বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরান: রাস্ট্রটি কী ১৩ বছরের বালিকাকে ভয় পায়?

রাজনৈতিক এবং সুশীল সমাজের এক্টিভিস্টদের উপর চাপ বাড়াতে জনগণের বিদেশে ভ্রমণ নিষিদ্ধ করে ইরানী রাষ্ট্রের বহু বছরের পুরনো অভ্যাস। তবে সম্প্রতি একটি নিরাপত্তা আদালত কারাবন্দী মানবাধিকার আইনজীবী নাসরিন স্তুদেহ’র স্বামী এবং তাদের ১৩-বছর বয়েসী মেয়ে মেহরাভে খান্দানের বিদেশ ভ্রমণ নিষিদ্ধ করে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। নাসরিন স্তুদেহ ১১ বছর কারাদণ্ডে দন্ডিত।

এন্সিলুস লিখেছেন [ফার্সী]:

ফেসবুকে মেহরাভের পিতা বলেছেন এমনকি তার মেয়ে মেহরাভে কোন অপরাধ করে থাকলেও তাকে অপ্রাপ্তবয়স্কদের আদালতে ডাকা উচিৎ, এভিনে [কারাগার] নয়।

হাঘেমোসলামেমা বলেছেন [ফার্সী]:

আমাদের সারা বিশ্বকে ইসলামী শাসন [ইরানী শাসন] সম্পর্কে জানাতে “নিষ্পাপ শিশুদের জন্য প্রচারাভিযান” চালু করা দরকার। ব্লগার পরিহাসের সঙ্গে জানতে চেয়েছেন মেহরাভের কী অপরাধ: নাসরিন স্তুদেহের কন্যা হয়ে, ১৩-বছর বয়সী বাচ্চা হয়ে, তার স্নেহময় পিতা-মাতাকে ভালবেসে, তার ছোট ভাইয়ের যত্ন নিয়ে… বাস্তবে শুধুমাত্র শুধু আলী খামেনী জানেন এই মেয়েটি কী অপরাধ করেছে… অন্ততঃ মেহরাভের বিষয়টি নিয়ে আমাদের হাল ছাড়লে চলবে না, সমস্ত রাজনৈতিক বন্দীদের এভিন কারাগারে পাঠানো হলেও।

এছাড়াও ব্লগার মেহরাভের ভাইসহ একটি ছবি প্রকাশ করেছে:

মেহরাভে খান্দান এবং তার ভাই।

মেহরাভে খান্দান এবং তার ভাই। ছবি হাঘেমোসলামেমা.ব্লগস্পট.সিএ থেকে

সবুজশহর লিখেছেন [ফার্সী] মাত্র এই ৮ই জুলাই, ২০১২ তারিখেই ইরানের মানবাধিকার উচ্চ পরিষদের প্রধান জাভাদ লারিজানি ইরানে রাজনৈতিক বন্দীর অস্তিত্ব অস্বীকার করেছেন। আজ সোমবার ১৬ই জুলাই মেহরাভের বিষয়টি প্রকাশিত হয়েছে।

Jজমহুরিয়াত লিখেছেন [ফার্সী] “আমার দেশ এই নিরপরাধ মেয়েটিকে নিয়ে গর্বিত, কারণ তার ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা [ইরানী] ইসলামী প্রজাতন্ত্র ধ্বসে পড়া প্রমাণ করছে।”

এবারই প্রথম নাসরিনের শিশুরা রাজনৈতিক বন্দীদের পরিবারগুলির  ব্যাথা তুলে ধরেছে তা নয়। প্রায় একমাস আগে ইরানী সামাজিক নেটওয়ার্কিং সাইট ব্যবহারকারীরা নিচের ভিডিও ফুটেজটি ভাগাভাগি করেছেন যেখানে নাসরিন স্তুদেহ কারাগারে সাক্ষাতের সময় একটি জানালা দিয়ে তার চার বছর বয়সী ছেলের সঙ্গে খেলতে চেষ্টা করছেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .