বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

আইফোনের বিজ্ঞাপনে শৈল্পিক গ্রিস: তবু খুশি নন সব গ্রিক

ছবি তোলার জন্যে একজন গ্রামবাসীর গর্বিত ভঙ্গিমা। ইউটিউবে অ্যাপেলের ভিডিও বিজ্ঞাপনের স্ক্রীনছবি।

অ্যাপেলের সর্বশেষ বিজ্ঞাপন দেখে একটা বিদেশী স্বাধীন সিনেমা থেকে সরাসরি নেয়া কিছু মনে হয়,” বলেছে জনপ্রিয় মার্কিন ডিজিটাল নিউজ ওয়েবসাইট ম্যাশেবল । এটার একটা অংশ দেখে কী তাই মনে হয়? পুরোটাই পেলোপোনেসে’র দুটি গ্রিক গ্রামে ধারণ করা আইফোন ৭ প্লাস-এর প্রতিকৃতি এবং ক্ষেত্রের গভীরতার মোডের বিজ্ঞাপনটি গ্রিক-ভাষী গ্রামবাসীদের রূপায়ণ করেছে এবং এর ইংরেজি সাবটাইটেল করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপনে গ্রিক সম্পৃক্ততা অবশ্যই কিছু কিছু গ্রিককে গর্বিত করলেও অন্যেরা বিজ্ঞাপনটিতে গৎবাঁধা কাহিনীসূত্র প্রয়োগের অভিযোগ করেছেন।

“আমারটা নাও” শিরোনামেরটি পরিবারকে দেখার জন্যে পেলোপোনেসে’র একটি গ্রিক গ্রামে মানি-তে বেড়াতে আসা এক যুবতী নারী (অভিনেত্রী নেফেলি কুরি)-কে  অনুসরণ করে। পুরানো গ্রাম “কাফেনিও” (একটি গ্রিক ক্যাফে)-তে সে তার “ইয়েইয়া” (গ্রিক ভাষায় নানী)-এর সঙ্গে দেখা করে  তার নতুন গোলাপী সোনা রঙের আইফোন দিয়ে একটি ছবি তুলে। ছবিটির স্বচ্ছতা দেখে সে বিস্মিত হয় এবং সঙ্গে সঙ্গেই ক্যামেরাটি বিভিন্ন বন্ধু এবং পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়ে গ্রামের ছবির মতো পথে ঘুরিয়ে নিয়ে আসে যেখানে সবাই একটি করে ছবি তোলে।

শুধু চরিত্র আর অবস্থানই নয় সাউন্ডট্র্যাকটিও গ্রিক। যেটাকে আনাড়ি গলার একটা হাওয়াইয়ান বা সুইস চিকন সুর বলে মনে হচ্ছে সেটা আসলে ১৯৩০-এর দশকের রিবেটিকো সুরকার কোস্তাস বেজোসের “পাম স্তি হোনোলুলু” (চলো হনলুলু যাই)  নামের একটি গ্রিক গানের পুরোনো রেকর্ডিং।

আপনি এখানে ইউটিউবে গানটির ভিডিও দেখতে পারেন, যেখানে এটি ৫০ লক্ষের চেয়েও বেশিবার দেখা হয়ে গেছে:

কেউ কেউ বিজ্ঞাপনটিকে কমনীয় দেখলেও অন্য যারা আছেন তারা বিজ্ঞাপনটিতে গ্রিক জনগণকে অজ্ঞ হিসেবে চিত্রায়িত করা হয়েছে বলে অভিযোগ করে ফেসবুকে নেতিবাচক অনেক মন্তব্য করেছেন

গ্রিসের হাফিংটন পোস্টে যুক্তরাষ্ট্র থেকে জন সিমোটাস মন্তব্য করেছেন:

Δείχνουν την Ελλάδα λες και είμαστε ακόμα στην δεκαετία του '50. Από τις ενδυμασίες, μέχρι τις συμπεριφορές των ανθρώπων που κάνουν λες και δεν έχουν ξαναδεί κινητό με φωτογραφική μηχανή στην ζωή τους……… Υπερηφανεύεστε μια ζωή για τα πιό χαζά πράγματα…………

তারা গ্রিসকে এমনভাবে দেখিয়েছে যেন আমরা এখনো ১৯৫০ সালে আছি: জামাকাপড়, মানুষের আচরণ, এমন যেন তারা আগে কখনো ক্যামেরাওয়ালা একটা মোবাইল ফোন দেখে নাই….. আপনারা সব সময় হাবাগোবা জিনিসে গর্বিত…

আরো অনেকগুলোর মধ্যে একটি গ্রিক পোর্টাল বিজ্ঞাপনটির অন্তর্নিহিত খুঁটিনাটিসহ খবরটি ভাগাভাগি করেছে:

To μόνο παράξενο στην ιστορία αυτή είναι ότι όλο το χωριό ενθουσιάζεται από τη μαγική αυτή συσκευή, σαν να μην είχε δει ποτέ κανείς smartphone.

Τουλάχιστον οι ηθοποιοί ήταν Έλληνες που μιλούσαν κανονικά ελληνικά, και θα έχει ακόμα μια ευκαιρία η χώρα μας να προβληθεί παγκοσμίως έστω και έτσι.

এই গল্পের মধ্যে একমাত্র অদ্ভুত জিনিসটি হলো যে পুরো গ্রাম এই “জাদুর যন্ত্র” দেখে তাজ্জব বনে গিয়েছে যেন সেখানকার কেউ আগে একটি স্মার্টফোন দেখে নাই।

অন্তত: অভিনয় শিল্পীরা গ্রিক ছিল এবং তারা শুদ্ধ গ্রিক বলেছেন; এটা আমাদের দেশের বিশ্বজুড়ে বিখ্যাত হওয়ার জন্যে আরেকটি সুযোগ, এমনকি এভাবে যদি হওয়া যায়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .