বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পানামা: বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা লাভের মত এক ঐতিহাসিক অর্জনের আশা

শুক্রবার, ৮ জুন তারিখ থেকে পানামার বিশ্বকাপ ফুটবলের বাছাই পর্বের প্লে অফ-এর খেলা শুরু হল, আর এর মধ্যে দিয়ে পানামাকে এই প্রথম কোন গুরুত্বপূর্ণ ফুটবল প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে দেখা যেতে পারে; সেটি হচ্ছে ব্রাজিল ২০১৪ ফুটবল বিশ্বকাপ। এর আগে পানামা ফুটবল র‍্যাংকিং-এ কখনো এতটা উন্নতি লাভ করেনি, যে তারা কনকাকাফ (উত্তর , মধ্য এবং ক্যারিবীয় ফুটবল সংস্থা) নামক গ্রুপ থেকে বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম ।

এই গ্রুপের বৃহৎ এবং আরো বেশী শক্তিশালী জাতীয় দল, যেমন মেক্সিকো, যুক্তরাষ্ট্র, কোস্টারিকা, এবং হন্ডুরাস র‍্যাংকিং-এর উচ্চে অবস্থান উপভোগ করে। কনকাকাফ অঞ্চল থেকে তিনটি দল বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পাবে এবং গ্রুপের চতুর্থ স্থান অর্জনকারীকে কনমেবল (দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল সংস্থা) গ্রুপের পঞ্চম স্থান অধিকারীর সাথে প্লে-অফ ম্যাচে খেলতে হবে।

গ্রানাডা এবং নিকারাগুয়া, যে দুটি দলের বিরুদ্ধে পানামা জয় লাভ করে এসেছে, এই দুটি দল এর আগে অপরাজিত ছিল এবং তারা দুর্দান্ত ফর্মে আছে, এখন পানামাকে চূড়ান্ত ছয়ে জায়গা করে নেবার জন্য অবশ্যই কানাডা, হন্ডুরাস এবং কিউবার সাথে খেলতে হবে। যে ছয়টি দল এই গ্রুপের চূড়ান্ত পর্বে খেলবে, তাদের কনকাকাফ অঞ্চলের সেরা ছয়টি দল হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

মাত্র কয়েক বছর আগেও পানামা ছিল নিখাদ একটি বেসবল খেলা প্রিয় রাষ্ট্র, যার সাথে ছিল বক্সিং- প্রতিযোগিতার ইতিহাসে কিছু স্মরণীয় জয়, তবে ফুটবল এখন ক্রমে জনপ্রিয়তা লাভ করছে এবং ফুটবল বিশ্বকাপের চুড়ান্ত পর্বে উত্তীর্ণ হওয়া এখন জাতির এক আকাঙ্খায় পরিণত হয়েছে।

ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারী এমারমোনেডার (সিসি বাই এনসি-এসএ ২.০)

সামাজিক প্রচার মাধ্যম এখন কয়েক সপ্তাহ ধরে ফুটবলের কথা বলছে। হন্ডুরাসের সাথে প্রথম খেলা ( যা ৮ জুন তারিখে অনুষ্ঠিত হয়েছে) এগিয়ে আসার সাথে সাথে মন্তব্য এবং আশাবাদ ক্রমশ বাড়তে থাকে।

এমনকি রাষ্ট্রপতি রিকার্ডো মার্টিনেলি-এর মাঝেও ফুটবল উত্তেজনার ছোঁয়া লেগেছে। তিনি তার টুইটার একাউন্টে (@আরমার্টিনেলি) [স্প্যানিশ ভাষায়] পানামা ফুটবল দলের সৌভাগ্য কামনা করে একটি বার্তা লিখেছেন, তবে তিনি বিভ্রান্তিকর ভাবে হন্ডুরাসের বদলে কিউবাকে প্রতিপক্ষ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন:

Cuando juega la marea roja no hay opo ni gob todos somos Panameños y estamos con nuestra selección. Vamos a clasificar y ganarle a Cuba

যখন মারেও রোজা [পানামার ফুটবল দলের নাম] খেলে তখন কোন বিরোধী দল থাকে না, আমরা সকলে পানামার নাগরিক এবং আমরা সকলে আমাদের জাতীয় দলের পেছনে আছি। আমার চূড়ান্ত পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে যাচ্ছি এবং আমরা কিউবার বিপক্ষে জয়লাভ করব।

ব্যবহারকারীরা একটি আলোচিত হ্যাশট্যাগ তৈরী করেছে, যার নাম #সিপানামাক্লাসিফিকামুন্ডিয়াল (যদি পানামা বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে) [স্প্যানিশ ভাষায়], যেখানে পানামার ফুটবল সমর্থকদের বলা হচ্ছে, যদি পানামা ইতিহাস সৃষ্টি করে এবং ব্রাজিল বিশ্বকাপ ২০১৪-এ খেলার যোগ্যতা অর্জন করে তাহলে তার কি করবে সেই বিষয়টি তুলে ধরার জন্য।

পানামার ফুটবল দল হন্ডুরাসকে তাদের ঘরের মাটিতে ২-০ গোলে পরাজিত করে, বলাইবাহুল্য, যা ছিল এক ঐতিহাসিক জয়। এই জয় সামাজিক প্রচার মাধ্যমে উপেক্ষা করা হয়নি, এবং এই ঘটনায় টুইটারে বিশ্বজুড়ে দুটি আলোচিত বিষয়ের সৃষ্টি করা হয়ঃ হন্ডুরাস ০-পানামা২ [স্প্যানিশ ভাষায়], যেখানে পানামার সমর্থকরা এই জয় উদযাপন করেছে আর হন্ডুরাসের সমর্থকরা তাদের বেদনা প্রকাশ করেছে। একই সাথে পানামার স্ট্রাইকার ব্লাস পেরেজ [স্প্যানিশ ভাষায়], যিনি পানামার হয়ে গোল দুটি করেছেন, তিনি টুইটারে বিশ্বজুড়ে এক আলোচিত বিষয়ে পরিণত হয়েছেন।

বিশ্বকাপের বাছাইপর্বে পানামার এই দীর্ঘযাত্রার কেবল শুরু হল। ১২ জুন তারিখে পানামা নিজের মাটিতে কিউবার বিপক্ষে খেলবে, যে খেলা নিয়ে এক তীব্র আশাবাদ তৈরী হয়েছে, আলেকজান্ডার ডা সিলভা যেমনটা বলেন (@ আডাসিলভা৫০৭) [ স্প্যানিশ ভাষায়]::

Ya anunciaron que se agotaron todas las entradas en el sector sur para el ‪#Panamá vs Cuba, sitio donde usualmente esta la Extrema Roja.

কর্তৃপক্ষ #পানামা বনাম কিউবার খেলায় স্টেডিয়ামের দক্ষিণ গ্যালারির সকল টিকিট বিক্রি হয়ে যাবার কথা ঘোষণা করেছে, যেখানে পানামার একনিষ্ঠ সমর্থকরা সাধারণত আসন গ্রহণ করে থাকে।

নিঃসন্দেহে পানামার নাগরিকদের মাঝে এক প্রবল আশাবাদ রয়েছে যে তাদের দল এই প্রথমবারের মত ফুটবলের কোন বড় আসরে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে এবং পানামার ফুটবল দলের এই যাত্রায় সামাজিক নেটওয়ার্ক এক সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .