বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গ্রীস: অভিবাসীদের প্রতি পুলিশী সহিংসতা বাড়ছে

গ্রিক সামাজিক মিডিয়াতে এথেন্সের শহরতলীতে আটক একজন অভিবাসীকে পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রকাশ্যে নির্যাতন করতে দেখানো ফেসবুক এবং টুইটারে পোস্ট করা একটি ভিডিও নিয়ে শোরগোল শুরু হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ২০১২ সালের জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে, যদিও এর সঠিক অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত করা যায়নি।

ভিডিওটিতে পরিষ্কার দেখা গিয়েছে যে আটক ব্যক্তি গ্রেপ্তারে বাঁধা না দেয়া সত্ত্বেও মোটরযানের পুলিশের (গ্রিক ভাষায় ডেল্টাআইওআলফাসিগমা -দিয়াস) পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশের নির্মমতার শিকার হয়েছেন:

ঘটনাটি রেকর্ড করা চলচ্চিত্র পরিচালক নিকোস সুলিসের মতে লোকটি পাশে রাখা গাড়িগুলোকে বিপন্ন করে আবর্জনা পোড়াচ্ছিলেন:

@নিকোসুলিস: @লুকি_পি তিনি আবর্জনার ব্যাগ পোড়াচ্ছিলেন.. পার্ক করা গাড়িগুলো বিপন্ন হয়েছিল। তারা তাকে গ্রেপ্তার করে ভাল করেছে, কিন্তু তারপর কী? কেন?

পুলিশ ঘটনাটির একটি প্রশাসনিক পর্যালোচনা শুরু করে, তবে সাক্ষী ফেসবুকে বলেছেন যে তিনি গ্রীসের শরণার্থী সংক্রান্ত জাতিসংঘের হাইকমিশনারের কাছে ভিডিওটি জমা দেয়া সত্ত্বেও  তাকে প্রমাণ দেয়ার জন্যে ডাকা হয়নি। অতীতেও একইরকম ঘটনার জন্যে বেশিরভাগ অকার্যকর এসব প্রশাসনিক পর্যালোচনার আদেশ দেয়া হয়েছে।

২১শে এপ্রিল, ১৯৬৭ তারিখের একটি সামরিক অভ্যুত্থানের বার্ষিকী উপলক্ষ্যে নাগরিক সুরক্ষা মন্ত্রী মিকালিস ক্রিসোকোইদিসের (@ক্রিসোকোইদিস) একটি মন্তব্যের জবাবে সাংবাদিক ড্যামিয়েন ম্যাক কন আল্ডাহ (@দামোম্যাক)তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্যে মন্ত্রীর প্রতি আহবান জানান:

@chrisochoidis: Ακόμη και μια τραυματισμένη δημοκρατία είναι καλύτερη από καθόλου δημοκρατία.

@ক্রিসোকোইদিস: এমনকি আহত গণতন্ত্রও কোন গণতন্ত্র না থাকার চেয়ে ভাল।

@দামোম্যাক: মন্ত্রী @ক্রিসোকোইদিস, দয়া করে এই ব্যক্তিকে পেটানো পুলিশদের বরখাস্ত করে এই “আহত গণতন্ত্র”কে সাহায্য করতে সহযোগিতা করুন!

বেশিরভাগ মূলধারার মিডিয়া ঘটনাটিকে উপেক্ষা করলেও সামাজিক মিডিয়ার প্রতিক্রিয়া ছিল তাৎক্ষণিক এবং তীব্র এবং এটা এক্টিভিস্টরা বহির্বিশ্বে প্রচার করেছে:

@টিচারডিউড: এথেন্সের টিভি সংবাদে http://www.youtube.com/watch?v=RG4Cf1T8bR4 ভিডিওতে ধরা পড়া অভিবাসীকে বর্বর পুলিশী প্রহারের ঘটনার কোন উল্লেখ নেই। অবাক হওয়ার কিছু নেই।

@SykoFantiS: Υπάρχει κάποιος που πιστεύει ότι η ομάδες ΔΙΑΣ προσφέρουν έργο;

@সাইকোফ্যান্টিস: এমন কেউ আছেন কী যারা মনে করেন যে দিয়াস টিমগুলো [সেবা এবং সুরক্ষা] দেয়?

@v_emman: Αυτή δεν είναι αστυνομία, είναι συμμορία τραμπούκων. Ντρέπομαι για λογαριασμό σας. http://j.mp/Id5a2W @hellenicpolice

@ভি_এমান: এরা পুলিশ নয়, এরা একদল তস্কর। আমি আপনার পক্ষ থেকে লজ্জিত। http://j.mp/Id5a2W @হেলেনিকপুলিশ

@libertarian: @hellenicpolice στο 4ο είχα δει να βάζουν κράνος σε κρατούμενο και να τον κλωτσάν στο κεφάλι.

@লিবার্টারিয়ান: @হেলেনিকপুলিশ একবার আমি ৪র্থ পুলিশী এলাকায় আটক এক ব্যক্তিকে হেলমেট পরিয়ে মাথায় লাথি দিতে দেখেছি।

অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অতীতে নথিবদ্ধ পুলিশী সহিংসতার অসংখ্য ঘটনা রয়েছে। ২০০৭ সালে একজন অভিবাসীকে পুলিশী এলাকায় নির্যাতিত হতে দেখানো একটি ভিডিও প্রকাশিত হলে তা আন্তর্জাতিক উন্মাদনা সৃষ্টি করে। ২০০৮ সালের আগস্ট মাসের মধ্যে ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালত গ্রিক পুলিশকে নির্যাতনের ঘটনার জন্যে অন্ততঃ নয়বার দোষী সাব্যস্ত করে

পরীক্ষামূলকভাবে চালনা করার সময় জাতিগত সহিংসতার ঘটনা রেকর্ড করার নেটওয়ার্ক ২০১১ সালের শেষ দুই মাসে ৬৩টি ঘটনা নথিবদ্ধ করেছিল যার মধ্যে ১৮টি পুলিশী সহিংসতার সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং উল্লেখ করেছিল যে “জাতিগত সহিংসতা ভয়ংকরভাবে ছড়িয়ে পড়ছে।” একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে নির্যাতনের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের কমিটি্র আসন্ন গ্রীস পর্যালোচনাতে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার এনজিও হিউম্যান রাইটস ওয়াচ দেশটির অভিবাসী এবং ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠীগুলোকে রক্ষার প্রচেষ্টাকে “সম্পূর্ণভাবে অপর্যাপ্ত” অভিহিত করেছে, অন্যদিকে এর ২০১১ সালের বার্ষিক পর্যালোচনায় পর্যালোচনা স্বাধীন গবেষণা নেটওয়ার্ক রেড গ্রীসকে ইউরোপে সহিংসতা ও দায়মুক্তির সবচেয়ে প্রতিনিধিত্বশীল উদাহরণ হিসেবে অভিযুক্ত করেছে।

নাগরিক সুরক্ষা মন্ত্রী জনাব ক্রিসোকোইদিস এর আগে ক্ষমতায় থাকার সময় পুলিশী নির্যাতনের ঘটনা মোকাবেলা করার জন্যে একটি ব্যুরো থেকে প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন:

@chrisochoidis: .@asteris Περί ΓΑΠΑ: αναβαθμίστηκε η διερευνητική του δυνατότητα και αποκτά αυξημένη τυπική ισχύ καθώς θα κυρωθεί με νόμο και όχι με Π.Δ.

@ক্রিসোকোইদিস: গামাআলফাপিআলফা [ব্যুরো]-তে @এস্তারিস: এর তদন্তমূলক ক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে এবং এটি বর্ধিত আনুষ্ঠানিক ক্ষমতা অর্জন করেছে, কারণ এটি রাষ্ট্রপতির ডিক্রির পরিবর্তে আইন দিয়ে অনুমোদিত হবে

‘নির্যাতনের ঘটনা মোকাবেলা করার ব্যুরো'টি ২০১১সালের মার্চে  আইনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত [এল] হয়েছিল, কিন্তু এখনো সক্রিয় হয়নি। গ্রিক এনজিও (বেসরকারী সংস্থা) হেলেনিক মানবাধিকার লীগ আইনী বিধানটিকে “একটি স্পষ্ট বাধা” এবং প্রথমে যা ঘোষণা করা হয়েছিল তার চেয়ে “অনেক খারাপ পরিস্থিতি” হিসেবে আখ্যায়িত করেছে [এল]।

το Γραφείο δεν θα είναι ανεξάρτητος φορέας όπως αρχικά είχε δηλώσει ο Μιχ. Χρυσοχοϊδης και είχε ακολουθήσει μάλιστα και η ανάλογη ηλεκτρονική διαβούλευση, αλλά αυτό που το νέο σχέδιο νόμου προβλέπει είναι μια τριμελής επιτροπή [δικαστικών]. Η επιτροπή αυτή, όπως διευκρινίστηκε δεν θα έχει καμία δυνατότητα διερεύνησης της καταγγελίας αλλά θα κρίνει μόνο αν η καταγγελία θα είναι παραδεκτή, παρεμποδίζοντας ουσιαστικά την ποινική διερεύνηση.

প্রথমে যেমন মিকালিস ক্রিসোকোইদিস বলেছিলেন এবং অনলাইনে জনসাধারণের পরামর্শে যেমন বলা হয়েছে যে এই ব্যুরোটি কোন স্বাধীন সংস্থা হবে না। তবে নতুন বিল অনুসারে একটি ত্রিপক্ষীয় [বিচারক] কমিটির সুযোগ রয়েছে। এই কমিটির, যেমন ব্যাখ্যা করা হয়েছে, মূলতঃ অপরাধমূলক তদন্ত স্থগিত করে সেটা গ্রহণযোগ্য কিনা সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়া ছাড়া অভিযোগ তদন্তের কোন ক্ষমতা নেই।

২৮-২৯শে জুন, ২০১১ এথেন্সের সিন্ট্যাগমা স্কোয়ারে বিক্ষোভে নির্মম অভিযান চালানোর পর পুলিশী সহিংসতার দলিলপত্র সংগ্রহের উদ্দেশ্যে তৈরী একটি ফেসবুক গ্রুপে [এল] ২,৪০০-এরও বেশি সদস্য যোগদান করেছে। অন্যদিকে পুলিশের ১৫-বছর বয়েসী আলেকজান্দারোস গ্রিগোরোপুলোসকে হত্যা করার পরের দিন তৈরী করা ‘গ্রিক পুলিশের নৃশংসতা থা্মান’ শিরোনামের একটি পুরোনো ফেসবুক পাতায় প্রায় ১৫ হাজার সদস্য যোগদান করেছে।

গ্লোবাল ভয়েসেসের লেখক অ্যাস্টরিস মাসুরাস এই নিবন্ধটি গবেষণা এবং লেখায় সহযোগিতা করেছেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .