বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

প্যালেস্টাইন: “আমি সমুদ্রকে ভয় পাই”

গত ৩১শে মে গাজা ফ্রিডম ফ্লোটিলাতে (ইজরায়েলের) আক্রমণের প্রতিক্রিয়া হিসাবে, গাজার ব্লগার কাওথার আবু হানি একটি কাব্যিক পোস্ট লিখেছেন একটি বাচ্চার দৃষ্টিভঙ্গী থেকে যার নাম ‘মিষ্টি ডোবে না’

তার ব্লগ নোটস অফ দ্যা নাইটকাওথার লিখেছেন:

أنا خائفة جدا من البحر
مرة قتلوا هدى غالية على الشاطئ و مرة أصيب جارنا الصياد برصاصة قطعت ذراعه فأكلتها الأسماك..
أمي
هذه المرة أنا أكثر خوفا و قلقا من البحر
و أصبحت حذرة من الماء
حتى ماء الصنبور أنا خائفة منه
أمس استهدفوا طيارتي الورقية المحلقة في سماء البحر
و في الصباح اغتالوا أسطول الحرية
أعلن المخيم أن المساعدات تأجلت
আমি সমুদ্র আসলেই খুব ভয় পাই
একবার হুদা ঘালিয়া [এর পরিবার] সমুদ্রতীরে নিহত হয়, আর একবার আমাদের জেলে পড়শিকে গুলি করা হয় আর তার একটা হাত কেটে ফেলার পরে মাছ খেয়ে ফেলে…

ও মা…

এইবার সমুদ্রের ব্যাপারে আমি আরো বেশী ভয় পাচ্ছি আর চিন্তিত আছি।
আর আমি পানির ব্যাপারে সাবধান হয়ে গেছি
আমি কলের পানিকেও ভয় পাই।
গতকাল সমুদ্রের আকাশে ওড়া আমার কাগজের ঘুড়িকে তারা লক্ষ্য করেছিল
সকালে তারা ফ্রিডম ফ্লোটিলাকে হত্যা করেছে
ক্যাম্প ঘোষণা দিয়েছে যে ত্রাণ আসতে দেরি হবে।

يا إلهي
كم يصدّق الصغار أبسط المبررات
لكنني لا أصدق أن الحلوى التي على متن الأسطول قد نجت من الغرق, حتى و إن لم تغرق فإنها قد اعتقلت و ربما صودرت إلى أطفال يهود..
لماذا الأطفال اليهود محظوظون أكثر منا؟
ও ঈশ্বর!
ছোটরা খুব সহজ কোন অজুহাত হলেই বিশ্বাস করে
কিন্তু আমি বিশ্বাস করিনা যে ফ্লোটিলাতে থাকা মিষ্টি ডুবে গিয়েছে, আর যদি এগুলো ডুবে না গিয়েও থাকে এগুলোকে বাজেয়াপ্ত করে হয়ত ইজরায়েলি বাচ্চাদের জন্য পাঠান হবে…

কেন ইজরায়োলি বাচ্চারা আমাদের থেকে বেশী সৌভাগ্যবান?

গাজা তীরে বাচ্চারা

গাজা তীরে বাচ্চারা (ছবি এমাদ বাদোয়ান এর সৌজন্যে)

أووه
تلك المستوطنة التي ترتفع برأسها و عيونها إلى مخيمنا.. تبدو أبشع من غول حكاية جدتي, أعتقد أن الحلوى ذهبت إليهم, يا خسارة.. كان مذاقها سيكون حلوا في فمي و سيذيب مرارة الحصار العالقة في حلقي.. كنتُ أنا و أصدقائي نخطط لجمع قطع الحلوى التي تبحر إلينا و نصنع منها بيتا صغيرا لننتقم به من الخيم, أتظنين يا أمي أنهم سيُرجعون الحلوى إلينا؟ المعلمة أخبرتنا أن الأمهات اليهوديات لا يرضين لأطفالهن بأن يأكلوا حلوى ملوثة, استغربتُ من ذلك و قفزت من مقعدي أسأل المعلمة ” و هل الحلوى التي يحملها الأسطول ملوثة”, لم تجبني المعلمة و راحت تكمل شرح درس الاحتمالات..
صديقي قال لنا أن الحلوى حقا ملوثة, لقد تلوّثت بالرصاص و بالغاز المسيل للدموع, ثم سكت قليلا و قال بفرح ” لكن الدم طهرها “, صديقتنا أمل تقيّأت عندما سمعته يقول ذلك, لم تحتمل تخيل مشهد قطع حلوى مبللة بدم الكبار, أما أنا فابتهجت و اطمأننتُ بشأن الحلوى.. حلوى بطعم الدم و البحر و البلاد الحرة.
ওহ…

সেই (ইহুদী) বসবাসকারী যিনি তার মাথা আর চোখ আমাদের ক্যাম্পের দিকে তুলেছে…আমার দাদির গল্পের দৈত্যের থেকেও তাকে বীভৎস লাগছে। আমি মনে করি মিষ্টি তাদের কাছে গেছে- কি আফসোস… আমার মুখে এর স্বাদ মিষ্টি লাগতো, আর অবরোধের তিক্ততা আমার গলা থেকে চলে যেত…আমার বন্ধু আর আমি পরিকল্পনা করছিলাম (ফ্রিডম ফ্লোটিলায়) ভেসে আসা মিষ্টি সংগ্রহ করবো, আর তা দিয়ে ছোট একটা ঘর বানাব আমাদের তাঁবুতে বাসের বদলা নেয়ার জন্য। মা, তুমি কি মনে কর তারা এই মিষ্টি আমাদের ফিরিয়ে দেবে? আমাদের শিক্ষক বলেছিলেন যে ইজরায়েলি মায়েরা তাদের সন্তানদের দূষিত মিষ্টি দেবেনা; আমি এতে অবাক হই, আর আমি আমার চেয়ার থেকে লাফ দিয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করি,” ফ্লোটিলায় যে মিষ্টি আসছে তা কি দূষিত?” শিক্ষক আমাকে উত্তর না দিয়ে পরিসংখ্যানের সম্ভাব্যতা নিয়ে বুঝিয়ে যেতে লাগলেন…

আমার বন্ধুরা বলল যে মিষ্টিগুলো আসলেই দূষিত, কারণ এগুলো বুলেট আর কাঁদানি গ্যাস দ্বারা দূষিত হয়েছে; সে একমুহূর্তের জন্য চুপ থেকে খুশি মনে বলেছে, ”কিন্তু রক্ত এদের শুদ্ধ করে দেয়।” আমাদের বন্ধু আমাল বমি করে দিয়েছে এটা শুনে, সে কল্পনা করতে পারেনি বড়দের রক্তে ভেজা মিষ্টির কথা। কিন্তু আমি খুশি ছিলাম আর মিষ্টির ব্যাপারে পুনরায় আশ্বস্ত হলাম… মিষ্টি যার মধ্যে রক্ত আর সমুদ্র আর মুক্ত দেশের স্বাদ আছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .