বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইরান: প্রতিবাদ এবং দমন

তেহরানের প্রতিবাদ, জমহুর.ইনফোর মাধ্যমে পাওয়া

তেহরানের প্রতিবাদ, জমহুর.ইনফোর মাধ্যমে পাওয়া


শতশত, হাজার হাজার ইরানি, তেহরান ও ইরানে অন্য বেশ কয়েকটি শহরের রাস্তায় রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী মীর হোসেন মৌসাভির সমর্থনে শোভাযাত্রা বের করে। যদিও সরকার এ ধরনের প্রদর্শনীর উপর নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে তা সত্বেও তারা এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। প্রতিবাদকারীরা রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ফলাফল বাতিলের দাবী জানায়। তারা বলতে থাকে ১২ জুন নির্বাচনের বর্তমান রাষ্ট্রপতি আহমাদিনেজাদের জয় এক প্রতারণা মাত্র। নিরাপত্তা রক্ষীরা বিক্ষোভ প্রর্দশনের সময় প্রতিবাদকারীদের জোরালো আঘাত করে এবং এতে অন্তত একজন ব্যাক্তি আজ তেহরানে মারা গিয়েছে

যদি বর্তমানে টুইটার, ফেসবুক এবং ইউটিউব ইরানে নিষিদ্ধ, অনেক ইরানি এ ক্ষেত্রে প্রক্সিস ব্যবহার করছে, যাতে প্রতি মিনিটের তাজা খবর গুলো আটকে না ফেলা হয় ও প্রতি মিনিটের তাজা সংবাদ জানা যায়। ইরানি কর্তৃপক্ষ এছাড়াও এসএমএস বা শর্ট মেসেজ পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে এবং বেশ কয়েকটি ওয়েব ভিত্তিক সংবাদপত্রের চ্যানেল সংবাদ বেছে প্রকাশ করতে বলেছে বা ফিল্টার করেছে। এই সব ওয়েবে সংস্কারপন্থী মতামত প্রতিফলিত হয়।

ইরান০৯ আজ সকালে টুইটার করেছে:

“আমি নিশ্চিত করছি চত্বরের ওখানে বাসিজের [ইসলামিক মিলিশিয়া] একটা স্টেশন রয়েছে এবং তারা ছাদ থেকে গুলি করছে।#ইরান ইলেকশন”

জাদি টুইটার করছে:

“লোকজন এখনো প্রতিবাদে যোগ দিচ্ছে। তারা আওয়াজ তুলছে ‘মৌসাভি! মৌসাভি! আমার ভোট ফিরিয়ে দাও’।#ইরান ইলকেশন”।

মৌসাভি ভাষণ দিয়েছেন এবং নির্বাচনের ফলাফল পুন:র্বিবেচনা করতে বলেছেন। তিনি বলেছেন যদি নতুন করে নির্বাচন হয় তাহলে তাতে অংশ নিতে তিনি রাজী। নির্বাচনের উপর এখানে বেশ কিছু ভিডিও সংবাদের অংশ বা ক্লিপ রয়েছে।

প্রতিবাদ যতই বাড়ছে, বাড়ছে দমনও

যে সমস্ত ছাত্র রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ফলাফলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে, তাদের উপর নিরপত্তা বাহিনী আক্রমণ করেছে। এখানে একটা ভিডিও ফ্লিম বা চলচ্চিত্র রয়েছে যেখানে রোববার রাতে তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রাবাস বা ডরমিটরির দৃশ্য দেখানো হচ্ছে।

তাজা সংবাদ: রোববার রাতে নিরাপত্তা রক্ষীরা তেহরান বিশ্ববিদ্যালয়ে যে ধ্বংসলীলা চালিয়েছে ফ্লিকার স্লাইডশোতে তার ছবি দেখুন। ফ্লিকার ব্যবহারকারী আগাহাদির মতে অনেক ছাত্রকে সে সময় জেলে পাঠানো হয়েছে।

নীচে একটা ক্লিপ দেখাচ্ছে একজন ইরানী মহিলা বাস ষ্টপে নিরাপত্তা বাহিনীর উপর চড়াও হয়।

আজারমেহের এই ছবির উপর মন্তব্য করেছে:

এই সব সাহসী ইরানি সিংহীদের দেখ, প্রথমে সে সরাসরি ও পরে পাশে থেকে লাথি মারে লাঠিধারী নেয়ানডারথেল বা আদিম মানব মনোভাবের এই সমস্ত দাঙ্গা দমনকার প্রহরী। সেও লাঠীর কয়েকটি বাড়ী খেয়েছে কিন্তু এটা তার স্বাধীনতার জন্য মুল্য দেওয়া এবং সে এর জন্য পরোয় করে না। আমাদের মাতৃভুমি ইরান ধন্য এ রকম কন্যা সন্তানের জন্ম দেবার জন্য। ভয় ছড়িয়ে পড়েছে এবং এ রকম ঘটনা চলছেই।

তেহরান লাইভকে ইরানের লোকদের প্রতিবাদ ও প্রতিরোধরত বেশ কিছু ব্যক্তির ছবি তুলেছে যার জন্য তাকে ধন্যবাদ।
26

গ্রীন ভোট টুইটারে সংবাদ দিয়েছিল [ফার্সী ভাষায়] যে এক সময় জনতা স্লোগান দিচ্ছিল, ‘কেউ ভয় পেও না, আমরা একসাথে আছি’। গ্রীন ভোট আরো জানিয়েছিল যে মোহাম্মাদ আলী তারেক নামের এক ছাত্রকর্মী শিরাজ শহরে গ্রেফতার হয়েছে।

অনেক ব্লগার যেমন জিওটুন জানাচ্ছে [ফার্সী ভাষায়] লোকজন রাতের বেলা তাদের ঘর থেকে আওয়াজ তুলছে আল্লাহ-ও-আকবার (আল্লাহ মহান)। মৌসাভি তাদের ছাদের উপর দাড়িয়ে আল্লাহ-ও-আকবার ধ্বনি দিতে বলেছেন। ১৯৭৮-১৯৭৯ সালে ইরানে ইসলামি বিপ্লবের সময় লোকজন শাহের বিরুদ্ধে একই ভাবে স্লোগান দিত।

ওবামা কোথায়?

ভিউ ফ্রম ইরান একজন আমেরিকান ব্লগার, তিনি লিখেছেন:

চুড়ান্তভাবে বলা যায় আমি জানি অলঙ্কারপুর্ণ ভাষা আসলে অলঙ্কারপুর্ণমাত্র। এই একটি শব্দ যা রাষ্ট্রপতি পাল্টানানি, যদি তিনি ইতিহাস বদলানানি কিন্তু তিনি তার অংশ। ওবামার সময় রয়েছে তার চমৎকার শব্দের দিকে তাকানো, এখনই সময়। আজ বেলা ৪টার সময় ইরানের ২০ টি শহরে প্রতিবাদ প্রর্দশিত হবে। * আমরা বন্ধুরা রাস্তায় থাকতে চায়।* সেখানে বাবা-মা,সরকারী চাকুরে, হিসবারক্ষক, রিসিপশনিষ্ট, এবং অবশ্যই ছাত্ররা থাকবে। সবশেষে, সকল সংঘর্ষে আমি নিশ্চিত নই তাদের প্রদর্শনী দেখা যাবে।
কাজেই ওবামা আপনার চমৎকারিত্ব দেখানো শুরু করুন। আপনার বাক্যে অলঙ্কার প্রয়োগ করে দেখান, ইরানকে বলুন যে আমরা যখন মেরিন সেনাদের পাঠাতে পারছি না. অন্তত আমাদের হৃদয় ইরানের সাথে আছে। আমি জানি আপনি আমার চেয়ে ভালো কিছু করতে পারবেন।

ইসফাহান ভুগছে

কেবল তেহরানেই যে প্রতিবাদকারীদের দমন করা হচ্ছে তা নয়, ইসফাহানেরর প্রতিবাদকারীরও নিরাপত্তা বাহিনীর দমনের শিকার হচ্ছে।

ইরান ইভেন্ট ইরানের বেশ কিছু প্রতিবাদকারীর ছবি প্রকাশিত করেছে।

এখানকার লোকদের নিরাপত্তা বাহিনী ধাওয়া করেছে:
33
এবং এখানেও
43

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .