বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

বাহরাইনঃ নির্বাচনের প্রাক্কালে বিক্ষোভ

এই প্রবন্ধটি বাহরাইন বিক্ষোভ ২০১১-এর উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ।.

সপ্তাহব্যাপী, বাহরাইনের অনেক টুইটার ব্যবহারকারীরা #লুলুরিটার্ন নামক হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করেছে পার্ল স্কোয়ারে ফিরে যাবার জন্য, যেখান ফ্রেব্রুয়ারি বিক্ষোভ নামে এক ব্যাপক বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত স্কোয়ার থেকে মার্চে পার্ল নামক স্থাপনাটি সরিয়ে দিয়ে বাহরাইনের শাসকরা সারা বিশ্বকে স্তম্ভিত করে দেয়, যা ছিল গোলাকার এক কেন্দ্রস্থল। এটাকে সরিয়ে দেবার মানে, এখানকার সাথে বিদ্রোহের সে স্মৃতি তা যেন মুছে গেল। এই ঘটনা পাল্টা এক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে, যার ফলে অনেকে বাহরাইনই এই স্থাপনাকে, শাসকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের এক প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করছে, যে শাসক সংখ্যাগরিষ্ঠ শিয়া জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে।

শুন্য হয়ে যাওয়া ১৮ টি আসনের জন্য বাহরাইনে এক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে, যে আসনগুলো বিরোধী ওয়েফাক সোসাইটির সদস্যদের পদত্যাগের কারণে সৃষ্টি হয়েছে। বিক্ষোভের সময় শাসকদের হাতে বিক্ষোভকারীদের নিহত হবার ঘটনায় এই সব সদস্যরা পদত্যাগ করে। নির্বাচনের প্রাক্কালে, শনিবারে বিভিন্ন এলাকার বাহরাইনি নাগরিকরা হেঁটে এই স্কোয়ারে আসার সিদ্ধান্ত নেয় কেবলমাত্র দাঙ্গা পুলিশের সম্মুখীন হবার জন্য, যারা তাদের বিরুদ্ধে রাবার বুলেট এবং টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করে থাকে।

নেট নাগরিকরা সংবাদ প্রদান করেছে যে বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার এবং মহিলা সহ বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে পেটানো হয়। সানাবিস নামক গ্রাম, যা কিনা এই স্কোয়ারের কাছে, সেটি ছিল প্রতিবাদকারী ও দাঙ্গা পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের এক কেন্দ্রস্থল।

#লুলুরিটার্ন এর চার দিনে আগে আগে, একটি সামাজিক নেটওয়ার্কিং গ্রুপ যাদের বাহরাইন অনলাইন(@অনলাইনবাহরাইন) নামে অভিহিত করা হয়, তারা এই ছবি সহ, বেশ কিছু ছবি এবং রাস্তার প্রতীক টুইট করে, যে সবে আবার বিক্ষোভে অংশ নেবার আহ্বান জানানো হয়েছে:

@অনলাইনবাহরাইন: ‘আমরা ফিরে আসব’ দাইয়া রে নামক এলাকার রাস্তার বাতির সাথে বেলুন বাঁধা রয়েছে ২৩/২৪ #লুলুরিটার্ন ,http://yfrog.com/hwgi2qj

এ বাহরাইনি গার্ল (@আলজাজিতা) ভিন্ন কিছু কর্মকাণ্ডের কথা লিখেছে যা সে বিক্ষোভের সময় প্রত্যক্ষ করেছে:

@আলজাজিতা : : বাহরাইনের সকল গ্রামে দাঙ্গা পুলিশ সশস্ত্র অবস্থায় রয়েছে এবং তারা জনতাকে সতর্ক করে রাখার জন্য তাদের অস্ত্র জনতার দিকে তাক করে রেখেছে।

তিনি তার আরেকটি টুইটে একটি লেখা যুক্ত করেন, সেখানে তিনি উল্লেখ করেছন:

@আলজাজিতা: দুধ, পেপসি, পেয়াজ, অক্সিজেন এবং টিয়ার গ্যাসের জন্য মুখোশ/ বিষাক্ত গ্যাসের প্রতিক্রিয়ায়, ডাক্তার, নার্স, সকল চিকিৎসা কর্মী প্রস্তুত।

এদিকে সালমানিয়া হাসপাতাল নামক বন্ধ করে রাখার বিষয়ে সে আরেকটি টুইট করেছে। ফেব্রুয়ারি মাসে সামরিক বাহিনী এই হাসপাতাল দখল করে নেয়, কারণ এই হাসপাতালে আহত বিক্ষোভকারীদের চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছিল:

@আলজাজিতা: দাঙ্গা পুলিশ সালমানিয়া হাসপাতলের সকল রাস্তা বন্ধ করে রেখেছে যাতে আহত বিক্ষোভকারীরা সেখানে গিয়ে চিকিৎসা করতে না পারে, এটা কি ধরনের সরকার?

আরেকজন বালিকা (@বেন্ট_৬রিফ) #লুলুরিটার্ন-এর জন্য উল্লসিত, সে বলছে:

@বেন্ট_৬রিফ: আগামীকাল বিশ্ব জানবে যে #বাহরাইনের জনতা কতটা সাহসী, আগামীকাল বিশ্ব দেখবে আমাদের বিপ্লব কতটা শান্তিপূর্ণ#লুলুরিটার্ন

জেলে থাকা বিখ্যাত বিরোধী ব্যক্তিত্ব আবদুলহাদি আল-খাওয়াজার জন্য উৎসর্গকৃত একটি টুইটার একাউন্ট (@ফ্রিআলখাওয়াজা)একটি ছবি টুইট করেছে, যেখানে দেখা যাচ্ছে দাঙ্গা পুলিশ এক বিক্ষোভকারীকে প্রহার করছে:

@ফ্রিআলখাওয়াজা: দাঙ্গা পুলিশের দ্বারা প্রহৃত হওয়ার পর এক বিক্ষোভকারীর ছবি, এটি পার্ল স্কোয়ারের কাছের একটি গ্রামের দৃশ্য, যা http://yfrog.com/klrubcgj-এর মাধ্যমে পাওয়া গেছে।

বাহরাইনের ইয়ুথ সোসাইটি ফর হিউম্যান রাইটস নামক মানবাধিকার সংস্থার সভাপতি মোহাম্মাদ আল মাসকাতি, (@মোহাম্মদমাসকাতি) , এক প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে দাঙ্গা পুলিশের বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা চালানোর বিষয়টি সম্বন্ধে বর্ণনা করেছেন :

@মোহাম্মদমাসকাতি : এই মাত্র দেখলাম সানবাসি গ্রামে একজনকে দাঙ্গা পুলিশ নির্মম ভাবে পেটাল। স্টান্ট গ্রেনেড + টিয়ার গ্যাস নিয়ে নারীদের উপর হামলা চালানো হয়েছে।

এরপর তিনি বিক্ষোভকারীদের একটি ছবি টুইট করেছেন :

@মোহাম্মদমাসকাতি: মূল সড়কের কাছে বিক্ষোভকারীদের ছবি যা পার্ল স্কোয়ারকে উপেক্ষা করে। http://twitpic.com/6pa9xm

মানবাধিকার কর্মী মারিয়াম আলখাওয়াজা (@মারিয়ামআলখাওয়াজা) তার টুইটার একাউন্টে বিক্ষোভের বিভিন্ন ঘটনার বিস্তারতি এবং তাজা সংবাদ প্রদান করে যাচ্ছেন এবং তিনি এই টুইটে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন যাতে দেখা যাচ্ছে একটি নারীকে আক্রমণ করা হয়েছে:

@মারিয়ামআলখাওয়াজা:একটি নারীর ভিডিও, যিনি দাঙ্গা পুলিশের মুখোমুখি হয়েছেন।http://youtu.be/drvmL5oJzSg

বাহরাইনের আরেক সামাজিক নেটওয়ার্ক গ্রুপ, যাদের বাহরাইন রেভুল্যুশন (@বাহরাইন_রেভ) বলে ডাকা হয়, তারা বিক্ষোভের দিন সন্ধ্যার আরেকটি ভিডিও টুইট করেছে :

@বাহরাইন_রেভ :: @বাহরাইন_রেভ : ২৪ সেপ্টেম্বর, সানাবিসের একটি গৃহে ভাড়াটে গুন্ডাদের হামলার দৃশ্য সম্বলিত পঞ্চম ভিডিওhttp://fb.me/11tpEErmq

তবে অন্যদিকে, শাসক পন্থী টুইটার ব্যবহারকারী রয়েছে, যারা #লুলুরিটার্ন বিক্ষোভ সম্বন্ধে তাদের আপত্তি জানিয়েছে, যাদের মধ্যে রয়েছে নৌফ আল সোয়াদি (@নালসোয়াদি), যিনি মন্তব্য করেছেন :

@নালসোয়াদি: চরমপন্থীরা এই দুই দিনে অনেক দুর চলে গেছে, তারা আর এখন আর কর্তৃপক্ষের মোকাবেলা করেছে না, তারা কেবল তাদের স্বদেশী বাহরাইনের নাগরিকদের মনে আতঙ্কের সৃষ্টি করছে।

ফাওয়াজ রামাধানও তার টুইটে বিক্ষোভকারীদের সম্বন্ধে বর্ণনা করতে (@এফএম৯৭৭৯) আতঙ্ক ছড়ানো শব্দটি ব্যবহার করেছে:

@এফএম৯৭৭৯: #লুলুরিটার্ন নামক বিক্ষোভের ক্ষেত্রে এই মাত্র সন্ত্রাসের ঘটনার সংবাদ পাওয়া গেল, যেখানে হিজবুল্লাহর গুণ্ডারা বাহরাইনের একটি শপিং মলে প্রবেশ করে নাগরিকদের আতঙ্কিত করে ফেলে।

এম.কে.আল বাইনাতেজি (@আতেকস্তের), গত সপ্তাহে #লুলুরিটার্ন নামে বিক্ষোভের বিরুদ্ধে নিজেকে উৎসর্গ করেছে এবং এই টুইটে সে একটি ভিডিও পোস্ট করেছে:

@আতেকস্তের: দাঙ্গাকারীদের অপসারণ করার ফলে বাহরাইনি নাগরিকরা উল্লাস করছে এবং দাঙ্গা পুলিশকে চুম্বন করছে http://www.youtube.com/watch?v=N4sL2c7g_QM

শেষ পর্যন্ত বিক্ষোভকারীদের স্কোয়ারে পৌঁছনোর ক্ষেত্রে বাঁধা দানের যে প্রক্রিয়া তা সফল হয়, তাদেরকে গ্রামগুলোর মধ্যে আটকে ফেলা হয়, আজ সকাল পর্যন্ত তাদের উপর হামলা চালিয়ে যাওয়া হয়েছে।

এই প্রবন্ধটি বাহরাইন বিক্ষোভ ২০১১-এর উপর করা আমাদের বিশেষ কাভারেজের অংশ।.

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .