বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরানী কর্মকর্তারা বিক্ষোভকারীদের পরিচয় জড়ো করছেন

ইরানের চলমান নির্বাচনোত্তর বিক্ষোভের সময়ে ইরানী বিক্ষোভকারীর ছবি অনলাইন প্রচুর ছাড়া হয়েছে (বিভিন্ন নাগরিক সাংবাদিকদের দ্বারা)। এখন ইসলামিক বিপ্লবী গার্ড কর্পস তাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে তাদেরকে (গ্রেফতারের) লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে।

এই ওয়েবসাইটের নাম গের্দাব (যার মানে ঘুর্নি) আর এটা তৈরী করেছে ইসলামিক বিপ্লবী গার্ড কর্পস এর তথ্য কেন্দ্র যারা সংগঠিত অপরাধ তদন্ত করে। এই সাইটে ২০ জনের ছবি দেখানো হয়েছে যাদের মুখের চারদিকে লাল গোল চিহ্ন আঁকা কোন প্রমাণ ছাড়া এই দাবি করতে যে তারা তেহরানে ‘হাঙ্গামা’ সৃষ্টি করছে।

নাগরিকদের আহ্বান করা হয়েছে ফোন করতে বা ইমেইল করতে তারা যদি ঐ ২০ জনের ছবির কাউকে সনাক্ত করতে পারে। গের্দাব আরো দাবি করেছে যে দেখানো দুইজনকে এরই মধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকী মানুষগুলো সম্পর্কে সাইটে আর কোন তথ্য নেই।

কিছু ইসলামপন্থী ব্লগার এদের ছবি পুন:প্রকাশ করেছেন

এর মধ্যে বিক্ষোভকারীদের কিছু সমর্থক নিজেরা বেশ কিছু ছবি প্রকাশ করেছেন ইরানী নিরাপত্তা বাহিনীর আর বিশেষ করে সন্দেহভাজন গোপন এজেন্টদের আর নাগরিকদের অনুরোধ করেছেন তাদেরকে সনাক্ত করার জন্য।

যেমন, একজন সন্দেহভাজন এজেন্টের ছবি আছে মোটরসাইকেলের পিছনে বসে তার বেল্ট থেকে বন্দুক বার করারত অবস্থায়। বেশ কয়েকজন ব্লগার সন্দেহভাজন এই এজেন্টের ছবি প্রকাশ করেছেন, পাঠকদেরকে তাকে চিহ্নিত করার অনুরোধ করে। কয়েক দিন পরে তার নামে শোনা গেল যে সে বাসিজ নেতা আর কথিত মাল্টি মিলিয়ন ডলার ব্যাঙ্ক ঋণ আছে তার। এই ধরনের সূত্র ছাড়া তথ্য অবশ্যই বিশ্বাসযোগ্য নয় আর এই প্রক্রিয়ায় এই লোকের কথিত নামের সাথে যার নামের মিল থাকবে তার জন্য ভয়ঙ্কর সমস্যা হতে পারে। অনলাইন গুজব প্রায় বাস্তবতাকে সরিয়ে দেয়।

এটা প্রথমবার হবে না যে কোন ঘটনায় একটা ছবি সমস্যা বা জেলের কারন হয়েছে। তবে, এটা নতুন এক পদ্ধতি যে অনলাইনে তথ্য সংগ্রহ করে মানুষের পিছু নেয়া আর হত্যা করার ব্যাপারটি অফিসিয়ালি সিদ্ধ করা।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .