বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আগুনে পুড়ে ৪০ তরুণীর মৃত্যুর পর গুয়াতেমালায় অনলাইন মিডিয়াতে কথিত হামলা

Mujeres prenden velas el 8 de marzo de 2017 en la Ciudad de Guatemala. Foto de Carlos Sebastián para Nómada. Usada bajo licencia Creative Commons.

গুয়াতেমালা সিটিতে ৮ মে তারিখে নারীদের মোমবাতি প্রজ্বালন। ছবি: অনলাইন মিডিয়া নোমাদা (যাযবর)-এর জন্যে কার্লোস সেবাস্তিয়ান। সৃজনশীল সাধারণ -অনির্দিষ্ট- লাইসেন্সের আওতায় ব্যবহৃত।

গুয়াতেমালা সিটির প্রান্তসীমার একটি আশ্রমের ভিতরে ৪০ জন তরুণীর মৃত্যুতে ঐ সপ্তাহেই লাতিন আমেরিকার রাস্তায় এবং নেটে আঘাত হেনে নারী অধিকার রক্ষার জন্যে আঞ্চলিক জনগণ বিক্ষোভ করছে।

আশ্রমের ভিতরে চলমান যৌন নির্যাতনের বিরুদ্ধে নারীদের প্রতিবাদ অনুষ্ঠানের পরপরই বিয়োগান্তক ঘটনাটি সংঘটিত হয়। প্রতিবেদন অনুসারে, সেই তরুণীদের আশ্রমের ভিতরে তালাবদ্ধ করে রেখে নৃশংস একটি অভিযানের মাধ্যমে বিক্ষোভটির পরিসমাপ্তি ঘটে। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, মেয়েরা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে গিয়ে একটি গদি জ্বালিয়ে দেয়ার পরও কর্তৃপক্ষ তাদের ভিতরে আটকে রাখে। পরবর্তী এই আগুনে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদ অনুসারে নিহতের চূড়ান্ত সংখ্যা ৪০ জনে উন্নীত হয়।

অনলাইন সংবাদমাধ্যম এবং সামাজক গণমাধ্যম জুড়ে ঘটনাটি ভাল কারেজ পেয়েছে। এসব গণমাধ্যমের মধ্যে গুয়াতেমালার প্রতিষ্ঠান নোমাদাজিটিতে কিছু কিছু তরুণীর রেকর্ডকৃত সাক্ষ্য-প্রমাণাদি প্রকাশিত হয়েছে।

অডিওগুলো প্রকাশের অব্যবহিত পরেই নোমাদাজিটিতে কিছু কিছু ব্যবহারকারী এবং এ্যাক্টিভিস্টরা একটি আপাত: ডিডিওএস আক্রমণ (একটি ‘পরিষেবা অস্বীকার আক্রমণ হলো অনেক ব্যবহারকারী বা কম্পিউটার মিলে একসঙ্গে একটি সাইটে প্রবেশ করার চেষ্টা করে যতক্ষণ না অতিরিক্ত ট্রাফিকের চাপে সেটি ভেঙ্গে পড়ে বা ক্র্যাশ করে)-এর ঘোষণা দেয়:

এই মুহূর্তে @নোমাদাজিটি-তে #বাকস্বাধীনতা নিয়ে একটি ডিডিওএস আক্রমণ (একটি ‘পরিষেবা অস্বীকার আক্রমণ) চলছে। সাংবাদিকরা ডিডিওএস আক্রমণের আওতায় এই ঘটনাটির খবর প্রকাশ করে চলছে। @নোমাদাজিটি প্রযুক্তিগত সাহায্য খুঁজছে।

ওয়েবসাইট গুয়াতেমালা শাফাকনা জানিয়েছে:

El portal de noticias Nómada entrevistó a dos de las menores sobrevivientes de la tragedia del Hogar Seguro Virgen de la Asunción, sin embargo, luego de publicarlos han experimentado problema en su sitio. Las declaraciones fueron publicadas en la nota Audios: una policía le dijo a las niñas que se aguantaran el fuego [itálicas nuestras] escrita por la periodista Claudia Méndez Arriaza.

সংবাদ সাইট [নোমাদজিটি] হোগার সেগুরো [প্রতিবাদ এবং আগুন সংঘটিত আশ্রম] কাণ্ডে বেঁচে যাওয়া দুইজন মেয়ের সাক্ষাত্কার নিয়েছে। তবে সেগুলো  প্রকাশ করার পর তাদের ওয়েবসাইটে সমস্যা হয়েছে। প্রকাশিত সাক্ষ্যগুলোকে ‘অডিও: এক পুলিশ কর্মকর্তা মেয়েদের আগুনটিকে চুষে নিতে বলেছে’ উল্লেখ করে লিখেছেন সাংবাদিক ক্লদিয়া মেন্দেজ আরিয়াজা।

অন্যান্য মিডিয়া খবর পুনঃপ্রকাশ করে নোমাদজিটির সমস্যা সম্পর্কে সতর্ক করেছে। কয়েক ঘণ্টা পরে পুনরায় স্বাভাবিক পরিষেবা চালু হলে উল্লেখ (নোট)-গুলো হালনাগাদ করা হয়েছে:

El portal de noticias Nómada entrevistó a dos de las menores sobrevivientes de la tragedia del Hogar Seguro Virgen de la Asunción, sin embargo, luego de publicarlos han experimentado problema en su sitio. Actualmente ya están reestablecidos.

সংবাদ সাইটটি [নোমাদজিটি] হোগার সেগুরো বিয়োগান্তক কাণ্ডে বেঁচে যাওয়া মেয়েদের দুইজনের সাক্ষাত্কার নিয়েছে। কিন্তু সেগুলো প্রকাশ করার পর তাদের ঢুকতে পারার সমস্যা হয়েছে। এখন তারা অনলাইনে ফিরে এসেছে।

কয়েক ঘণ্টা পরে নোমাদজিটি পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তবে তরুণীদের মৃত্যুর জন্যে গুয়াতেমালা রাষ্ট্রটিই দায়ী এই অভিযোগের প্রেক্ষাপটে পরিষেবা অস্বীকার আক্রমণটি গুরুত্বপূর্ণ রয়ে গেছে।

আপনি নোটটি পড়ার চেষ্টা সারাদিন অতিবাহিত করে থাকলে সেটা (এখন) এখানে আমাদের ফেসবুক পাতায় সম্পূর্ণ আকারে রয়েছে। এই বিলম্বের জন্যে আমরা ক্ষমা প্রার্থনা করছি। এই তরুণীদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের শাস্তি না হবার নয়। #হোগারসেগুরো

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .