বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গ্রীস: নব্য নাৎসি দল “গোল্ডেন ডন”-এর সমর্থকদের অভিবাসীদের বিরুদ্ধে আরো হামলা

গ্রীসের নব্য নাৎসি যে দলটি সফল ভাবে তাদের যাত্রা শুরু করেছে, সেই গোল্ডেন ডন (সোনালি সুর্যোদয়)-এর ১৫-২০ জন যুবা সমর্থকের একটি দল, ২৯ মে ২০১২ তারিখে গ্রীসের রাজধানী এথেন্সের আগিওস নিকলাওয়াস নামক মেট্রো স্টেশনে প্রায় ৩০ বছর বয়স্ক এক পাকিস্তানী নাগরিকের উপর হামলা চালায়। আগিওস নিকলাওয়াস নামক এলাকা বিশাল এক অভিবাসী জনগোষ্ঠীর জন্য বিখ্যাত।

(৬ মে) নির্বাচনের দিন গ্রীসের থেসেলোনিকায় গোল্ডেন ডন এর সমর্থকরা দলের ৭ শতাংশ ভোট লাভের সংবাদে ফ্লায়ার (প্রজ্বলিত মশাল) ধরে আছে। ছবি আলেকজান্দ্রো মিকালিডিস-এর © কপিরাইট ডেমোটিক্সের।

এই গুণ্ডার দলটি ফ্যাসিবাদি স্লোগান যেমন, “তোমরা কখনো গ্রীসের নাগরিকে পরিণত হবে না!” দিতে দিতে স্টেশনে প্রবেশ করে, তার তাদের ওই মানুষটিকে তাদের লক্ষ্যবস্তু নির্ধারণ করে, তাকে মাটিতে ফেলে দেয় এবং তাকে মারতে থাকে, বিস্মিত যাত্রীরা বিষয়টি দেখতে থাকে।

টিভিএক্সএস-এর এক সংবাদে একজন প্রত্যক্ষদর্শী ঘটনার বর্ণনা প্রদান করেছে [গ্রীক ভাষায়] এবং ব্যাখ্যা করেছে যখন সে এই দলের নির্মমতার বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করে তখন আসলে কি ঘটেছিল:

Την ώρα της επίθεσης, βγήκα στην πόρτα του συρμού και άρχισα να φωνάζω εναντίον τους και να τους βρίζω, απειλώντας ότι θα τηλεφωνήσω στην Αστυνομία. (…) «Προδότη φύγε από τη χώρα», «κομμούνι θα σε μαχαιρώσουμε»

যখন প্রহারের ঘটনা চলতেই থাকে, আমি তাদের দিকে তাকিয়ে চিৎকার করতে শুরু করি এবং হুমকি দিতে শুরু করি যে আমি পুলিশ ডাকব […]। তখন গুণ্ডাদের ওই দল আমার দিকে এগিয়ে আসতে থাকে এবং চিৎকার করে বলতে থাকে, ‘তুই বিশ্বাসঘাতক, এই দেশ ছেড়ে চলে যা’, এবং বলে “কমিউনিস্ট, আমরা তোকেও ছুরি মারব”।

তিনি এই বলে উপসংহার টেনেছেন:

Μικρός μέσος όρος ηλικίας για τη φασιστική αυτή ομάδα, μεγάλος δυστυχώς ο φόβος των επιβατών. Αν είχαμε μιλήσει όλοι μαζί θα τα είχαν μαζέψει και θα είχαν φύγει σίγουρα…».

ফ্যাসিস্ট দলের যে সব সদস্য, তাদের গড় বয়স অনেক কম, দুর্ভাগ্যজনকভাবে যাত্রীদের আতঙ্কের মাত্রা ছিল তীব্র। যদি আমরা সকলে একসাথে প্রতিক্রিয়া প্রদর্শন করতাম, তাহলে তারা নিশ্চিত পালিয়ে যেত।

ব্লগার ফারগকিস্ককা মেগালোদি ঘটনার সময় পুলিশের অনুপস্থিতি নিয়ে তৈরী করা এক সংবাদ প্রবন্ধের নীচে মন্তব্য করেছেঃ

Δεν μου κανει εντύπωση πως οι ψυχοπαθεις φασιστες της Χρυσής Αυγής κανουν αυτα που κανουν με ατιμωρησία διοτι δεν περιμενω και προστασια απο την ελληνική αστυνομία που κατα το ήμισυ τους εχει ψηφίσει…

আমি এতে সন্তুষ্ট নই, এই সমস্ত বিকৃত মানসিকতার ফ্যাসিস্টরা কোন ধরনের কোন শাস্তি ছাড়াই, নির্বিঘ্নে তাদের কর্ম সমাপ্ত করছে। গ্রীসের পুলিশের কাছ থেকে আমি কোন নিরাপত্তা আশা করি না, যেহেতু [সম্ভবত] তাদের অর্ধেকই গোল্ডেন ডনকে ভোট দিয়েছে।

২৯ মে তারিখে এথেন্সে অন্য আরেকটি হামলার সংবাদ পাওয়া যায়। একই দিনে বিকেলে গোল্ডেন ডন, ১৪৫৩ সালে অটোমান সাম্রাজ্যের হাতে কনস্টান্টিনোপল-এর পতন স্মরণে সেয়ানটাগমা স্কোয়ারে এক শোভাযাত্রার আয়োজন করে। এর চারদিন আগে গোল্ডেন ডনের নেতা নিকোলাস মিহালোলিকাস, লিখিত ঘোষণা প্রদান করে:

Συναγωνιστές και Συναγωνίστριες, ψηλά τις Σημαίες. Έρχονται ημέρες δύσκολες, στις οποίους και θα κριθεί ποιοι είναι οι αληθινοί Έλληνες, ποιοι είναι οι Εθνικιστές και ποιοι οι προδότες.

আমার সঙ্গী কমরেডরা, আপনারা আপনাদের পতাকা উত্তোলন করুন (…) । সামনে এক কঠিন সময় আসছে, এবং এই সময়ে প্রমাণিত হবে কে প্রকৃত গ্রীক এবং কারা বিশ্বাসঘাতক।

৬ মে তারিখে গ্রীসের সংসদ নির্বাচনে গোল্ডেন ডন-এর ৭ শতাংশ ভোট লাভের পর থেকে অভিবাসীদের উপর নির্বিচারে হামলা শুরু হয়েছে, বিশেষ করে এথেন্সের কেন্দ্রীয় এলাকায় এই ধরনের ঘটনার পরিমাণ উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় বেড়ে গেছে। তবে দলটি নিজে কখনো এ ধরনের হামলার দায়দায়িত্ব স্বীকার করেনি।

বর্ণবাদী মনোভাবাপন্ন হামলা এবং উগ্র ডানপন্থীদের বিরুদ্ধে জুনে এথেন্স এবং থেসালোনিকায় শোভাযাত্রা এবং বিক্ষোভের আয়োজন করা হয়েছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .