বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিয়ানমারের উচ্চভূমি এলাকার উপর এল নিনোর প্রভাব

A child walks on the dried-up river bed of Thaminekham Dam near Aung Ban on April 28, 2016. Photo by Jpaing / The Irrawaddy

গত ২৮ এপ্রিল, ২০১৬ তারিখে অং বান এর কাছাকাছি থামিনেখাম বাঁধের শুকিয়ে যাওয়া নদীগর্ভের উপর একটি শিশু হাঁটছে। ছবিঃ জেপাইং/ ইরাবতী

বিষয়বস্তু পুনঃপ্রকাশ করার চুক্তির অংশ হিসেবে ইরাবতীর কলামটি গ্লোবাল ভয়েসেসে প্রকাশ করা হল।

শান রাজ্যের উচ্চভূমি অঞ্চল সাধারণত মিয়ানমারের মধ্য ও নিম্ন শুষ্ক অঞ্চলের তুলনায় শীতল হয়। যদিও এই বছর বাকি অনেক দেশের মত এখানেও অসাধারণভাবে শক্তিশালী এল নিনো ধরণের আবহাওয়ার কবলে পড়েছে।

দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে শান রাজ্যের স্থানীয় সম্প্রদায়েরা সেখানকার ঝর্ণা ও হ্রদগুলোতে গৃহস্থলী ও সেচের কাজে ব্যবহার করার জন্য বৃষ্টির পান সঞ্চয় করে রাখেন। কিন্তু এই বছর ফেব্রুয়ারি থেকেই সেগুলো শুষ্ক হয়ে গেছে। গ্রামবাসীরা পানির সংকটে গ্রাম ছেঁড়ে চলে যাচ্ছেন। সেখানকার পরিস্থিতি গত যেকোন সময়ের তুলনায় খারাপ। কালাও পৌরসভার লেগুয়াং গ্রাম প্রধান তুন চি তাঁদের এলাকার পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করেছেনঃ

আমাদের গ্রামের কাছের হ্রদটি গত দুই মাস আগে শুকিয়ে গেছে। গত বছর মার্চ পর্যন্ত আমরা সেখান থেকে পানি ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছিলাম।

পানির সংকট মোকাবেলা করার জন্য ব্রাইটার ফিউচার মিয়ানমার ফাউন্ডেশনের মতো কিছু স্থানীয় দাতব্য প্রতিষ্ঠান গ্রামে পানীয় জল বিতরণ করতে শুরু করেছে। শান রাজ্যে একমাত্র এই ফাউন্ডেশনটি নিদারুণ কষ্টে থাকা এলাকাগুলোতে ২০১৪ সাল থেকে মিয়ানমার সরকারের সহযোগী হয়ে কুয়া খনন করছে। প্রধানত চুনাপাথর দিয়ে গঠিত শান মালভূমিতে গর্ত করতে বিভিন্ন মেশিন নিচ্ছে। ফাউন্ডেশনটি বলছে, তাঁদের নিজস্ব নতুন গর্ত করার সরঞ্জাম কিনতে এটি সম্প্রতি ১.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করেছে। তাঁরা এই পর্যন্ত শান রাজ্যে ১০০ টিরও বেশি কূপ খনন করেছে।

A dried-up pond in Pindaya Township in Southern Shan State on April 28. Photo by Jpaing / The Irrawaddy

গত ২৮ এপ্রিল তারিখে শান রাজ্যের পিনদায়া পৌরসভাতে একটি শুকিয়ে যাওয়া পুকুর। ছবিঃ জেপাইং/ ইরাবতী

Villagers of Lel Gaung in southern Shan State collecting water from a water bowser sponsored by Brighter Future Maynmar Foundation’s water project. Photo by Jpaing / The Irrawaddy

শান রাজ্যের দক্ষিণাঞ্চলে অবস্থিত লেল গায়ুং গ্রামের অধিবাসীরা ব্রাইটার ফিউচার মিয়ানমার ফাউন্ডেশনের পানি প্রকল্পের স্পন্সরে নির্মিত একটি জলাধার থেকে পানি সংগ্রহ করছে। ছবিঃ জেপাইং/ ইরাবতী

Members of Brighter Future Myanmar Foundation distributed water at Naung Bote village near Taunggyi. Photo by Jpaing / The Irrawaddy

ব্রাইটার ফিউচার মিয়ানমার ফাউন্ডেশনের সদস্যরা তায়ুঙ্গির কাছে নায়ুং বোতে গ্রামে পানি বণ্টন করছে। ছবিঃ জেপাইং/ ইরাবতী

A man fills water at a community water tank in Aung Ban. Photo by Jpaing / The Irrawaddy

অং বানে একজন লোক একটি কমিউনিটি জলাধার থেকে পানি ভরছে। ছবিঃ জেপাইং/ ইরাবতী

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .