বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মরোক্কো: ”আমি শতকরা ৯ ভাগ”

মরোক্কো সরকারের সিদ্ধান্তে দুটি বিশিষ্ট ম্যাগাজিন তেল্কুয়েল আর নিচেইনের আগস্ট সংখ্যা নিষিদ্ধ করা মরোক্কোর ব্লগ জগৎ কে রাগিয়ে তুলেছে। এই দুটি প্রকাশনাই ফরাসী দৈনিক লে মন্ডের সাথে করা এক জরীপের ফলাফল প্রকাশ করতে চেয়েছিল, যেখানে সাধারণ মরোক্কোবাসীকে তাদের রাজতন্ত্রের ১০ বছরের শাসন সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে বলা হয়েছিল। এই জরীপ একজন মরোক্কোর রাজার উপর তার নিজের প্রজার দ্বারা প্রথম মূল্যায়ন ছিল। উক্ত দুই প্রকাশনার পরিচালক আহমেদ রেজা বেঞ্চেমসির কাছ থেকে জানা গিয়েছিল যে “সাক্ষাৎকার নেয়া শতকরা ৯১ ভাগ মরোক্কোবাসী বলেছেন যে ষষ্ঠ রাজা মোহাম্মদ এর শাসন কাল ভালো বা খুব ভালো” (সূত্র: এএফপি)। তারপরেও মরোক্কোর কর্তৃপক্ষ মনে হচ্ছে ব্যস্ত এই জরীপের ফলাফল প্রকাশ রোধে যা সরকারের মুখপাত্র খালিদ নাসিরি জানিয়েছেন এই ঘোষণা দিয়ে যে “মরোক্কোর রাজতন্ত্র বিতর্কের বিষয় হতে পারে না, জরীপের মাধ্যমেও।”

মরোক্কোর মাইক্রোব্লগাররা এই সিদ্ধান্তে দ্রুত প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন, বেশীরভাগ তাদের সরকারের সিদ্ধান্তকে অসমর্থন করে।
annouss
annouss2

ঘোষণা: আসুন ৯% প্রচারণাতে যোগদান করি… আপনার প্রোফাইলের ছবি পরিবর্তন করুন। শতকরা ৯ ভাগের সাথে যোগ দিন।

এখন, অনলাইন বিক্ষোভকারীদের একটা প্রচারণা মনে হয় বেগ পাচ্ছে, যা প্রতীকীভাবে ‘আমি ৯%’ লোগো দ্বারা চালু করা হয়েছে। এটি তৈরি করেছেন আনাস আলাউই মরোক্কোর সংখ্যালঘুদের উদ্ধৃতি দিয়ে, যা নিষিদ্ধ জরীপ অনুসারে, ষষ্ট মোহাম্মদ এর ক্ষমতার প্রথম বছরকে অসন্তোষের সাথে খারাপ বলেছে। মাইক্রোব্লগাররা টুইটারের #৯পিসিম্যরোক নামে একটা হ্যাশট্যাগ পাতা দ্রুত তৈরি করেন। এতে ম্যাগাজিন গুলো স্ট্যান্ড থেকে নামিয়ে নেয়ার প্রতিবাদে ‘আমি ৯%’ প্রতীক কে ব্যবহার করা হয়েছে স্পষ্ট ভাবে। শোনা যাচ্ছে ব্লগাররা একটি ফেসবুক গ্রুপ তৈরির চেষ্টা করছেন এই প্রচারণাকে আরো বিস্তৃত করার জন্য।

আমি ৯%

আমি ৯%

সাতউইকারে ব্লগ করা মেহেদি ম্যাগাজিনের পরিচালক বেঞ্চেমসির একটা সাক্ষাৎকারের লিঙ্ক দিয়েছেন, ফরাসী টিভি চ্যানেল ফ্রান্স ২৪ এ যা দেখানো হয়েছে। এই সাক্ষাৎকারে সাংবাদিক অবাক হয়ে তার অসন্তোষ জানিয়েছেন এই নিষেধাজ্ঞা সম্পর্কে ব্যাখ্যা করে যে এই প্রকাশনা আইন ভঙ্গ করে নি বা কোন সীমা অতিক্রম করে নি।

আগোরাতে লেখেন যিনি, ফাতেমা (লা মারোক্কাইন), এই নিষেধাজ্ঞাকে তিরস্কার করেছেন। তিনি লিখেছেন:

A l’ère des nouvelles technologies, il faudra que nos dignitaires se rendent à l’évidence que ce genre d’action revient à chercher à cacher le soleil par la paume de la main. Sans oublier que l’info a déjà fait le tour du monde. Comme on dit chez nous » kaye fye9o l’7m9 bederribe l’7jerre» !!! Ce qui aurait pu passer pour une info banale devient une affaire.

নতুন প্রযুক্তির যুগে আমাদের আমাদের বিশিষ্ট জনদের বুঝতে হবে যে এই ধরনের সিদ্ধান্ত সূর্য কে হাত দিয়ে ঢেকে রাখার সামিল। এটা বলাই বাহুল্য যে এই সংবাদ বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। যা হয়তো ছোট একটা ব্যাপার হতে পারত, এখন একটা আলোচ্য বিষয় হয়ে গেছে।

ইবন কাফকা শেষ করেছেন এই বলে:

Pour résumer: il existe au Maroc une autorité constitutionnelle ayant une suprématie tant sur l’exécutif qu’indirectement sur le législatif et le judiciaire, dont les actes juridiques ne peuvent en aucun [cas] être attaqués devant les tribunaux marocains, et qui assure la commanderie des croyants (musulmans), et dont le bilan ne peut faire l’objet d’une appréciation publique.

সংক্ষেপে বললে: মরোক্কোতে একটা সাংবিধানিক কর্তৃপক্ষ আছে যা নির্বাহীর উপরে -সরাসরি না – আর আইন ও বিচার বিভাগীয়ের উপরে আছে, যাদের কাজ, আইনী ভাষা অনুসারে, কখনো কোন মরোক্কান আদালতকে আক্রমণ করা যাবে না, যা বিশ্বাসী দের (মুসলিম) নেতার অধিকার নিশ্চিত করে আর যার রেকর্ড জনগণ না দেখতে পারে।

বিশ্বাস করা হচ্ছে যে আসছে মঙ্গলবার (৪ঠা আগস্ট) লে মন্ড জনমতের ফলাফল প্রকাশ করবে। কিন্তু মরোক্কোর কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছে, ”যদি লে মন্ড এই জনমত প্রকাশ করে, এটা মরোক্কোতে বিক্রি করতে পারবে না। এটা এক নিয়মে চলার ব্যাপার,” সরকারের মুখপাত্র জানিয়েছেন

তেল্কুয়েল আর নিচেইন দুইটি পত্রিকাই শেষ নিষিদ্ধ হয়েছিল ২০০৭ সালে যখন কর্তৃপক্ষ আরবী আর ফরাসীতে লেখা সম্পাদকীয় কে “রাজার পবিত্র ব্যাক্তিত্বের উপরে অপমান জনক” হিসেবে ধরেছিলেন। পরিচালক বেঞ্চেমসি এই সম্পাদকীয়ের লিখক ছিলেন এবং আজ পর্যন্ত এর জন্য শাস্তি পাচ্ছেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .