বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গোপনীয়তার সাথে মেসেঞ্জার ব্যবহারের প্রতি নিষেধাজ্ঞা জারি করতে যাচ্ছে রুশ সংসদ

ছবি: পিক্সাবে-এর

রুশ সংসদ দুমার তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক কমিটি এক বিতর্কিত খসড়া আইনের অনুমোদন প্রদান করেছে যে আইনে নাম পাল্টে কিংবা গোপন রেখে অনলাইনের মেসেঞ্জার এ্যাপসের ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। দুমার এই কমিটি সংসদে এই খসড়া আইন নিয়ে প্রথম দফা আলোচনার পরামর্শ প্রদান করেছে, যে আলোচনার পর প্রয়োজনীয় সংশোধনের জন্য এই আইনটি পুনরায় কমিটির কাছে পাঠানো হবে।

সংসদে প্রথম দফা আলোচনার পর এই বিষয়ে যে ভোট প্রদান করা হবে, সংসদ এখনো তার তারিখ নির্ধারন করেনি। তবে, যদি এটি সংসদে পাশ হয় এবং রাষ্ট্রপতি পুতিন এতে স্বাক্ষর করেন, তাহলে ২০১৮ সালের শুরুতে এই আইন কার্যকর হবে।

দুমার সংসদদের কাছে ২৪ মে তারিখে এই আইনটি উপস্থাপন করা হয়। এই আইনে মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীদের ফোন নাম্বার প্রদানের মাধ্যমে নিজেদের পরিচয় নিশ্চিত করতে হবে, এতে পরিচয় চিহ্নিত করার এই প্রচেষ্টায় মোবাইল ফোন কোম্পানিগুলোকে সরকারকে সাহায্য করতে হবে।

যদি কোন মেসেঞ্জার সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান নাম গোপন রেখে কিংবা ছদ্মনামে কাউকে এই এ্যাপ ব্যবহারের সুযোগ প্রদান করে তাহলে সেই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এই আইনে জরিমানার প্রস্তাব করা হয়েছে, আবার যে সব মেসেঞ্জার সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান নাম পরিচয়হীন কোন একাউন্ট সম্বন্ধে তথ্য চেয়ে পুলিশের পাঠানো অনুরোধ উপেক্ষা করবে, রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সেন্সরশীপ প্রতিষ্ঠান দেশটিতে সেটির কার্যক্রম বন্ধ করে দিতে পারবে।

পাস হলে এই আইন কেবল আনুষ্ঠানিক ভাবে রুশ দেশে নিবন্ধিত মেসেঞ্জারের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হবে, নিবন্ধন অনুসারে রাশিয়ায় যারা হবে কেবল “তথ্য বিতরণকারী” প্রতিষ্ঠান। হোয়াটসএ্যাপস এবং টেলেগ্রামের মত জনপ্রিয় মেসেঞ্জার এ্যাপগুলো এখনো রাশিয়ায় তাদের নাম নিবন্ধন করেনি, তবে এই দুটি প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিরা ইঙ্গিত প্রদান করেছে যে শীঘ্রই তারা এই কাজটি করে ফেলবেন। আর যদি তারা আনুষ্ঠানিক ভাবে নাম নিবন্ধন করে, তাহলে নাম গোপন রাখা বা ছদ্মনাম ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা এমন এক ক্ষেত্রে বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারে যেখানে প্রচুর রাজনৈতিক মন্তব্য করা হয়, সম্প্রতি রাশিয়ায় নাম পরিচয় গোপন রাখা মেসেঞ্জার এ্যাপ ব্যবহারকারী বেশ কয়েকজনের একাউন্ট রাজনৈতিক মন্তব্যের কারণে বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .