বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

সিরিয়া: মিশরীয়-মার্কিন টুইটারকারী গুপ্তচর হিসেবে অভিযুক্ত হয়েছে

এই পোস্টটি সিরিয়া প্রতিবাদ ২০১১ সম্বন্ধে আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

সর্বশেষ: মুহাম্মেদ রাদোয়ানকে গত পহেলা এপ্রিল জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয়। ছাড়া পাবার পরে ডেমোক্রেসী নাউ!তে প্রকাশিত তার সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে।

মিশরীয়-মার্কিন টুইটার ব্যবহারকারী মুহাম্মেদ রাদোয়ানকে (@বাতুত্তা) সিরিয়ায় গ্রেফতার করা হয়েছে এবং সিরিয়ার টেলিভিশনে তাকে এক গুপ্তচর হিসেবে প্রদর্শন করা হয়, যার বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, সে “গোপন এক ভ্রমণে ইজরায়েল গিয়েছিল এবং সে বাইরের রাষ্ট্রকে সিরিয়ার অভ্যন্তরের ছবি এবং ভিডিও প্রদানের বিনিময়ে অর্থ গ্রহণ করেছে।

সিরিয়ান আরব নিউজ এজেন্সির (সানা) সংবাদ অনুসারে রাদোয়ানের বিরুদ্ধে, “বাইরে থেকে ইমেইল গ্রহণ করার অভিযোগ আনা হয়েছে, যার বিরুদ্ধে সিরিয়া থেকে ছবি এবং ভিডিও পাঠানোর সম্ভাবনার বিষয় তদন্ত করা হচ্ছে” ।

এটি তার সাথে যোগ করেছে:

“সে এমন এক ইমেইল গ্রহণ করেছে, যেখানে তাকে আহ্বান জানানো হয়, সে স্প্যানিশভাষী এক কলম্বিয়ার নাগরিককে সাহায্য করতে রাজি কিনা। উক্ত ব্যক্তি ইমেইলের মাধ্যমে তার সাথে সাক্ষাৎ-এর প্রস্তুতি নেবার এবং ছবি ও ভিডিও পাঠানোর জন্য যোগাযোগ করে।

তিনি জানান, তাকে বেছে নেওয়া হয়েছিল; কারণ সে সিরিয়ায় বাস করে এবং তার কাছে ক্যামেরাযুক্ত মোবাইল ফোন রয়েছে, আর সে ভেবেছিল এই কাজের মাধ্যমে সে কিছু সুবিধা পেতে পারে”।

রাদোয়ান এক প্রকৌশলী। সে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করে। গ্রেফতার এবং তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ, অত্র অঞ্চলের নেট নাগরিকদের মাঝে এক প্রচণ্ড তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে, অনেকে ভবিষ্যদ্বাণী করছে যে, সিরিয়া কর্তৃক এক মিশরীয় টুইটার ব্যবহারকারীকে গ্রেফতার করার ঘটনার কারণে, হয়ত মিশরীয় সাইবার জগৎ-এর সকল বাসিন্দা, আসাদের শাসনের বিরুদ্ধে অবস্থান গ্রহণ করবে।

এখানে রাদোয়ানের গ্রেফতারের প্রেক্ষাপটে টুইটারের কয়েকটি প্রতিক্রিয়া:

@দিনা_আদেল::মিশরীয় একটিভিস্ট @বাতুত্তাকে #সিরিয়ায় গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সে এক গুপ্তচর। বিষয়টি সত্য নয়। প্রচার মাধ্যমের মনোযোগ প্রয়োজন। দয়া করা এই ঘটনার কথা সব জায়গায় ছড়িয়ে দিন।

@৩আরবওয়ে: সিরিয়ার শাসকরা আমার বন্ধু@বাতুত্তাকে গ্রেফতার করেছে এবং তার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছে যে সে এক গুপ্তচর! http://bit.ly/gkNikY, কি এক মিথ্যাচার।

@ওয়েড্যাডি:#সিরিয়া টেলিভিশন এক মিশরীয় ব্যক্তি যার যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব রয়েছে, তাকে প্রদর্শন করছে, তারা বলছে সে গোপনে ইজরায়েলে গিয়েছিল এবং তাকে ভিডিও এবং ছবি সরবরাহ করতে বলা হয়েছিল।

@ওয়েড্যাডি:ওহ, বিষয়টি আরো উন্নত হচ্ছে, মিশরীয়-মার্কিন এত নাগরিককে, কলম্বিয়ার এক নাগরিকের মাধ্যমে ইন্টারনেটের ভেতর দিয়ে ছবি এবং ভিডিও পাঠাতে বলা হয়েছে, এটাকে হুগো শ্যাভেজের এক পরিকল্পনার মত মনে হচ্ছে।

@কায়রোওয়্যার: গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে মিশরীয়-মার্কিন নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ( প্রাথমিকভাবে একটা ক্যামেরা ফোন থাকার কারণে) http://is.gd/IAXtel#মার্চ (ভায়া@শেরিফফারুক)

@নোরাশালাবাই: আমার চাচাতোভাই@বাত্তাতা গতকাল সকালে শেষবারের মত টুইট করেছিল, সে উম্মাইয়াদ নামক মসজিদের কাছে রয়েছে এবং এই সংঘর্ষের বিষয়ে কিছু লিখেছে!

@নোরাশালাবাই: গতকাল থেকে তার ফোন বন্ধ রয়েছে এবং তার বন্ধুরা তার বাসায় গিয়েছিল, কিন্তু সেখানে কেউ ছিল না@বাতুত্তা#সিরিয়া

@ওয়েড্যাডি: তাকে গ্রেফতার করে #সিরিয়ার শাসকরা এক কৌশলগত ভুল করল,@বাতুত্তাকে গ্রেফতার করে তারা কার্যত মিশরীয় সাইবার সম্প্রদায়কে তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে শামিল করল।..#মিশর

@সুলতানআলকাশেমি: কেবল মিশরীয় নয়। এমটি@ওয়েড্যাডি (সিরিয়া) @বাতুত্তাকে গ্রেফতার করে, তারা কার্যকর ভাবে মিশরীয় সাইবার সম্প্রদায়কে তাদের নিজেদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে শামিল করল।

এই বিষয়টি উপলব্ধি করা যায় যে, দামেস্কে অবস্থিত মিশরীয় দূতাবাসকে এই গ্রেফতারের বিষয়ে জানানো হয়েছে।

এছাড়াও টুইটারে, #ফ্রিরাদোয়ান নামক হ্যাশট্যাগ তার পক্ষে সমর্থন জোটানোর কাজে লেগে পড়েছে।

এই পোস্টটি সিরিয়া প্রতিবাদ ২০১১ সম্বন্ধে আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ

1 টি মন্তব্য

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .