বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরানঃ পানি নিয়ে যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা গ্রেফতারের ঘটনায় গড়িয়েছে

সকলেই জানে যে আগুন নিয়ে খেলতে নেই। দৃশ্যত মনে হচ্ছে ইরানে পানি নিয়ে খেলার ক্ষেত্রেও সমস্যায় পড়তে হতে পারে। অন্তত ইরানের কিছু তরুণ এই শিক্ষা লাভ করে তখন, যখন গত সপ্তাহে রাস্তায় পানি নিয়ে যুদ্ধ যুদ্ধ খেলার কারণে ইরানের নিরাপত্তা বাহিনী তাদের গ্রেফতার করে। এই খেলায় কয়েকশ তরুণ তরুণীর অংশ গ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে ফেসবুক [ফার্সী ভাষায়] এক গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা পালন করেছিল।

ইরানিয়ান খ্রিস্টান নিউজ এজেন্সির সুংবাদ অনুসারে:

[তেহরানের পুলিশ প্রধান সাজেদিনিয়া] সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন “ যে সব তরুণরা আমাদের প্রথা মানতে অস্বীকার করার জন্য সমবেত হবে, আমরা সে সব সমাবেশ ভেঙ্গে দেব।”। তরুণরা যে ইন্টারনেটে এবং টেক্সট মেসেজের মাধ্যমে প্রকাশ্য স্থানে একত্রিত হয়ে ছেলে মেয়ে মিলে এবং দলবলে তেহরানের প্রকাশ্য স্থানে মজা করার আহ্বান জানাচ্ছে, মূলত তিনি সেই বিষয়টি উল্লেখ করে এই কথা বলেন। গতকাল ইরানের বেশ কিছু রক্ষণশীল প্রচার মাধ্যম পানির লড়াইয়ের দৃশ্য প্রদর্শন করে, ভেজা কাপড় এবং মেয়েদের শরীর ঢেকে ঠিকমত পোশাক না পরার কারণে তারা আপত্তি জানিয়েছিল।

বেশ কিছু ব্লগার পরিহাস এবং ক্ষোভের মাধ্যমে এই সংবাদের ব্যাপারে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেঃ

নেদাইয়া সাবজ লিখেছে [ফার্সী ভাষায়] :

এই দেশে যদি আপনি পানি নিয়ে যুদ্ধ যুদ্ধ খেলেন তাহলে আপনাকে গ্রেফতার করা হবে, কিন্তু যদি আপনি ধর্ষণ এবং খুন করেন, তাহলে আপনাকে তো গ্রেফতার করা হবেই না, এমনকি সে ক্ষেত্রে আপনাকে সাহসিকতার জন্য পুরষ্কার প্রদান করা হবে।

ফেতেনগার লিখেছে [ফার্সী ভাষায়]:

দেখে মনে হচ্ছে তারা [কর্তৃপক্ষ] আমাদের তরুণদের গ্রেফতার করার জন্য অজুহাত খুঁজছে… এই পানি নিয়ে যুদ্ধ খেলার বিষয়টি সম্ভবত আরো বৃদ্ধি পেতে যাচ্ছে এবং ঘটনাটি সবুজ আন্দোলনকে [গ্রীন মুভমেন্ট] আবার চাঙ্গা করতে যাচ্ছে।

দেরাফশে কাভিয়ানি বলেছে [ফার্সী ভাষায়]:

ইরান হচ্ছে এমন এক দেশ, সেখানে আপনি খেলনা বন্দুক দিয়ে পানি ছোঁড়া নামক খেলার ফলে গণ আধ্যাদেশ লঙ্ঘন করার দায়ে অভিযুক্ত হবেন, কিন্তু যদি আপনি কালাশনিকভ রাইফেল নেন এবং এক তরুণীকে গুলি করে মেরে ফেলেন, তাহলে আপনি লুকায়িত ইমামের সৈনিক বলে বিবেচিত হবেন।

গেট অনেস্ট থার্ড আই লিখেছে [ফার্সী ভাষায়]:

এখানে যে কিছু ঘটুক তার সাথে রাজনীতিকে যুক্ত করা একটা অভ্যাসে পরিণত হয়েছে…কিছু কিছু প্রচার মাধ্যম এমন ভাবে এই বিষয়টি নিয়ে কথা বলছে যে, মনে হচ্ছে যেন হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ প্রদর্শন করছে…… কেন জনতা পানি ছুঁড়ে যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা উপভোগ করছে, সে বিষয়ে আমার কোন প্রশ্ন নেই; আমার প্রশ্ন, কেন বিষয়টিকে আমরা রাজনীতির সাথে যুক্ত করছি?

ব্লগার আমাদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে যে দেশটিতে এখন কিছু রাজনৈতিক বন্দী রয়েছে যারা ঝুঁকি নিচ্ছে এবং অনশন ধর্মঘট করছে, কিন্তু পানির লড়াইয়ের মত সংবাদের ঘটনায় তাদের খবর চাপা পড়ে যাচ্ছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .