বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জামাইকার সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিভক্তির স্ফুলিঙ্গকে ‘শ্বেত পোষাকের ভোজ’ আরও উসকে দিয়েছে

Emancipation Park in Kingston, Jamaica; photo by Kent MacElwee, used under a  CC BY-NC-ND 2.0 license.

জামাইকার কিংস্টনে মুক্তি উদ্যান; কেন্ট ম্যাকএলউই এর সৌজন্যে ছবি CC BY-NC-ND 2.0 লাইসেন্স এর অধীনে ব্যবহার করা হয়েছে।

মাত্র সোয়া শতাব্দীর কিছু আগে বন্ধুদের সমবেত হওয়ার অনুষ্ঠান প্যারিসে চালু করার পর থেকেই ব্যাঙের ছাতার মতোই বিশ্বজুরে একটি বিস্ময়কর ঘটনায় পরিণত হয়ে এটি এখন ক্যারিবীয় অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে। শ্বেত পোষাকে ভোজ-এর ধারণা ফ্রাঁসোয়া পাসকিয়ে প্রসূত, যিনি একটি প্রকাশ্য স্থানে বন্ধুদের নিয়ে একটি বনভোজন করা ছাড়া আর কিছুই চান নি; অংশগ্রহণকারীদের একে অন্যকে সহজে খুঁজে পারার জন্য শ্বেত পোষাক পড়তে হয়েছিল। বছর ঘুরতেই এই ঘটনাটি ঘটা বাড়তে থাকে এবং আন্তর্জাতিক গতিশীলতা অর্জন করে। এটি এখন একটি রেজিষ্ট্রিকৃত ট্রেডমার্ক, তাই অনুষ্ঠান আয়োজক যারা সান্ধ্যকালীন শ্বেত পোষাকে ভোজ-এর নিমন্ত্রাতা হতে চায় তাদেরকে অবশ্যই একটি লাইসেন্স চুক্তি স্বাক্ষর করতে হয় এবং সংস্থার নির্দেশনা অবশ্যই মেনে চলতে হয়, যার মধ্যে আছে একেবারে শেষ মূহুর্তের আগ পর্যন্ত এই অনুষ্ঠানের স্থান গোপনীয় রাখা। কিন্তু জামাইকার মতো উন্নয়নশীল দেশে এধরনের একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রাতা হওয়া বিষয়টি অধিকার, বর্ণ, শ্রেণী এবং অর্থনৈতিক ক্ষমতা বিষয়ক অস্বস্তিকর কিছু প্রশ্নের উদ্রেক করে। কিংস্টনের মুক্তি উদ্যানে অনুষ্ঠানটি সমাপ্ত হবার পর পরই একটি ব্লগ পোষ্টের মাধ্যমে সক্রিয় কণ্ঠ (এ্যাকটিভ ভয়েস) ‘#শ্বেতপোষাকেভোজ এর কল্পিত জনগোষ্ঠী'র উদ্ধৃতি দিয়েছে:

The location had been announced; Kingston’s beloved Emancipation Park was being occupied by Jamaica’s One Percent, clad in white and brandishing bottles of wine and hyper-expensive loaves of bread (one lampoons them lovingly because by staging this event they were in effect telegraphing to the world that Jamaica isn’t so crime-ridden that it’s not business as usual–or should we say leisure as usual–when it needs to be)

স্থানের নাম ঘোষণা করা হয়েছে; কিংস্টনের প্রিয় মুক্তি উদ্যান শ্বেত বস্ত্র পরিধেয় জামাইকার এক শতাংশ লোক দ্বারা ছেয়ে গেছে এবং তারা মদের বোতল ও সুউচ্চ মূল্যের রুটির টুকরো উঁচিয়ে ধরেছে (তাদেরকে কেউ ঠাট্টার ছলে ব্যাঙ্গ করছে কারণ এই অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তারা পারতপক্ষ্যে সারা পৃথিবীকে টেলিগ্রাফ করেছে যে জামাইকা এতটা অপরাধ-প্রবণ নয় যে স্বাভাবিক কাজকর্ম–নাকি আমাদের বলা উচিত স্বাভাবিক অবসর চলবে না–যখন তা হওয়া উচিত)

অপেক্ষমান আরও হাজার হাজার লোকের একটি তালিকা সৃষ্টির গর্ব করা বিলাসপ্রিয়দের উদ্‌যাপন হিসেবে আখ্যা দিয়ে এই পোষ্টিটি অনুষ্ঠানটির বিভিন্ন বাজারজাতকরণ বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছে। শৈলী ও সজ্জার খুচরো ব্যবসায়ী, খাদ্য যোগান চক্র এমনকি ব্যাংকও এর বিজ্ঞাপনের কাজে নেমে পড়েছিল:

The upmarket picnic had no shortage of sponsors. The imagined community of Diner en Blanc has deep pockets. Organizers of all floundering and struggling cultural ventures in Jamaica please note…money is available depending on how you incorporate your sponsors into your events and how ‘tasteful’ and simultaneously boasy [boastful/proud] you are… […]

But…but…is this not a textbook case of conspicuous consumption you ask? literally eating and drinking as conspicuously as possible–or is it something else? You decide. This blog isn’t into glut-shaming. I’ve just filleted the event for you, that’s all. *Waves napkin*

এই উঁচুতলার বাজারের বনভোজনের জন্য পৃষ্ঠপোষকদের কোন কমতি ছিল না। শ্বেত পোষাকে ভোজ-এর কল্পিত জনগোষ্ঠীর পকেট খুব গভীর। জামাইকাতে দ্বিধান্বিত ও সংগ্রামরত সাংস্কৃতিক উদ্যোগের আয়োজকরা লক্ষ্য করুন…অর্থ সহজলভ্য তবে নির্ভর করে আপনারা কিভাবে আপনাদের পৃষ্ঠপোষকদের এই অনুষ্ঠানে যুক্ত করেন এবং আপনি কতোটা ‘রূচিপূর্ণ’ এবং একইসাথে গর্বিত… […]

কিন্তু…কিন্তু…এটি কি কোন পাঠ্য বই জাতীয় দৃষ্টিগোচর একটি ভোজন নয় যার কথা আপনি জিজ্ঞাসা করছেন? যেখান বাস্তবিক অর্থেই যত খোলাভাবে সম্ভব খাওয়া ও পান করা হয়–নাকি এটি অন্য কোন কিছু? আপনিই সিদ্ধান্ত নিন। এই ব্লগটি ভোজন-বিলাসীতাকে তিরস্কার করার জন্য নয়। আমি শুধু আপনাদের কাছে এই অনুষ্ঠানের কাঁটাবিহীন টুকরোটি তুলে ধরলাম, আর কিছু না। *হার শিকার করলাম*

অন্যান্য ব্লগাররাও এই অনুষ্ঠানটির বিষয়ে অস্বস্তিতে ছিল। প্রথমে কেলী ক্যাথারিন ওগলিভি ম্যাকিন্টোশ এটিকে প্রথমে ‘আর একটি আনন্দ-উৎসব’ আখ্যা দিয়ে উড়িয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি তখন একটি সাক্ষাৎকার দেখেন যা তার দৃষ্টিভঙ্গি ঘুরিয়ে দেয়:

A representative from one of our leading banks made a statement that has been bothering me since Friday night: ‘All of Jamaica is here’. No, Ma'am. Not at all. 900 people is not all of Jamaica. Did you mean to say ‘All of Jamaica that matters is here'? Think about it: All of Jamaica (that matters) is here.

This goes to the heart of what is wrong. It reveals the thinking of many of us. It explains much of what we see around us. ‘All of Jamaica (that matters) is here.’ Us and Them. It informs the dispensing of justice, provision of health care, why some things happen in some communities and not in others. ‘Us and Them’. As long as those with means continue to pretend as if Those Others don't exist, the chasm between Us and Them will grow wider.

আমাদের একটি শীর্ষস্থানীয় ব্যাংকের একজন প্রতিনিধি একটি বিবৃতি দিয়েছেন যা আমাকে শুক্রবার রাত থেকে বিরক্ত করছে: ‘জামাইকার সকলে এখানে'। না জনাবা। মোটেই না। ৯০০ লোক জামাইকার সবাই নয়। আপনি কি বলতে চেয়েছিলেন যে ‘জামাইকার গুরুত্বপূর্ণ সকলে এখানে'? ভেবে দেখুন: ‘জামাইকার (গুরুত্বপূর্ণ) সকলে এখানে'।

এটা ঠিক আমাদের যে সমস্যাটি তার কেন্দ্রে গিয়ে পৌঁছে। আমাদের অনেকেরই চিন্তাধারা এখানে প্রকাশ পায়। আমাদের চারপাশে আমরা যা দেখতে পাই তার বেশীরভাগই এটি ব্যাখ্যা করে। ‘জামাইকার (গুরুত্বপূর্ণ) সকলে এখানে।’ আমরা এবং তারা। বিচার কিভাবে প্রদান করা হয়, স্বাস্থ্য সেবার বিধান কিরকম হয়, কেন কোন কোন জনগোষ্ঠীতে কোন কোন জিনিস ঘটে আর অন্যগুলোতে ঘটে না তা এটি আমাদেরকে জানান দেয়। ‘আমরা এবং তারা।’ যারা সম্বলসমৃদ্ধ তারা যতদিন ভান করা অব্যাহত রাখবে যে ঐ অন্যরা বিদ্যমান নেই, ততদিন আমরা আর তারা এই মধ্যে ফাঁটল ক্রমশ বৃদ্ধি পাবে।

তিনি জামাইকাবাসীর অগ্রাধিকার সম্পর্কে প্রশ্ন তুলে বলেন যে ঠাট বজায় রাখার উপর যে মূল্য দেয়া হচ্ছে তা দেশকে অর্থনৈতিকভাবে পিছনে নিয়ে যাচ্ছে। এই পুরো ব্যাপারটি সম্পর্কে সবচেয়ে বেশী শক্তিশালী চিন্তনীয় কথা বলেছে জামাইকার প্রাক্তন প্রধান মন্ত্রী মাইকেল ম্যানলী এর মেয়ে সারাহ ম্যানলী, যে ফেসবুকে একটি টীকা পোষ্ট করেছে যা ব্যাপকভাবে ছড়ানো হয়, এবং এ্যানি পল ও জঁ লোরি-শিন এর মতো ব্লগাররা তা পুনপ্রকাশ করে:

When I posted the picture juxtaposition of the Diner En Blanc affaire beside the huge plumes of smoke from the Riverton City Dump fire blanketing the city of Kingston I did so with a clear conscience and a profound sense of irony. The elegant aerial of Jamaica's elite decked out in fine style streaming in to our National Emancipation Park, a picture I might add widely circulated in social media, and in traditional media, presented an irresistible visual representation of the haves doing what haves do. Their choice of white clothing formed an almost cloud like film eerily similar to the white smoke billowing over the capital. While Rome Burns, a long venerated metaphor for those with excess living to excess in the midst of poverty and desperation begged to be the caption.

আমি যখন শ্বেত পোষাকে ভোজ বিষয়ক ছবির পাশাপাশি বসানো রিভারটন শহরের ভাগারের আগুন থেকে নির্গত ধোঁয়ার কুণ্ডুলীর ছবি সম্বলিত একটি ছবি পোষ্ট করি সেটা আমি সম্পূর্ণ সচেতনভাবেই ও প্রগাঢ় বিদ্রুপানুভূতি থেকেই করি। ধনীরা যা করে ধনীরা তাই করছে তারই অনিবার্য চাক্ষুস প্রতিনিধিত্ব করছে আমাদের জাতীয় মুক্তি উদ্যানে সুন্দর শৈলীতে সজ্জিত জামাইকার অভিজাত শ্রেণীর ধেয়ে আসার মার্জিত বৈমানিক ছবিটি, আমি যোগ করতে পারি যে এটি একটি ছবি যেটাকে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে, এবং প্রচলিত মাধ্যমগুলোতে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। তাদের বাছাই করা সাদা পোষাক রাজধানীর উপর দিয়ে ঢেউ খেলে উড়ে যাওয়া ধোঁয়ার মতোই রহস্যজনকভাবে প্রায় মেঘসাদৃশ্য একটি আবরণ সৃষ্টি করেছে। যাদের বাড়তি আছে তারা দারিদ্র ও বেপরোয়াতার মাঝেও অতিরিক্ত ভোগ করে জীবন কাটায় তাদের জন্য একটি দীর্ঘ অপেক্ষমান শ্রদ্ধামূলক রূপক হিসেবে ‘যখন রোম পুড়ছে’ তো শিরোনাম হওয়াই উচিত।

এই অনুষ্ঠানের অংশগ্রহণকারীরা যখন ইনস্টাগ্রামে ছবি ও ভিডিও পোষ্ট করে ও একটি জনপ্রিয় গান ‘বার্ণ’ এর পঙতিগুলোর সাথে গলা মিলাচ্ছিল তখন বিষয়টি স্ববিরোধী মনে হলেও যে সত্য বিরোধী নয় সে সম্পর্কে তাদেরকে উদাসীন মনে হয়েছিল:

And we gonna let it burn #DinerEnBlanc #Kingston #Jamaica #DinerEnBlancKgn

A video posted by Diner En Blanc Kingston (@dinerenblanckgn) on

এবং আমরা এটিকে পুড়তে দেব

ম্যানলী শীর্ঘই বিরূপ প্রতিক্রিয়া অনুভব করতে শুরু করলো। নিজেই দেশের একটি অভিজাত শ্রেণীর অংশ হিসেবে তিনি এই প্রতিক্রিয়ায় অবাক হন নি। তবে যা তাকে মর্মাহত করেছিল, তা হলো যে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের ‘দেখে মনে হয়েছে যে এর মধ্যে যে ব্যাঙ্গ যুক্ত ছিল সে বিষয়ে তারা একেবারেই অজ্ঞ ছিল এবং তারা সত্যিকার অর্থেই বিস্মিত হয়েছিল যে [ম্যানলী] এই দুটো ছবিকে একত্রে রাখবে'। 

ম্যানলী ‘রোম পুড়ছে’-এর বেশ কয়েকটি উদাহরণ প্রদান করেছে, ভাগারের আগুন দিয়ে তিনি শুরু করেন, কারণ এগুলো এতো গতানুগতিক যে ‘[এগুলোকে] বিকৃত হওয়া একটি অর্থনৈতিক কাঠামোর স্বীকৃত অংশ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, যেখানে আগুন জ্বালানো ট্রাক মালিকদের জন্য ব্যবসার উন্নয়নের একটি সাধারণ কৌশল যারা ঐ আগুন নিভানোর জন্য প্রচুর পরিমাণে মাটি বহন করতে অর্থ প্রাপ্ত হয়।’ তিনি অর্থ-সংকটে থাকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্দশার কথা উল্লেখ করেছেন, ‘এমনকি সবথেকে মৌলিক সরবরাহগুলোতেও প্রায়শই ঘাটতি হয় বলে তারা ঘন ঘন সংবাদের শিরোনাম হয়।’

তিনি বেশ অশোভন বিবেচনাও করছেন এই যুক্তিতে যে এই অনুষ্ঠানটি মুক্তি উদ্যানের নিয়ম লঙ্ঘন করতে পেরেছে’, যেটি আমাদের শহরে আমাদের সকলের উপভোগের জন্য মাত্র অল্প কয়েকটি স্বযত্নে রক্ষণাবেক্ষণ করা উন্মুক্ত জায়গার মধ্যে একটি।

তিনি বিশ্বাস করেন যে জামাইকার মাধ্যমগুলোও এই দুষ্কর্মের সহযোগিতা করেছে তাই অধিকারের সংস্কৃতির দাবী জানিয়ে মানলী পুরো সঙ্কটটিকেই ছেঁটে কাজের চেয়ে আকার বড় জাতীয় একটি বিষয়ে পরিণত করেছে: 

We Jamaicans are spectacularly good at appearances. We are good at creating the appearance of success. We seem however to have confused looking the part with being the part. It is so ingrained in our culture that to many of us we genuinely think that if we show up, in the right attire, at the right address, it doesn’t matter if we actually produce nothing, do nothing […]

That you could turn up in your finery with your picnic baskets of (What was in those picnic baskets? Good cheese? Pate? Or tin mackerel?) of whatever, is evidence of nothing. Rome is a flame, despite your presence on the Boards of Associations, despite your Jimmy Choos. The desperate in ghettos ten deep to a room are plotting ever plotting to scale your wall, to pick your pocket, to carve themselves out a slice of your pie cooling just beyond their reach on your watchtower.

আমরা জামাইকাবাসীরা আত্মপ্রকাশ করাতে দর্শনীয়ভাবে ভাল। আমরা সাফল্যের ঠাট সৃষ্টি করায় খুবই ভাল। যাইহোক আমরা মনে হয় নিজেরা অংশিদার হিসেবে থাকার অংশটি দেখার ক্ষেত্রে গোলমাল করে ফেলেছি। এটি আমাদের কৃষ্টির মধ্যে এমনভাবে প্রোথিত হয়ে আছে যে আমাদের অনেকেই আছি যে আমরা বাস্তবিকভাবেই ভাবি যদি আমরা সঠিক বেশভূষায় সঠিক ঠিকানায় উপিস্থিত হই কিন্তু সত্যিকারে আমরা কিছু উৎপাদন নাও করি, কোন কাজ নাও করি তাতে কিছু আসে যায় না। […] 

যে আপনি যে কোন কিছু দিয়ে ভরা আপনার বনভোজনের ঝুড়িসহ জাঁকযমক নিয়ে উপস্থিত হতে পারেন তা কোন কিছুরই স্বাক্ষ্য বহন করে না। সমিতির পরিষদগুলোতে আপনার উপস্থিতি থাকা সত্ত্বেও, আপনার পায়ে জিম চু থাকা সত্ত্বেও রোম একটি শিখা। ঘেটোতে থাকা মরিয়া হওয়া ১০জন একটি কামরায় বসে সর্বদা আপনার দেয়াল টপকানোর, আপনার পকেট মারার, আর আপনার প্রহরীদূর্গের উপর ঠিক তাদের নাগালের বাইরে ঠাণ্ডা হতে দেয়া আপনার পাই (একধরনের পিঠা) থেকে এক টুকরো কেটে নেবার পায়তারা করছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .