বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভুয়া, প্রতারণা, বানোয়াট: সংবাদের সত্যোদ্ঘাটনের শব্দকোষ

fukushima daisies

ছবি: ইমগুর ব্যবহারকারী প্লিজগুগলশেকারআমেরপ্লিজগুগলডেভিডকেলিস

“ভুয়া খবর” সম্প্রতি ব্যাপকভাবে নজর কেড়েছে। বিশেষত কিছু সাম্প্রতিক ঘটনা দেখিয়েছে এ জাতীয় সংবাদ কতোটা শক্তিশালী ও সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলার ক্ষমতা রাখে। নববর্ষের দ্বারপ্রান্তে ভুয়া খবরের দাঙ্গা উস্কে দিতে পারার যে সম্ভাব্য ক্ষমতা তা বাস্তব হতে চলছিলো: গত ডিসেম্বর মাসের শেষভাগে দেয়া হুমকিটির কথা স্মরণ করুন, যাতে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী খাজা মোহাম্মদ আসিফ তাঁর দেশ পারমাণবিক যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত রয়েছে বলে ইসরায়েলকে সতর্ক করে দেন। এই হুমকির ভিত্তি ছিলো ইসরায়েলি মতলব সম্পর্কিত একটি ভুয়ো সংবাদ প্রতিবেদন। যুক্তরাষ্ট্রে “ভুয়া খবর” পরিভাষাটিকে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমালোচনাকারী সংবাদ সংস্থাগুলোর জন্য একটি তকমায় পরিণত করেছে ট্রাম্পপন্থীরা । কিন্তু এই জাতীয় সংবাদই আবার তাঁর রাষ্ট্রপতি পদে উত্তরণের সম্ভাব্য একটি ব্যাখ্যা হিসাবে বিবেচিত হচ্ছে।

ভুয়া খবরই একমাত্র সমস্যা নয়, মেলিশা যিমদারসের মতো মানুষরা (একজন অধ্যাপক, যার বিখ্যাত ভুয়া খবরের তালিকাটির বিষযবস্তু ছিলো মার্কিন নির্বাচনের পরমুহূর্তের পরিস্থিতি।) এক্ষেত্রে আরো কিছু নিয়ামক চিহ্নিত করেছেন। তাঁর মতে, প্রচার-প্রচারণা, মিথ্যা তথ্য, অতিরঞ্জিত তথ্য, সংবাদ-টোপ এবং “মেকিসত্য”-এর মতো ঘটনাগুলোও সমান শক্তিশালী এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে আরো বেশি ক্ষতিকর। (গিলাদ লোটন সম্প্রতি এমনটাই বলেছেন)

সত্যিকার অর্থে “ভুয়া খবর” ঠিক কী ,তা বুঝা কঠিন। একটা সংবাদ প্রতিবেদনে অশুদ্ধ ঘটনা থাকলেই– সাংবাদিকরা পূর্বেও ভুল করতেন– তাকে সরাসরি জালিয়াতি পূর্ণ সাংবাদিকতার ঘটনা হিসাবে চিহ্নিত করা যায় না। অতীতে ভুয়া খবর বলতে বানোয়াট বিষয় সমৃদ্ধ সংবাদকে নির্দেশ করা হতো, যার মুখ্য উদ্দেশ্য ছিলো রাজস্ব সৃষ্টি। বর্তমানে উপরে উল্লিখিত সমস্যাযুক্ত ঘটনাগুলোসহ যেকোনো প্রকারের আপত্তিজনক সংবাদকে এই পরিভাষায় প্রকাশ করা হয়। এই পরিভাষা নিয়ে কিছুটা হলেও মতভেদ রয়েছে, অন্তত ইংরেজি ভাষার সংবাদ-দুনিয়ায় তা লক্ষ করা যায়। পরিভাষাটিকে অন্য ভাষায় অনুবাদ করতে গেলে সমস্যাটি আরো প্রকটিত হয়ে উঠে: জাপানি ভাষার কথায় ধরুন, জাপানিতে デマ বা “ডিমা” শব্দের একটি অর্থ হলো “ভুয়া খবর”, কিন্তু এর অন্য অর্থ “মিথ্যা রটনা“।

“ভুয়া খবর” যে কাজটি করে তা হলো, পাঠককে সংবাদ প্রতিবেদনের মধ্যে কোনটি সত্য আর কোনটি মিথ্যা তা নির্ণয়ে জটিলতায় ফেলে। গত বছর সাত হাজার আটশত জন শিক্ষার্থীর উপর পরিচালিত স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে ইউএস-এর উচ্চবিদ্যালয় স্তরের বেশিরভাগ শিক্ষার্থী সাধারণত ছবি ও তার পরিচয়-নামকে (ক্যাপশন) আসল হিসাবে গ্রহণ করে, কোনো রূপ যাচাই করার কথা না ভেবে। এবং প্রশ্নের পরীক্ষণচিত্র হিসাবে?

এই ছবিটি দেয়া হয়। উপরের চিত্রটি পারমাণবিক বিপর্যয়ের প্রমাণ ব্যতীত অন্যকিছু, এমনটা ভাবতে শিক্ষার্থীদের কষ্ট হচ্ছিলো।

তাহলে এটি এবং আরো অনেক সমস্যার মূল এই “পরিভাষা”টি নিয়ে আরো কিছু বিভ্রান্তি যোগ না করে কি কোনো কথা বলা যাবে? গ্লোবাল ভয়েসেস'র বিশ্বব্যাপী পরিপ্রেক্ষিতে দেখলে “ভুয়া খবর” যে সমস্যা সৃষ্টি করছে, তা নতুন নয়। সেজন্য সংবাদকাঠামো'র মতো বিষয় প্রবর্তন করা হয়েছিল। যা ছিল সংবাদের স্বচ্ছতা বিধানে আন্তর্জাতিক স্তরে প্রথম প্রচেষ্টা।

তার মানে বাধা প্রদানের ক্ষেত্রে কঠিন কাজটি হলো সমস্যা এবং ব্যাপারটি বর্ণনা করার জন্য উপযুক্ত শব্দ খোঁজা। ডিসেম্বর মাসে, আমরা শুরু করেছিলাম ভুয়া পরিভাষাটি দিয়ে, তারপর চলে যাই মিথ্যা এবং প্রতারণাপূর্ণ এর মতো পরিভাষায়। শব্দ দুটি লেখকের অপরাধী-সুলভ মনোবৃত্তি- যা আমাদের অস্বস্তিতে ফেলে – ব্যক্ত করে। এই মুহূর্তে আমরা কেবল একটি পরিভাষা, নির্দিষ্ট কর বললে বানোয়াট সংবাদ পরিভাষাটির উপরেই দৃষ্টি নিবদ্ধ করবো। এই পরিভাষাটি সম্পর্কে আপনি আরো বিস্তারিত এই পাতায় পড়তে পারবেন। আমরা আশাবাদী এই কার্যক্রমটির ধারা অব্যাহত থাকবে। সারা বিশ্বে ছড়িয়ে থাকা আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরা বিভিন্ন ভাষায় রচিত সমস্যাসৃষ্টিকারী সংবাদগুলো সংগ্রহ করতে অক্লান্ত শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন। তাঁদের এই কষ্টসাধ্য প্রচেষ্টা একদিন সার্থকতা লাভ করবে।

“ভুয়া খবর”-এর উপর অধিষ্ঠান সামগ্রিকভাবে সত্য-নির্ভর সংবাদ প্রতিবেদনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে পারে, কিন্তু এটিকে আমরা একটি সুবর্ণ সুযোগ হিসাবে দেখছি। বানোয়াট বিষযবস্তু তৈরি,পাঠ এবং ছড়িয়ে দেয়ার ফলে যে সমস্যার উদ্রেক হয়, তা বেশ কিছু কাল থেকেই চলছে। পেশাদার ও অপেশাদার লেখকরা জাল খবর এবং তদসংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলোর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন। বিশেষত তাঁরা সংবাদের নির্ভুলতা, নিরপেক্ষতা বিষয়ক সমস্যাগুলোর বিরুদ্ধে সংশোধনমূলক ব্যবস্থা ক্রমাগত নিয়ে চলেছেন। এতে মনে হতে পারে, আমাদের উদ্যোগ ধীরগতিতে সমস্যার উপর প্রভাব ফেলছে। আমরা মূলত সত্য-পূর্ণ সংবাদ পরিবেশনের একটি আদর্শ ভাষা এবং পরিণত পাঠককুল আবিষ্কার বা পুনরাবিষ্কার করতে সচেষ্ট রয়েছি, যা শুধু সমাজকে সহযোগিতা প্রদান করবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .