করতে গিয়ে ম্যানগ্রোভ নামক উদ্ভিদ ভেঙ্গে ফেলে। প্রাক্তন নিরাপত্তা মন্ত্রী মার্টিন জোসেফের প্রাণহীন দেহ নিয়ে টিভি ৬ এর লজ্জাজনক প্রচারের কেউ বিপক্ষে নয়। .

এবং সেন্টার অফ এক্সিলেন্স নামক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে কোন অবরোধ নয়-যদিও এর ভেনু ফিফা, কনকাকাফ এবং টিফা –এর টাকায় গড়ে তোলা হয়েছে। এখন থেকে দুই বছর আগে ত্রিনিদাদ এবং টোবাগোর অন্যতম প্রতিভাবান অনুর্ধ -১৭ ফুটবল দলকে এখানে প্রবেশে ফ্যাসিলিটিজ ম্যানেজারের (সুবিধাদি প্রদান করার দায়িত্বে নিয়োজিত ম্যানেজার) বাঁধা দেওয়ার স্মৃতি এখনো টাটকা।

তবে সকল ডাবল বিক্রেতারা দাম বাড়ায়নি

এদিকে অন্যতম আরেক জনপ্রিয় বিদ্রূপাত্মক ওয়েব সাইট দি লেট ও ক্লক-এর পাতায় মন্তব্য যোগ করা হয়েছে:

কৃষ্ণ হরিপাল বলেন, “খাবারের দাম যাতে কম থাকে তার জন্য অনেক আগে থেকে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। তিনি একজন জনপ্রিয় “ডাবল” নামক খাবার বিক্রেতা, যিনি ইস্ট ওয়েস্ট এর গলিতে খাবার বিক্রি করে থাকেন। তিনি এতে আরো যোগ করেন “ একে সোনালি চেহারা দেওয়ার জন্য আমরা বাররা নামক খাবারে আমরা সোনালি রঙের গুঁড়া প্রদান করে থাকি, যা আমাদের গ্রাহকেরা পছন্দ করে, কিন্তু এখন অতিরিক্ত দাম বেড়ে যাওয়া এবং সাথে ডিজেলের দাম বেড়ে যাওয়ায়, আমাদের খরচও বেড়ে গেছে।

প্রতিবার যখন তাদের বলা হয় দাম ঠিক রাখার জন্য, বরঞ্চ সোনালী রং-এর গুঁড়া না মেশানো বিষয়টি অনেক সহজ, তার জবাবে জনাব হরিপল বলেন, “এটা একটা অসাধারণ চিন্তা, কিন্তু তখন এতে স্বাদের যে ক্ষতি হবে, সেটি পূরণ করার জন্য আমাদের বিশেষ সসে অতিরিক্ত হিসেবে যোগ করতে হবে হীরার উজ্জ্বলতা। […]

লুপ টিটি আশাবাদী, তবে ঘটনা যাই হোক, সারা দেশ জুড়ে ছড়িয়ে থাকা ডাবল বিক্রেতাদের কোথায় কোথায় পাওয়া যাবে, তাদের সে অবস্থান উল্লেখ করে সে একটি লেখা পোষ্ট করেছে, যাদের বার্তা ছিল দাম বাড়ার বিষয়ে যেন উদ্বিগ্ন না হয়।:

হাসানালিস (মনত্রোসে, চাগুনাস)
ডাবল তৈরির উপাদানের দাম বেড়ে যাওয়া আমাদের ব্যবসার কোন কাজে আসবে না, কেবল আমাদের গ্রাহকদের তাড়িয়ে দেবে। আমারা দাম বাড়াচ্ছি না।

জ্যাক এবং মারলেন্স-এর ডাবল (আরগুনেজ মাইন রোড)
আমরা এখনো ডাবলের ডাম বাড়াইনি, ডাবলের দাম এখনো চার ডলার এবং ট্রিপলের দাম পাঁচ ডলার। তবে ভবিষ্যতে যদি কাঁচামালের দাম বেড়ে যায়, তাহলে আমাদেরও দাম বাড়াতে হবে। আর সে ক্ষেত্রে আপনাদের বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .