বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পোষা কুকুর পার্লার সৌজন্যে বাড়ি যাবার পথ খুঁজে পেল এক পেরুভিয়ান মেয়ে

Screencapture from YouTube.

ইউটিউব থেকে নেয়া স্ক্রিনক্যাপচার। 

এটি তিন বছর বয়সী একটি মেয়ের গল্প। সে পেরুভিয়ান শহরের হুয়ানকায়োতে অবস্থিত তার বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পথ হারিয়ে ফেলে। অবশেষে বাড়ি ফিরে আসতে পেরে তার বিশ্বাসী পোষা কুকুর পার্লার সৌজন্যে।

ফুটপাতে দাঁড়িয়ে কাঁদতে থাকা একটি ছোট মেয়ের দিকে দুইজন পুলিশ কর্মকর্তার মনোযোগ আকর্ষণ করতে কুকুরটি নাছোড়বান্দার মতো ঘেউ ঘেউ করেই যাচ্ছিল। সেই দুই জন পুলিশ কর্মকর্তাদের একজন এঞ্জেল কুইসপে মেয়েটি হারিয়ে গেছে সন্দেহ করে তাঁর কাছে আসেন। প্রথম প্রতিক্রিয়ায় পার্লা সেই পুলিশ কর্মকর্তাকে আক্রমণ করে বসে। তবে কুইসপে পোষা কুকুরটির আক্রমণ সামলে নেন এবং মেয়েটিকে জিজ্ঞাসা করেন, তাঁর বাড়ি কোথায়?

ছোট মেয়েটি সে সময় তাঁর নামও বলতে পারছিল না। তাই পুলিশ কর্মকর্তাটি তাঁর হাত ধরেন এবং চারপাশে লোকজনকে জিজ্ঞাসা করতে শুরু করেন কেউ মেয়েটিকে চেনেন কি না? কিন্তু কিছুতেই কোন কাজ হলো না।

তারা যখন হাটছিলেন তখন পার্লা তাদের সামনে দিয়ে দৌড়াচ্ছিল, যেন সে তাদের পথ দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছে এবং এভাবে আটটি ব্লক পেড়িয়ে কুকুরটি হঠাৎ একটি বাড়ির দরজার সামনে গিয়ে বসে পড়ে। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল, সেই বাড়িটিতেই মেয়েটির পরিবার বসবাস করে।

হুয়ানকায়ান কুকুরটি সত্যিই দারুণ…!!!

অবশেষে জানা যায় যে ছোট মেয়েটির মা যখন বাজারে যায়, তখন সে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পড়ে। এমনকি বাড়ির দরজারটি ঠিকভাবে বন্ধ না করেই সে বেড়িয়ে যায়। মহিলাটি মনে করেন, তিনি দৃষ্টি সীমার বাইরে চলে যাওয়ার আগ পর্যন্ত তাঁর মেয়ে হয়তোবা তাকে অনুসরণ করেছে এবং তাকে হারিয়ে ফেলার পর উদ্দেশ্যবিহীনভাবে হাঁটতে শুরু করেছে।

যদিও আমরা সবাই জানি যে কুকুর মানুষের বিশ্বস্ত বন্ধু, এক্ষেত্রেও কুকুরটি এই ছোট মেয়েটির খুব ভাল বন্ধু হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করল।

এটি অত্যন্ত স্পষ্ট যে হুয়ানকায়োতে বীরত্ব দেখানো কুকুরের অভাব নেই। গত ২০১৩ সালে তিনটি কুকুর তাদের মৃত মনিবকে কিছুতেই ছেড়ে যেতে চাইছিল না। উল্লেখ্য, তাদের মনিব ছিলেন একজন গৃহহীন লোক। তিনি পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পাওয়ার ফলে মারা যান। লোকটির মৃতদেহ মর্গে নিয়ে যাওয়ার গাড়িতে উঠতে কুকুর তিনটি ব্যর্থ হলে তারা সেই চলন্ত গাড়িটির পাশেপাশে সারা রাস্তা ফুটপাথ দিয়ে দৌড়েছিল। এমন সময় রাস্তায় লোকেরা এক অভিনব দৃশ্য দেখতে পান।

সংবাদটি এতটা ছড়িয়ে পরেছিল যে কয়েকটি প্রাণী কল্যাণ গ্রুপ কুকুর তিনটির বিশ্বস্ততার স্বীকৃতি স্বরূপ তাদের জন্য একটি বাড়ি খোঁজার চেষ্টা করেন। যদিও তাদের এই অনুসন্ধান নিয়ে পরবর্তীতে আর কোন সংবাদ প্রকাশিত হয়নি।

সে ঘটনায় ফিরে গিয়ে একজন টুইটার ব্যবহারকারী বলেছেনঃ

আজ আমি সেই ভিডিওটি আবার দেখেছি। ঘটনাটি একেবারেই অভিনব! আর এ কারনেই যারা প্রাণীদের সাথে খারাপ আচরণ করেন, আমি তাদের নিন্দা জানাই…

হুয়ানকায়োঃ কুকুরগুলো তাদের মনিবের মৃতদেহটিকে মর্গে নিয়ে যেতে বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করছিল।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .