বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

পেরু: দুর থেকে বিশ্বকাপের খেলা দেখা

অনেক বছর ধরে পেরুবাসীরা ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে তাদের জাতীয় ফুটবল দলকে খেলতে দেখেনি; ঠিক ২৮ বছর আগে পেরু শেষবারের মত বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে খেলেছিল, তার মানে পরপর সাতটি বিশ্বকাপ পার হয়ে গেছে। তা সত্ত্বেও এখনো পেরুতে ফুটবল সকল খেলার রাজা।

পেরুর শিশুরা ব্যারিও ডে বেলেন-এর রাস্তায় ফুটবল খেলছে। ছবি ফ্লিকার ব্যবহারকারী জর্জ ডেলপার্ডোর এবং এটি ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের ‌আওতায় ব্যবহার করা হয়েছে।

বিশ্বকাপ ফুটবলে অংশ না নিয়ে বাইরে থেকে ফুটবল খেলা দেখার বিষয়ে পেরুর ফুটবল ভক্তরা কি বলছে আসুন সেই কথাগুলো শুনি।

ব্লগ ফুটবল ডেসাদে আয়াকুচো [স্প্যানিশ ভাষায়] একটি পোস্ট লিখেছে যার শিরোনাম “!ইয়া কে ভিভা এল মুন্ডিয়াল সুডাফ্রিকি ২০১০!” [স্প্যানিশ ভাষায়] ( দক্ষিণ আফ্রিকা ফুটবল বিশ্বকাপ-২০১০ দীর্ঘজীবী হউক!):

Faltan horas para dar inicio a lo que es el evento deportivo futbolístico más grande del mundo; la Copa del Mundo Sudáfrica 2010, será el evento en el que todo el mundo estará inmiscuido, y pese a que el Perú no vive esta fiesta asistiendo a dicha cita, igual para los que gustamos del buen futbol nos queda seguir apreciando este evento por TV con todo lo que se vivirá en este lejano país, y alentando como debe ser a los países que representaran y sacaran cara por el futbol sudamericano.

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া অনুষ্ঠানের শুরু থেকে আমরা আর মাত্র কয়েক ঘন্টা দুরে: দক্ষিণ আফ্রিকা ফুটবল বিশ্বকাপ ২০১০। এটি হবে এমন এক অনুষ্ঠান, যেখানে সারা বিশ্বের লোকেরা যুক্ত থাকবে, যদিও পেরু এই প্রতিযোগিতায় সরাসরি উপস্থিত থাকবে না, তারপরেও যারা আমাদের মত ফুটবল ভালোবাসে, তারা এখনো এই প্রতিযোগিতার খেলা টিভিতে দেখব এবং সেগুলোকে আমাদের সকল অভিজ্ঞতায় মূল্যায়ন করব, দুরের এই দেশটি থেকে, এবং তার সাথে উল্লাস ধ্বনি দেব, যা ঘটবে, ওই সমস্ত দেশের জন্য, যারা বিশ্বকাপে দক্ষিণ আমেরিকার প্রতিনিধিত্ব করছে এবং মহাদেশের গৌরব রক্ষার জন্য লড়ছে ।

দক্ষিণের মানকেগুয়ারর শহর ইলো থেকে পিপিগোল এক মূহূর্তে গৃহবধূদের জন্য উৎসর্গ করেছে [স্প্যানিশ ভাষায়]: :

Hoy arranca el dolor de cabeza para las amas de casa; si tienen la suerte de contar con otra tv en casa bacán, verán tranquilas sus tele cebolleras de lo contrario serán desplazadas; por los seguidores del deporte más popular del planeta e invasiones; que durante un mes miraremos fútbol y solo fútbol; deporte que genera cualquier cantidad de billete a la FIFA.

আজ থেকে আমাদের গৃহবধূদের মাথাব্যথা শুরু হবে; যদি তারা খুব সৌভাগ্যবান হয় তাহলে তাদের ঘরে অন্য একটা টিভি থাকবে, সেক্ষেত্রে বিষয়টি অতি উত্তম। তা হলে তারা সহজেই তাদের প্রিয় সোপ অপেরা বা ধারাবাহিক নাটকগুলো দেখতে পারবে। অন্যথায় বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলার অনুসারীর দ্বারা তারা উদ্বাস্তু (টিভির ঘর থেকে) এবং উপদ্রবের শিকার হতে পারে, যারা এক মাস ধরে ফুটবল এবং কেবল ফুটবল খেলা দেখবে; এমন এক খেলা যা ফিফার জন্য প্রচুর টাকা আয়ের ব্যবস্থা করে দেয়।

ব্লগ টিয়েম্পো এক্সট্রার [স্প্যানিশ ভাষায়] ওমার ভেলারডে আলোচনা করেছে বিশ্বকাপের গানগুলো, যে সমস্ত খেলোয়াড়েরা ১০ নম্বর পোশাক পরেছে ইথ্যাদি বিষয় নিয়ে এবং সবচেয়ে দামি দল এবং তথাকথিত জনপ্রিয় দলগুলোর সম্বন্ধে বিশ্লেষণ করেছে। সে তার পোস্টের লেখা শেষ করেছে আহত আফ্রিকার খেলোয়াড়দের নিয়ে::

Sin embargo, las selecciones que más han sufrido las lesiones han sido las africanas. Ghana ha tenido que ver cómo su mejor jugador, Michael Essien, tuvo que dar un paso al costado al igual que el recientemente lesionado Didier Drogba, cuyo cúbito se rompió hoy jugando ante Japón.

বলা যায়, জাতীয় দলগুলোর খেলোয়াড়রা সবচেয়ে বেশি আহত আফ্রিকার ফুটবলাররা। ঘানা দেখতে পাচ্ছে তার সবচেয়ে সেরা খেলোয়াড় মাইকেল এসিয়েন, আহত হয়ে দলের বাইরে। এদিকে যথারীতি দিদিয়ের দ্রগবাও সম্প্রতি আহত হয়েছে, জাপানের সাথে আজকের খেলায় যার হাতের আলনা (কনুই থেকে কব্জি পর্যন্ত হাতের দুইটি অস্থির যেটি ভিতরের দিকে অবস্থিত) ভেঙ্গে গেছে।

ব্লগ ফুলবিটো ইয়া ফুলভাসো [স্প্যানিশ] বিশ্বকাপে নিরাপত্তার বিষয়টি উত্থাপন করছে, সে বলছে::

Pero el gran temor en este Mundial es la seguridad y este jueves se conocieron tres incidentes que han hecho encenderse la luz de alarma.

Cuatro periodistas chinos fueron víctimas de un robo, el martes en Johannesburgo, llevado a cabo por hombres con armas de fuego que atacaron su coche, sustrayéndoles dinero y una cámara de fotos, informó este jueves la prensa del país asiático.

Además, tres personas, entre ellos una agente municipal, resultaron heridos este jueves por un tumulto de gente que quería entrar en la plaza del ayuntamiento, donde la ciudad inauguraba un ‘fan park’ para el Mundial.

বিশ্বকাপে সবচেয়ে বড় শঙ্কা হচ্ছে নিরাপত্তার অভাব এবং বৃহস্পতিবার নিরাপত্তাহীনতার তিনটি সংবাদ জানা গেছে, যা এক সতর্ক সঙ্কেত প্রদান করছে।

মঙ্গরবারে জোহানেসবার্গে চার জন চীনা সংবাদিক ছিনতাইয়ের শিকার হয়, আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে একদল লোক তাদের গাড়ির উপর হামলা চালায়। ছিনতাইকারীরা তাদের টাকা এবং ক্যামেরা নিয়ে যায়। এশিয়ার এই দেশটির সংবাদ মাধ্যম এই তথ্য পরিবেশন করে।

এছাড়াও মঙ্গলবারে শহরের মিলনায়তনে (সিটি হল) ভীড়ে ভর্তি একদল লোক ঢোকার সময় সেখানে তিনজন ব্যক্তি আহত হয়েছে যাদের মধ্যে একজন জমি কেনা বেচার দালালও বা ছিল। বিশ্বকাপ উপলক্ষে শহরে একটি ‘ফান পার্ক’ (বিনোদন উদ্যান) চালু করার জন্য সেখানে এক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হচ্ছিল।

তবে এই একটি মাস জুড়ে সব জায়গায় থাকবে ফুটবল এবং ফুটবল ছাড়া আর কোন আলোচনাই থাকবে না। এবং নিশ্চিত করে বলা পুরো মাস জুড়ে ফুটবল সমর্থকরা উল্লসিত থাকবে।

পেরু থেকে আমরা বলতে পারি: সেরাদেরই জয় হোক।

2 টি মন্তব্য

আলোচনায় যোগ দিন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .