বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

গুয়েতেমালা: ইক্সিল ট্রায়াঙ্গল এর গল্প আর শিল্পকর্ম

ইক্সিল ট্রায়াঙ্গল (ত্রিভুজ) এর অনন্য আর চমকপ্রদ সাংস্কৃতিক উৎকৃষ্টতা এই অঞ্চলকে গুয়েতেমালাতে যাওয়া পর্যটকদের পছন্দের স্থানে পরিণত করেছে। এই ট্রায়াঙ্গল সিয়েরা দে লোস কুচুমাতানেস এর উত্তরে অবস্থিত। পেতেন রেইন ফরেস্টের নীচে অবস্থিত, এই ট্রায়াঙ্গল তিনটি ছোট শহর আর তাদেরকে ঘিরে থাকা গ্রাম দ্বারা গঠিত: সান্তা মারিয়া নেবাজ, সান জুয়াল কোটজাল আর সান গাস্পার চাজুল।

ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলের পাহাড়। ছবি তুলেছের রেনাতা আভিলা

ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলের পাহাড়। ছবি তুলেছের রেনাটা আভিলা

জে নিচভোলোদোভ তার ভ্রমণ ব্লগে সান্তা মারিয়া নেবাজে তার অভিজ্ঞতার কথা বর্ণনা করেছেন:

নেবাজ আসলেই খুব সুন্দর একটা স্থান। এটা পাহাড়ের মধ্যে। আমি আসলেই জানি না আমি এটার বর্ণনা করতে পারবো কিনা, মনে হয় শহরটা পাহাড়ের জোড়া করা হাতের মধ্যে। ঘন সবুজ পাহাড়ের মধ্যে দিয়ে কুয়াশা বয়ে যায়, আর নেবাজ সম্পর্কে সব কিছুকে আবরণের মধ্যে নিয়ে নেয়। এটি অসাধারণ একটা জায়গা (গুয়েতেমালার বেশীরভাগ জায়গার মতো) সাংস্কৃতিক ভাবেও, কারণ নারীরা (বা অন্তত অনেকেই) ঐতিহ্যগতভাবে কাপড় পরেন যেখানে অদ্ভুত একটা পমপম ফিতা তাদের চুলের সাথে পেঁচানো থাকে। নেবাজে এই রঙ আলাদা, অনেক সবুজাভ।

ঐতিহ্যবাহী পোষাক চাজুল। ছবি তুলেছেন রেনাটা আভিলা

ঐতিহ্যবাহী পোষাক চাজুল। ছবি তুলেছেন রেনাটা আভিলা

ইক্সিলের নারীদের ভালোভাবে জানতে হলে, এটা জরুরী যে তাদের ঐতিহ্যগত পোশাকের দিকে নজর দেয়া। তাদের ব্লাউজ তাদের ব্যক্তিগত পরিচিতি প্রচার করে, তাদের ঐতিহ্য আর তাদের বিশ্বাস। লিন্ডা ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলের একটা গ্রাম চাজুলে গিয়েছিলেন আর তিনি তাদের কাপড় থেকে অভিভূত হয়ে পড়েছিলেন:

আপনারা বাজারে আমরা যে পিছন মোড়া স্ট্র্যাপ দেয়া যে হুইপিল (ব্লাউজ) দেখেছি তা থেকে পাহাড় কল্পনা করতে পারবেন না। বা যেসব তাঁতীদের সাথে আমাদের আলাপ হয়েছে যারা তাদের বাড়িতে আমাদের আমন্ত্রণ করেছিল আর আমাদেরকে তাজা, হাতে তৈরি টর্টিলা দিয়েছিল তাদের স্বল্প ভাঁড়ার থেকে। প্রত্যেক গোত্রের আলাদা একটা ধরন আছে, আর তারপরেও প্রত্যেক কাপড় তার বুণনের কল্পনার মতো তাজা…এই ছোট ভিডিও চাজুল গ্রামে আমাদের অভিজ্ঞতার একটা দৃশ্য মাত্র।

ছবি ফ্লিকার থেকে আমারেতো সি আর এর সৌজন্যে। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় প্রকাশিত

ছবি ফ্লিকার থেকে আমারেতো সি আর এর সৌজন্যে। ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্সের আওতায় প্রকাশিত

‌ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলে গোত্রের গল্পকার আলল ও’টলাওলের বাড়ি, যারা এলাকার কল্প কাহিনী আর লোক কাহিনীর ধারক। ব্লগ গুয়াতেজোনা তাদের একটি গল্প প্রকাশ করেছে:

En Nebaj se cuenta que Tznxelal Almika -Corazón del Cielo- era muy cercano a los ixiles, pero éstos comenzaron a espiarlo. Debido a ello, dispuso castigarlos con una lluvia de fuego. A los sobrevivientes se les asignó la tarea de cuidar a los hombres y son conocidos como “Señores de los Cerros”.

নেবাজে মানুষ বলে যে জাঞ্জেলাল আল্মিকা (ইক্সিল) হচ্ছে – আকাশের হৃদয়- ইক্সিলের মানুষের খুব কাছে কিন্তু তারা তার উপরে নজর রাখা শুরু করেন। তাই তিনি তাদেরকে শাস্তি দেন আগুনের ঝড় তুলে। যারা বেঁচে যায় তাদেরকে বাকি মানুষের খেয়াল রাখতে বলা হয় আর এখন তাদেরকে ‘পাহাড়ের প্রভু’ বলা হয়।

নেবাজের আচুলের হাচিন্দা সান আন্তোনিও গ্রাম বিশেষ একটা জিনিষের জন্য পরিচিত: পনির। ব্লগার লা কাসা কা-দে১ ডন গিউসেপে আজারির গল্প শোনান। ডন একজন ইতালীয় পনির প্রস্তুতকারী যিনি ১৯৩২ সালে ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলে এসে তার স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করেন:

Azzari, un italiano quesero artesanal, vivió en la frontera con los Alpes Suisos, ahora las nuevas generaciones ofrecen a usted el delicioso queso artesanal que conserva la receta original. “Il Formaggio di Chancol” es un excelente producto único en Guatemala.

আজারি মহান এক ইটালীয় পনির প্রস্তুত কারক ছিলেন যিনি সুইস আল্পস এর সীমান্তে বাস করতেন। এখন তরুণ প্রজন্ম আপনাকে হাতে তৈরি মজাদার এই পনির দেবে যা আজারীর মূল ফর্মূলা অনুযায়ী তৈরি হয়। ‘চাঞ্চোল পনির’ গুয়েতেমালার দারুন জনপ্রিয় খাবার।

একদা ইক্সিল ট্রায়াঙ্গলকে গুয়েতেমালার সশস্ত্র সংগ্রামের এলাকা হিসেবে অভিহিত করা হয়েছিল। এই তিন শহর উত্তরের এলাকার কিচে ডিপার্টমেন্টের এলাকায় অবস্থিত যেখানে, জাতিসংঘের ট্রুথ কমিশন অনুসারে, যুদ্ধের সময়ে ৩০০ বিভিন্ন গণহত্যা ঘটেছে (মানচিত্র)। বর্তমানে ইক্সিল ৭০,০০০ এর কম বাসিন্দার এক অনন্য গোত্রের বাসস্থান

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .