বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

প্রাণদণ্ডের বিরুদ্ধে ইরানী কুর্দিস্তানের শহরগুলোতে ধর্মঘট পালন

১৩ মে, বৃহস্পতিবার ইরানের কুর্দিস্তান ও অন্যান্য প্রদেশে জীবনযাত্রা থমকে যায়, ধর্মঘটের কারণে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও দোকান বন্ধ থাকে। ৯ মে, ২০১০-এ ফারজাদ কামানগার, আলি হেইদারিয়ান, ফরহাদ ওয়াকিন এবং শিরিন আলম হলি নামক চার কুর্দি বন্দির প্রাণদণ্ড কার্যকর করার প্রতিবাদে এই ধর্মঘট পালন করা হয়। বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন অভিযোগ করেছে, ইরান সরকার অভিযুক্তদের উপর অত্যাচার করে তাদের কাছ থেকে এই স্বীকারোক্তি আদায় করে যে, তারা সন্ত্রাসবাদী সংগঠনের সাথে জড়িত ছিল।

যেখানে ইরান ভিত্তিক প্রচার মাধ্যম কুর্দিস্তানের কোন সংবাদ প্রদান করেনি, সেখানে কুর্দিস্তানের নাগরিকরা এই বিষয়ের উপর তথ্য সরবরাহ করেছে, ধর্মঘটে বন্ধ থাকা শহরগুলোর ছবি এবং ভিডিও দৃশ্য ধারণের মধ্যে দিয়ে।

এই হচ্ছে সানানডাজ। ইরানী কুর্দিস্তানের কেন্দ্রীয় শহর, বৃহস্পতিবার এই চলচ্চিত্র তোলা হয়েছে:

সামান রাসুলপোর ধর্মঘটের দিনে সাননাডাজ শহরের বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশ করেছে:

এখানে আমরা দেখতে পাচ্ছি আরেকটি কুর্দি শহর মেহাবাদ-এর দোকানপাট বন্ধ রয়েছে।

হাভাইয়ে তাজহে এই ঘটনার উপর লিখেছেন [ফারসী ভাষায়], তিনি তার লেখায় বলছেন:

এই ধর্মঘট কুর্দিস্তানের শহরগুলোকে অচল করে দেয়। শীঘ্রই আরো ১২ জন কুর্দি বন্দি প্রাণদণ্ডের মত ঘটনার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে। কোন আইনজীবী পাওয়ার তাদের কোন অধিকার নেই এবং আমরাই তাদের একমাত্র আশা।

দোলতামেলি এর সাথে যোগ করেছেন যে, বৃহস্পতিবার কুর্দিস্তানের ইতিহাসে আরেকটি সাহসী দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .