বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভিডিও: সারা বিশ্বের তরুণরা ৬০ সেকেন্ডের ভিডিওতে নিজেদের তুলে ধরছে

ওয়ানমিনিটজেআর-এর লোগো

ওয়ানমিনিটজেআর-এর লোগো

ওয়ানমিনিটজেআর নামক প্রকল্প সারা বিশ্বের বিভিন্ন এলাকার ১২ থেকে ২০ বছরের তরুণদের নিজেকে প্রকাশ করার সুযোগ প্রদান করছে। এই প্রকল্প এসব কিশোরদের নিজেদের প্রকাশ করার এবং অডিওভিজুয়ালের উপর দক্ষতা অর্জনের সুযোগ করে দেয়, যাতে তারা ৬০ সেকেন্ডের এক ভিডিওতে আরো বিশাল এক সীমানা, ভাষা এবং দূরত্ব পার হয়ে নিজেকে প্রকাশ করতে পারে।

ওয়ানমিনিটজেআর নামক প্রকল্প ইউরোপিয়ান কালচারাল ফাউন্ডেশন, ওয়ানমিনিটজেআর ফাউন্ডেশন এবং ইউনিসেফের যৌথ উদ্যোগের ফসল এবং তাদের সাথে আরো কিছু অংশীদার জড়িয়ে রয়েছে। সারা বছর ধরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে পাঠানো এক মিনিট দৈর্ঘ্যের অনেকগুলো ভিডিও দেখতে পাবেন তাদের ওয়েবসাইটে। এসব ভিডিওর কিছু ব্যক্তিগত উদ্যোগে পাঠানো হয়েছে এবং কিছু কর্মশালার মাধ্যমে সৃষ্টি হয়েছে। এসব কর্মশালায় তরুণদের শেখানো হয় কিভাবে তাদের চিন্তাকে লিখে ভাষায় প্রকাশ করতে, চলচ্চিত্র বানাতে এবং সেগুলোকে সম্পাদনা করতে হয়।

এইসব সংক্ষিপ্ত ভিডিও-তে ভিন্ন দেশে ও ভিন্ন প্রেক্ষাপটে বাস করা তরুণরা তাদের সচেতনতা, চিন্তা এবং স্বপ্নগুলো তুলে ধরে এবং এর মধ্য দিয়ে তারা তাদের প্রতিদিনের জীবনের জানালায় প্রবেশের সুযোগ করে দেয়। যেমন পোল্যান্ডের লুডিমিলা কেইরেসজাক একটি ভিডিও নির্মাণ করেছে। এই ভিডিওতে সে বর্ণনা করেছে, সে আসলে কে। এই ভিডিওটি দেখতে চাইলে নিচের ছবিতে ক্লিক করে ওয়ানমিনিটজেআর সাইটে প্রবেশ করুন

Who am I by Ludmila

বাংলাদেশের মোবাশ্বেরা তারান্নুম আদিবা তার এই ভিডিওতে শিশু অধিকার সনদ থেকে বেশ কিছু বিষয় তুলে ধরেছে। “আমি স্বাধীনতা চাই” নামের এই ভিডিওতে সে ১২ নম্বর অনুচ্ছেদের উপর আলোকপাত করেছে: এই অনুচ্ছেদে উল্লেখ করা হয়েছে শিশুদের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গির মধ্য দিয়ে দেখার অধিকার থাকতে হবে এবং তাদের কণ্ঠস্বরকে অবশ্যই শ্রদ্ধা জানাতে হবে এবং ১৬ নম্বার অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে প্রত্যেক শিশুর নিজস্ব গোপনীয়তা বজায় রাখার অধিকার থাকবে।

মঙ্গোলিয়া হতে টুভডেনজামাটস (টুভডেন) আলটানকইয়াগ প্রত্যেকটি শিশুর নিজস্ব সংস্কৃতিতে বেড়ে ওঠার অধিকার চিত্রিত করেছেন:

পরবর্তী ভিডিও আন্টিগুয়া ও বারবুডার সিমন টোঙ্গার। ভিডিওতে এক কিশোরী (সিমন) বয়সন্ধিকালের স্বীকারোক্তি প্রদান করার মধ্য দিয়ে তার মত প্রকাশের অধিকার চর্চা করেছে:

নাইজেরিয়ার ইব্রাহিম ইদে তুলে ধরেছেন পরিবারের মধ্যে শিশুদের যে অধিকার রয়েছে তার কথা। যে পরিবার তাকে ভালবাসে সে পরিবার তাকে তার ঘরে এবং বাইরের অধিকার রক্ষায় নিয়োজিত থাকবে:

আরো এ ধরণের এক মিনিট দৈর্ঘ্যের ভিডিও দেখতে চাইলে দিওয়ানমিনিটজেআর.অর্গের মুল সাইট অথবা ইউটিউবে ইউনিসেফের ওয়ান মিনিট জেআর. চ্যানেল প্রবেশ করতে পারেন। সেখানে দেখতে পাবেন শিশু অধিকারের উপর অনেক তরুণ ৬০ সেকেন্ডের বেশ কিছু ভিডিও তৈরি করেছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .