বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিরর ওয়েবসাইটের সাহায্যে উইকিপিডিয়ার সাথে যুক্ত হচ্ছে তুর্কি ব্যবহারকারীরা

২০১২ সালের ১৮ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের সোপা এবং পিপা নামের কপিরাইট আইনের বিরুদ্ধে ইংরেজি ভাষার উইকিপিডিয়া বন্ধ রাখা হয়। আন্তর্জাতিক এ ব্ল্যাকআউটের সময় এ গ্রাফিক্সটি ব্যবহার করা হয়। গ্রাফিক্সটি তৈরি করেছে উইকিপিডিয়া (সিসি বাই-এসএ ৩.০) 

জনপ্রিয় উন্মুক্ত বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়া তুরস্কে নিষিদ্ধ হয়ে আছে এক মাস পার হয়েছে। প্রতিটি দিন যাচ্ছে আর এটা সামনে চলে আসছে কিভাবে গ্রহণযোগ্য তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে একটি অনলাইন ভিত্তিক বিশ্বকোষ সাধারণ ব্যবহারকারীদের সাহায্য করতে পারে।

শিক্ষার্থী, সংবাদকর্মী এবং টিভি সিরিজের ভক্তরা তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে উইকিপিডিয়ার ওপর এমন নিষেধাজ্ঞায় বেশ বিপাকে আছেন। তবে তুরস্কের তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে জানেন এমন প্রজন্মের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা ভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে ঠিকই উইকিপিডিয়া ব্যবহার করছেন। সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক টাইমসের এক রিপোর্টে  বলা হয় সারাবিশ্বে ভিপিএন ব্যবহারকারীদের মধ্যে তুরস্ক ভিপিএন ব্যবহারকারীদের অবস্থান তৃতীয়। যদিও অনেক উইকিপিডিয়া ব্যবহারকারী এ তালিকায় নেই।

যদিও ২০০৮ সালে উইকিপিডিয়ার নিবন্ধ নিষিদ্ধ করে তুরস্ক। হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির ব্রেকম্যান ক্লেইন সেন্টার ফর ইন্টারনেট সেন্টারের প্রকাশিত এক রিপোর্টে বলা হয়, ২০০৭ সালে তুরস্কের ইন্টারনেট আইন (নং ৫৬৫১) পাশ হওয়ার পর থেকেই নিয়মিত ভাবে তুরস্কে উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধের এ প্রক্রিয়ায় চীনের পর তুরস্ক দ্বিতীয় জনপ্রিয় দেশ যেখানে উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

উইকিপিডিয়া এখনও তুরস্কে নিষিদ্ধ থাকলেও একাধিক ‘মিরর’ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সাইটটিতে যেতে পারছেন ব্যবহারকারীরা। এর ফলে হালনাগাদ উইকিপিডিয়ার তথ্যাদিও সহজে ব্যবহার করতে পারছেন আগ্রহীরা। এর মধ্যে একটি জনপ্রিয় সমাধান হচ্ছে আইপিএফএস (দ্য ইন্টার-প্ল্যানেটারি ফাইল সিস্টেম)। এ পদ্ধতিতে তুর্কি ভাষার উইকিপিডিয়া কোন ধরনের বাঁধা ছাড়াই প্রবেশ করা যাচ্ছে। এ পদ্ধতি ব্যবহারের ক্ষেত্রে আলাদা কোন ডোমেইন নাম পদ্ধতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়, কারণ এখানে শুধুমাত্র স্ক্রিনশট পড়া যাচ্ছে এবং এ পদ্ধতিকে নিষিদ্ধ করা বেশ কঠিন। এর ফলে সরকারের ডোমেইন নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও সহজে উইকিপিডিয়ার কনটেন্ট ব্যবহার করতে পারছেন অনেকেই।

আইপিএফএসের এক ব্লগ পোস্টে বলা হয়:

আমরা যখনই শুনেছি উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধের খবর তখনই আমরা আইপিএসএসে বিকল্প পদ্ধতিতে উইকিপিডিয়া ব্যবহারের সুবিধা চালু করেছি। উদ্দেশ্য ছিল উইকিপিডিয়া ডট অর্গ ডোমেইন নিষিদ্ধ হলেও যাতে করে অন্য পদ্ধতিতে উইকিপিডিয়ার সর্বশেষ হালনাগাদ তথ্য সাধারণ ব্যবহারকারীরা পেতে পারেন।

আইপিএফএস নিজেদের ব্যাখ্যায় এও বলেছে যে, স্বাধীন ভাবে কাজ করা উইকিমিডিয়া ফাউন্ডেশনের সাথে কোন ধরনের কাজ করছে না। কারণ, এ পদ্ধতিতে শুধুমাত্র স্ক্রিনশট ব্যবহার করা হচ্ছে সরাসরি সাইট বা ডাইনামিক সংস্করণ হিসেবে দেখার সুযোগ থাকছে না।

উইকিমিডিয়া নিষেধাজ্ঞার বিপরীতেও ভিন্ন একটি পদ্ধতি রেখেছে। উইকিমিডিয়া ইটালির ক্রিস্টিয়ান কোনসোনিন tr.vikiansiklopedi.org নামের একটি মিরর সাইট তৈরি করেছেন যেখানেও তুর্কি ভাষার উইকিপিডিয়া দেখা যায়। এছাড়া উইকিমিরর নামের একটি ওপেন সোর্স  প্রকল্পের সহায়তায়ও যে কেউ একই ধরনের মিরর সাইট ব্যবহার করতে পারেন যদি সে দেশে উইকিপিডিয়া নিষিদ্ধ হয়।

কোনসোনিন গ্লোবাল ভয়েসের প্রদায়ক এবং মজিলার এশিয়া কমিউনিটি ক্যাটালাইজার শুভাষিস পানিগ্রাহিকে এ বিষয়ে বলেছেন। তার সাক্ষাৎকারের মূল একটি অংশ হচ্ছে:

এটা একটি মিরর সাইটের পূর্ণাঙ্গ কপি বা প্রক্সি নয়। এর মাধ্যমে ভিন্ন একটি ওয়েবসাইটের ডোমেইনে প্রবেশ করে উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা যাবে। উক্ত সাইটে প্রবেশের পর সে সার্ভারটি প্রকৃতি উইকিপিডিয়া সাইটে রিডাইরেক্ট হয়ে যায় যার ফলে সরাসরি তুরস্কে বসেই নিষিদ্ধ থাকা অবস্থায়ই উইকিপিডিয়া ব্যবহার করা সম্ভব হয়। কারণ, মিরর সাইটে ব্যবহৃত সার্ভারটির অবস্থান তুরস্কে নয়। উইকিপিডিয়া কনটেন্ট কোথাও নিষিদ্ধ হলে মিররিং পদ্ধতি উইকিপিডিয়া ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে কার্যকর পদ্ধতি।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .