বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধিতে ইন্দোনেশিয়ার বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ইন্দোনেশিয়ার কয়েকটি শহর বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। স্থানীয় সংবাদপত্রের খবরের [ইন্দোনেশীয় ভাষায়] ভিত্তিতে জানা গেছে যে বিক্ষোভে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়লে নাগরিকদের আহত হবার ঘটনা ঘটে।

প্রাথমিক ভাবে, ১ এপ্রিল থেকে ইন্দোনেশীয় সরকার জ্বালানী তেলের দাম বাড়ানোর পরিকল্পনা করছিলেন। সরকারি কোন আদেশ ছাড়াই জ্বালানী তেলের দাম বাড়ানো হয়। বর্তমানে স্থানীয় পর্যায়ে যা প্রিমিয়াম হিসেবে পরিচিত জ্বালানি তেল বিক্রি হয় ৪,৪০০ ( ০.৫০ মার্কিন ডলার) ইন্দোনেশীয় রুপিতে। সরকারি ভর্তুকি ছাড়া, প্রতি লিটার প্রিমিয়ার জ্বালানী তেলের দাম পড়ে ৮,৪০০ (০.৯২ মার্কিন ডলার) ইন্দোনেশীয় রুপি।

Protesters near Parliament Building. Photo from Flickr page of Djembar Lembasono used under CC License

সংসদ ভবনের কাছে অবস্থানরত বিক্ষোভকারীরা। ছবি জেম্বার লেম্বাসন এর ফ্লিকার পাতা থেকে সংগৃহীত,সিসি লাইসেন্স অনুসারে ব্যবহার করা হয়েছে।

জাকার্তা ভিত্তিক ভিডিও সাংবাদিক জিয়ানরিগো মারলেত্তা নিচের ভিডিওটি ইউটিউবে পোস্ট করেছেন ।

গত মাসে বিভিন্ন বিক্ষোভ এবং এই সমস্ত বিক্ষোভে সুরক্ষার জন্য বিভিন্ন শহরে সামরিক বাহিনীর উপস্থিতি [ইন্দোনেশীয় ভাষায়] জ্বালানি তেল নিয়ে পূর্বের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা জাতিকে পুনরায় স্মরণ করিয়ে দিয়েছে। ১৯৯৮ সালে সরকারের তেলের দাম বাড়ানোর পরিকল্পনায় দেশটির মধ্যে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। উন্মত্ত জনতা চীনা-ইন্দোনেশীয় নাগরিকদের দোকান গৃহে আগুন লাগিয়ে দেয়,কিছু মহিলা ধর্ষিত হয়, ছাত্র বিক্ষোভকারীদের অপহরণ ও গুলি করে মারা হয়, যা অবশেষে, ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘসময় শাসন করা সুহার্তো সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করে।

@কুয়াপলিটিক নামক টুইটার ব্যবহারকারী তার টাইমলাইনে বলছেন যে এখনই জ্বালানী তেলের দাম বাড়ানোর সময়। আর এর কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করছেন:

3. Jk BBM tak naik, subsidi untuk solar premium th 2012 ini bs melonjak dari Rp123,6 T menjadi Rp191,1 T. #BBM
4. Pdhl, subsidi itu akan lbh brmanfaat kl dipake utk infrastruktur atau tuk peningkatan pendidikan n ksehatan. Lbh terasa utk rakyat. #BBM
5. Msyrakat yg krang mampu akan menikmati manfaat jk BBM subsidi naik. Sebab, msyrkat kurang mampu bukan konsumen BBM yang terbesar. #BBM
6. Harga jual bbm subsidi yg terlalu rendah dibanding di LN mendorong penyelundupan penyelewengan. Yg untung ya para penyelundup. #BBM
7. Krn subsidi, harga jual bbm subsidi di dlm negeri jauh lebih murah daripada harga barang yang serupa di negara2 tetangga. #BBM
8. Itu sebabnya, para penyelundup justru menikmati perbedaan harga ini, hingga merugikan keuangan negara dan kita semua #BBM
11. Slama ini org2 bilang pmrntah hanya ambil kbjakan menaikkan #BBM subsidi. Salah. Ada kbjakan lain utk atasi defisit. #BBM
17. Kbjakan subsidi ini adlh kbjakan dr masa lampau. Dl bs subsidi, krn kt eksportir. Tp skrg kt importir, n sdh keluar dr OPEC #BBM
18. Slain itu, dl knsumsi BBM kt rendah, jauh brbeda dgn skrg. Karenanya kbjakan subsidi hrs diubah perlahan. #BBM

বিষয়টি খুব ভালো হবে, যদি ভর্তুকির টাকা (বাজেটে) অবকাঠামো ,শিক্ষা,এবং স্বাস্থ্য (উন্নয়ন) খাতে ভাগ করে দেওয়া হয়। জনগন এতে আরো বেশী উপকৃত হবে।
জ্বালানি তেলের দাম বাড়লে গরীবের তাতে বেশী লাভবান হবে, কারণ তারা জ্বালানি তেলের ব্যবহার কম করে।
ভর্তুকি প্রদান করা ফলে জ্বালানী তেলের দাম তুলনামূলক ভাবে বর্হিবিশ্বের চেয়ে কম, যার ফলে তা চোরাচালান এবং অপব্যবহার-এর মত ঘটনার জন্ম দেয়। এই ধরণের ঘটনা থেকে চোরাচালানিরাই বেশি লাভবান হয় থাকে।
যেহেতু জ্বালানী তলে ভর্তুকি প্রদান করা হয়, যার ফলে প্রতিবেশী দেশসমূহের তুলনায় আমাদের দেশে জ্বালানি তেলের মূল্য অনেক কম।
যার ফলে, চোরাকারবারীরা দামের এই পার্থক্য উপভোগ করে।
তারা আমাদের অর্থনীতি এবং সকলকে ধ্বংস করে।
সবসময় জনগণ বলে থাকে যে, তেলের দাম বাড়ানোর জন্য সরকার এই ধরণের নীতি তৈরী করে থাকে। কিন্তু এটা একটি ভুল ধারণা, দেশের ঘাটতি বাজেট আয়ত্তে রাখার জন্য এই নীতি।
জ্বালানী তেলে ভর্তুকি নীতি, এখন অতীতের বিষয়। একটা সময় ছিল, যখন আমরা তেল রপ্তানী করতাম। কিন্তু এখন আমরা তেল আমদানী করি, আর ওপেক-এর সদস্য নই।
এছাড়া, অতীতে আমাদের তেলের ব্যবহার ছিল কম। তখন আর এখনকার পরিস্থিতির মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে, যা আমরা আজ মোকাবেলা করছি। ক্রমান্বয় ভর্তুকি ব্যবস্থার পরিবর্তন হওয়া উচিৎ।

ব্লগার সনি হারয়ও প্রাবোও তার ব্লগের একটি পোস্ট-এ লিখেছেন, সুলাওয়াসির, মাকাসার এলাকার বিক্ষোভকারীরা ভুল করে তেলের খুচরা বিক্রেতাদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করে:

sekian banyak SPBU di Indonesia, Pertamina hanya memiliki 74 di antaranya (sumber: Pertamina Retail). Ribuan lainnya dimiliki oleh dealer (swasta).  Dengan demikian, perbuatan para pendemo yang merusak SPBU telah membuat hilangnya lahan mencari nafkah bagi seorang wiraswasta, bahkan mereka juga menghilangkan lapangan kerja andai SPBU tersebut benar-benar berhenti beroperasi.

ইন্দোনেশিয়ার অজস্র পেট্রল স্টেশনের মাঝে (যেগুলো তার নাম বহন করে), তার মাঝে পেরটামিনার রয়েছে মাত্র ৭৪টি (সূত্র:পেরটামিনা রিটেইল)। বাকি হাজার হাজার পেট্রোল স্টেশনের মালিক এবং সেগুলো পরিচালনা করে বেসরকারী মালিকেরা। যার ফলে বিক্ষোভকারীদের পেট্রল স্টেশন ধ্বংস করে দেওয়া মানে ব্যবসায়ীদের প্রতিদিনের রোজগার বন্ধ করে দেওয়া এবং এতে পেট্রোল স্টেশন বন্ধ হয়ে যাওয়া মানে চাকুরী থেকে ছাঁটাই হয়ে যাওয়া।

সনি এর সাথে যুক্ত করেছেন:

Demo yang mereka lakukan juga menutup jalan, merusak kendaraan pribadi, bahkan kendaraan pengangkut minuman ringan ternama yang mungkin seringkali mereka minum. Saya ingin mengajak para pembaca berdiskusi dan merenung. Dalam demokrasi, demonstrasi memang boleh dilakukan, bahkan harus. Namun, harus selalu diingat bahwa demonstrasi harus dilakukan dengan dasar yang benar dan dengan akal sehat. Demonstrasi yang terjadi di Makasar ini membuktikan ada sebagian mahasiswa di Indonesia ini tidak menggunakan akal sehat dalam berpikir. Mereka hanya ingin melampiaskan apa yang mereka inginkantanpa berpikir apa kerugian yang mereka sebabkan. Bahkan lucunya lagi mereka melakukan demo seakan-akan tahu masalah yang mereka hadapi.

এই ঘটনায় বিক্ষোভকারীরা রাস্তাও বন্ধ করে দেয়, বেসরকারি গাড়ি ভাংচুর করে, একটি অতি পরিচিত কোমল পানীয়ের গাড়ি ছিনতাই করে। আমি আমার পাঠকদের এই ঘটনার বিষয়ে আলোচনা এবং তাদের চিন্তা প্রতিফলিত করার আহ্বান জানাই। গনতন্ত্রে, হয়ত বিক্ষোভ প্রদর্শনের স্থান রয়েছে। তবে, সঠিক ভিত্তি এবং কারণে বিক্ষোভ প্রদর্শন করা উচিত। মাকাসার-এর বিক্ষোভ প্রমাণ করে যে ইন্দোনেশিয়ার কিছু ছাত্র তাদের চেতনাকে ব্যবহার করে না । তারা তাদের ইচ্ছা মতো কাজ করে এবং তারা যে ক্ষতির কারণ হচ্ছে সে বিষয়ে কখনও চিন্তা করে। মনে হচ্ছে তারা মূল বিষয়টিকে উপলব্ধি না করেই প্রতিবাদ করেছিল।

জাকার্তায় পুলিশ এবং ছাত্র সংঘর্ষের ঘটনার সংবাদ প্রদানে টুইটার ব্যবহারকারীরা মাইক্রোব্লগিং সাইটের সর্বোচ্চ ব্যবহার করেছে। জ্বালানী তেলের মূল্য বৃদ্ধি সঠিক হয়েছে কিনা, এই নিয়েও তারা বিতর্ক লিপ্ত হয়।

@ikovoz: Issue korban meninggal di bentrok salemba itu hoax. skg di RSCM 3 org mahasiswa dan 1 satpam yg msh dirawat

@আইকোভোজ: সালেম্বায় সংঘঠিত সংঘর্ষে একজন ছাত্রের নিহত হবার ঘটনাটি পরে ভূয়া প্রমাণিত হয়। বর্তমানে ৩ জন ছাত্র এবং ১ জন নিরাপত্তা রক্ষী আর.এস.সি.এম-এ (সিপটো মাঙ্গুনকুসমো হাসপাতাল) চিকিৎসা গ্রহণ করছে।

@LBH_Jakarta: Polisi melakukan sweaping ke LBH,47 ditangkap paksa.6 ditangkap di samping LBH.Total 52 org dibawa paksa ke Polda.

@এলএইচবি_ জাকার্তা: লিগাল এইড ফাউন্ডেশন (এলএইচবি)-এ পুলিশ চিরুনী অভিযান চালায়, ৪৭ জন ছাত্রকে জোর করে আটক করে, এলএইচবি-এর কাছাকাছি এলাকা থেকে থেকে আরো ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। সবমিলিয়ে মোট ৫২ জন ছাত্রকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

@komar_hidayat: Terlepas harga BBM naik atau tdk, apakah ada tanda2 nasib rakyat akan membaik?Terbuka lapangan kerja baru?

@কমর_হিদায়াত: পেট্রল এর দাম বৃদ্ধি ছাড়াও, এমন কি কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে, যার মধ্যে দিয়ে জনগণের জীবনযাত্রার মানের উন্নয়নের বিষয়টি পরিলক্ষিত হচ্ছে? নতুন চাকুরী কি এখন সহজলভ্য?

@BankDunia: 40% penerima manfaat langsung subsidi #BBM bagi rumahtangga adalah 10% rumahtangga terkaya

@ব্যাংকদুনিয়া: এই ভর্তুকি প্রকল্প থেকে ৪০ শতাংশ সুবিধা পরিবারসমূহ পাচ্ছে, তাদের মধ্যে ১০ শতাংশ হল স্বচ্ছল পরিবার।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .