বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইন্দোনেশিয়ার রাজপ্রাসাদে অনুষ্ঠিত হচ্ছে স্বাধীনতা সংগ্রামের চিত্র প্রদর্শনী

"Guerilla Preparation" (Persiapan Gerilya) by Dullah. Photo by Arpan Rachman

দুল্লাহ’র আঁকা গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি। ছবি তুলেছেন অর্পণ রাচমান।

ইন্দোনেশিয়ার ৭১তম স্বাধীনতা দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি ভবনে সংরক্ষিত শিল্পকর্মগুলো সাধারণ মানুষদের দেখার জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ায় প্রথমবারের মতো এ ঘটনা ঘটলো। উল্লেখ্য, রাষ্ট্রপতি ভবনে বিপুল সংখ্যক শিল্পকর্ম রয়েছে।

ইন্দোনেশিয়া একসময় ডাচ এবং জাপানের উপনিবেশ ছিল।

প্রদর্শনীতে ইন্দোনেশিয়ার ২০ জন বরেণ্য শিল্পীর ২৮টি শিল্পকর্ম স্থান পেয়েছে। শিল্পীদের মধ্যে রয়েছেন রাদেন সালেহ, আফান্দি, এস সুজোজোনো, হেন্দ্রা গুনায়ান, বাসেওকি আবদুল্লাহ, দুল্লাহ, ট্রাবাস সুদারসোনো, সুডজোনো আবদুল্লাহ, হারিজাদি সুমাডিডজাজা, কারটোনো ইয়োধোকুসুমো, হেনক এনগানটাং এবং গামবিরানোম।

এই শিল্পীদের কেউ কেউ স্বাধীনতা সংগ্রামের ছবি এঁকে খ্যাতি পেয়েছেন।

ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতি জোকো “জোকোউয়ি” উইদোদো জাতীয় গ্যালারিতে এই শিল্প প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। এই মাস শেষ পর্যন্ত এই প্রদর্শনী চলবে।

প্রদর্শনীতে ‘এক রহস্যময়ী নারীর প্রতিকৃতি’ শিরোনামের একটি ছবি স্থান পেয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি সুকর্ণ ছবিটি এঁকেছেন।

ইন্দোনেশিয়ার অনেকেই জানেন না, তাদের শ্রদ্ধেয় নেতা একজন শিল্পী এবং শিল্পকর্মের সংগ্রাহক ছিলেন।

"Rini" made by President Soekarno-photo by Arpan Rachman

রিনি নামের এই ছবিটি এঁকেছেন রাষ্ট্রপতি সুকর্ণ। ছবি তুলেছেন অর্পণ রাচমান।

দুল্লাহ নামের এক শিল্পী গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি শিরোনামের ছবিটি এঁকেছেন। যুদ্ধ বিষয়ক বার্তা আর অপরূপ সুন্দর হওয়ার কারণে ছবিটি খুব পরিচিতি পেয়েছে।

দুল্লাহ’র ছবির মডেলরা সবাই ইয়োগায়াকারতার গুনাংকিদুল অঞ্চলের সত্যিকারের গেরিলা যোদ্ধা।

"Warriors Headquarters in ex-Warehouse Rice of Tjikampek" (Markas Laskar di Bekas Gudang Beras Tjikampek) by Dullah. Photo by Arpan Rachman

জিকামপেক-এর সেনাসদরের গুদামঘর। ছবি এঁকেছেন দুল্লাহ। ছবি তুলেছেন অর্পণ রাচমান।

প্রদর্শনীতে রাখা মেক্সিকোর বিখ্যাত শিল্পী দিয়েগো রিভেরার একটি শিল্পকর্মও ব্যাপক আলোচিত হয়েছে। ‘ফুল হাতে মালয় রমণী’ শিরোনামের এই শিল্পকর্মটি মেক্সিকোর কাছে থেকে সাবেক রাষ্ট্রপতি সুকর্ণ ইন্দোনেশিয়ার জনগণের জন্য উপহার স্বরূপ পেয়েছিলেন।

"Malay Girl with Flower" (Gadis Melayu dengan Bunga) by Diego Rivera. Photo by Arpan Rachman

মেক্সিকান শিল্পী দিয়েগো রিভেরার ‘ফুল হাতে মালয় রমণী’ চিত্রকর্ম। ছবি তুলেছেন অর্পণ রাচমান।

‘বিপ্লবী কমরেডস’ শিরোনামে এস সুজোজোনো’র একটি বিখ্যাত শিল্পকর্ম রয়েছে। এটিও প্রদর্শনীতে স্থান পেয়েছে। ১৯৪৭ সালের কোনো এক সময় এটি আঁকা হয়েছিল। উল্লেখ্য, এক শিল্প সমালোচক তার রিয়েলিস্ট স্টাইলে (বাস্তববাদী ধরনের) ছবি আঁকার দক্ষতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করলে তিনি এই ছবিটি আঁকেন।

Kawan-kawan Revolusi (Revolution Comrades) was produced by S Sudjojono. Photo by Nurhayat Arif Permana

‘বিপ্লবী কমরেডস’ ছবির সামনে লেখক পোজ দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। ছবিটি এঁকেছেন এস সুজোজোনো। ছবি তুলেছেন নূরহায়াত আরিফ পারমানা।

কিউরেটর মিক্কি সুসান্তো এবং রিজকি জিলানি মনে করেন এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে জাতীয়তাবাদ প্রচার পাবে:

At least, this kind of exhibition is expected to be able to grow and keep the love and pride of nationalism in the minds of Indonesian people, especially the youth.

এই ধরনের প্রদর্শনীর আয়োজন ইন্দোনেশিয়ার জনগণ বিশেষ করে তরুণদের মাঝে জাতীয়তাবাদের গর্ব ও ভালোবাসা বাড়াতে সক্ষম হবে।

জাকার্তার জাতীয় গ্যালারিতে গিয়েছিলাম। রাজপ্রাসাদে শিল্পকর্মের বিশাল এক সংগ্রহ দেখলাম। খুব ভালো লাগলো। এ ধরনের সুযোগ খুব কমই আসে।

জাতীয় গ্যালারির সামনে লম্বা লাইন। এই তরুণরা এসেছে অগমেন্টেড রিয়েলিটি এবং পোকেমন জগৎ থেকে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .