বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পুয়ের্তো রিকান দ্বীপের সংগ্রাম এবং বিজয়ের ১৩৫ বছরের ইতিহাস

La marina de guerra de los Estados Unidos utilizó la isla de Culebra, un municipio de Puerto Rico, como campo de entrenamiento militar por muchos años, dejando contaminación en su tierra y agua hasta el día de hoy. En la foto, culebrenses confrontándose a la marina. Imagen tomada de video.

আমেরিকান নৌবাহিনী পুয়ের্তো রিকো পৌরসভার কুলেব্রা দ্বীপটিকে অনেক বছর ধরে একটি সামরিক প্রশিক্ষণ শিবির হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। আজ পর্যন্ত তাঁরা দ্বীপের মাটি এবং পানি দূষণ করে আসছে। ছবিতে কুলেব্রার জনগণকে নৌবাহিনীর মুখোমুখি দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে। “কুলেব্রা ১৩৫-৪০” এর স্ক্রিনশট।

পুয়ের্তো রিকান কুলেব্রা পৌরসভা দ্বীপটি এর সমুদ্র সৈকতের জন্য বিখ্যাত। বিশ্বের কয়েকটি সুন্দরতম সমুদ্র সৈকতের একটি হিসেবে এটি ব্যাপকভাবে সমাদৃত। তবে কুলেব্রা দ্বীপে সূর্য, সমুদ্র এবং বালু ছাড়াও আরও কিছু রয়েছে। কুলেব্রার জনগণ তাদের দ্বীপের জমি ও পানি রক্ষা প্রতিরোধ সংগ্রামের ইতিহাসের সাক্ষী এবং প্রধান চরিত্র। কারণ এর একটি বড় অংশ সামরিক প্রশিক্ষণ ঘাঁটি হিসেবে মার্কিন নৌবাহিনী দখল করে রেখেছিল।

Playa Flamenco es un ejemplo de las playas prístinas de Culebra. Foto por Christopher Zapf. Utilizada bajo licencia CC BY-SA 4.0 via Wikimedia Commons.

প্লায়া ফ্লামেনকো কুলেব্রা এর অন্যতম আদিম একটি সৈকত। ক্রিস্টোফার জ্যাপফের দেয়া ছবি। উইকিমিডিয়া কমনসের মাধ্যমে সিসি বিওয়াই-এসএ লাইসেন্সের আওতায় ছবিটি ব্যবহৃত।

কুলেব্রা’র মানুষ বহু বছর ধরে নৌবাহিনীর সৃষ্ট বিস্ফোরণ, বোমা, বুলেট এবং দূষণের মাঝে তাদের জীবন ধারণ করে যাচ্ছে। তাঁরা গোপনে পুয়ের্তো রিকান প্রশাসনকে পরামর্শ দিয়েছে যে ভিয়েকুয়েস এবং কুলেব্রা পৌরসভা দ্বীপের হাত থেকে তাঁরা পরিত্রাণ পেতে চায়। এর জন্য পুয়ের্তো রিকোর প্রধান দ্বীপে তাদের বাসিন্দাদের পাঠিয়ে দিতে চায়; এমনকি তারা মৃত ব্যক্তিদেরকেও তাদের সমাধি থেকে উঠিয়ে নিতে চান।

নৌবাহিনীর উদ্দেশ্য উভয় দ্বীপপুঞ্জের একচেটিয়া ব্যবহার লাভ এবং ভিয়েকুয়েস এবং কুলেব্রা এর মানুষকে আবার তাদের জমির উপর দখল নেয়া থেকে বিরত রাখা। এমনকি তাদের প্রিয়জনদের সমাধিস্থলে ফুল দিতেও বাধা দেয়া হয়। নৌবাহিনীর প্রস্তাব ভীতিপূর্ণ হওয়ার কারণে এটা “ড্রাকুলা পরিকল্পনা” নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।

যাইহোক, কুলেব্রা এর মানুষ জয়ী হয়েছে। ১৯৭৫ সালে তাদের দ্বীপ থেকে নৌবাহিনীকে বিদায় করতে সফল হয়েছে। বেসামরিকভাবে চালানো অবাধ প্রচারাভিযান, সামাজিক আন্দোলন এবং রাজনৈতিক আঙ্গিনার ব্যক্তিদের শত প্রচেষ্টার কয়েক বছর পর ২০০৩ সালে ভিয়েকুয়েস নৌবাহিনী মুক্ত হয়।

Aún quedan vestigios de los ejercicios de la marina contaminando las playas de Culebra, como este tanque. Foto tomada por Christopher Zapf. Utilizada bajo licencia CC BY-SA 4.0 via Wikimedia Commons.

কিন্তু মার্কিন নৌবাহিনীর কিছু অবশিষ্টাংশ সেখানে এখনও রয়ে গেছে। এই যেমন নৌবাহিনীর ব্যবহৃত ট্যাংক যা এখনও কুলেব্রা সৈকতকে দূষিত করে চলেছে। ছবিঃ ক্রিস্টোফার জাফ। উইকিমিডিয়া কমন্সের মাধ্যমে সিসি বাই-এসএ ৪.০ লাইসেন্সের অধীনে ব্যবহৃত।

কুলেব্রা ১৩৫-৪০” নামের তথ্যচিত্রে এই যুদ্ধের কিছু স্মৃতি সঙ্কলন করা হয়েছে। এটি তৈরি করেছে পুয়ের্তো রিকান মাসিক ডায়ালগ ইউপিআর। কুলেব্রা প্রতিষ্ঠাতার ১৩৫ বছর এবং ইউএস নেভি চলে যাবার ৪০ বছর পূর্তি উদযাপনের নিমিত্তে নেওয়া প্রকাশনা সিরিজের এটি একটি বিশেষ অংশ।

তথ্যচিত্রটি নীচে (স্প্যানিশ ভাষায়) দেখুনঃ

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .