বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

অপ্রচলিত ভাষাগুলিতে ভুল তথ্য রোধ : বিশ্বজুড়ে এর চিত্র

ফার্স্টড্রাফট নিউজ দ্বারা চিত্রিত এবং অনুমতি নিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে।

সম্পাদকের নোট : নিম্নলিখিত নিবন্ধটি আলী আব্বাস আহমাদীর লেখা যা প্রথম ফার্স্ট ড্রাফট ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছিল। এটি ওয়েবিনারের অংশীদারিত্বের অংশ হিসাবে ১০ ই ডিসেম্বর প্রকাশিত হয়েছে।

আমরা যে ভাষাগুলিতে কথা বলি তা নির্ভরযোগ্য তথ্য এবং ফ্যাক্ট-চেক সমূহতে আমাদের প্রবেশাধিকার বা নিয়ন্ত্রণ ব্যাপকভাবে নির্ধারণ করে যা অর্ধ-সত্য বা মিথ্যা দাবিকে উন্মোচন করে।ফার্স্ট ড্রাফ্ট এবং গ্লোবাল ভয়েসেস এর সাম্প্রতিক ওয়েবিনার অনুসন্ধান করেছে যে ভাষাগত সংখ্যালঘুরা কীভাবে এই তথ্য বৈষম্যকে কাটিয়ে উঠতে পারে।

২০২০ সাল আমাদের শিখিয়েছে যে কার্যত সমস্ত সম্প্রদায় অনলাইনে ভুল তথ্যের প্রভাব নিয়ে লড়াই করে। যদিও সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাষাগুলি তাদের মাতৃভাষায় তথ্য-যাচাইকরণ এবং যাচাই করা তথ্যের নাগাল পায়, অন্য সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রেও সর্বদা এটি সত্য হয়না। সংখ্যালঘু ভাষাগুলি অধিকাংশ সময়ই ফ্যাক্ট-চেকিং সংস্থাসহ উভয় ক্ষেত্রেই অপ্রচলিত যা এই সম্প্রদায়ের মধ্যে ভুল তথ্য রোধ এবং মিডিয়ার শিক্ষাকে আরও জটিল করে তোলে।

রাইজিং ভয়েসেসের উদ্যোগের অংশ হিসাবে, গ্লোবাল ভয়েসেসের “এডি আভিলা” এবং ফার্স্ট ড্রাফ্টের “মেরি বোহনার” বিশ্বজুড়ে বিশেষজ্ঞদের সাথে কথা বলেছিলেন যে স্থানীয় সম্প্রদায় কীভাবে তাদের মাতৃভাষায় ভুল তথ্যের হুমকি মোকাবেলা করছে। তাদের মধ্যে ভারতের ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো এর রাহুল নাম্বুরি, যুক্তরাষ্ট্রে হ্যামলাইন বিশ্ববিদ্যালয়ের এন্ডালকাচিউ চালা এবং বুর্কিনা ফাসোর আরএফআইয়ের কেপেনাহী ট্রউরি, যারা এই অনন্য চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দৃষ্টিভঙ্গি শেয়ার করেছিলেন।

ইংরেজি ও কমপক্ষে ৫০০ অনানুষ্ঠানিক ভাষা বাদ দিয়ে ভারতে ২২ টি সরকারী ভাষা রয়েছে, যা সত্যতা-যাচাইকারী, সাংবাদিক এবং শিক্ষাবিদদের পক্ষে প্রত্যেকের কাছে যাচাই করা তথ্যের অ্যাক্সেস রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করা কঠিন। গত কয়েক বছরে নৃগোষ্ঠী ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে হামলা ও দাঙ্গায় উৎসাহিত করার কারণে ভুয়া তথ্যের বিস্তার দেশে বিশেষভাবে বিপজ্জনক প্রতিক্রিয়া হিসেবে দেখা দিয়েছে।

এই প্রসঙ্গেই ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো মিথ্যা তথ্যের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন, নামবোরি ব্যাখ্যা করেছিলেন। সংস্থাটি গুজব সন্ধান করতে এবং তাদের বিস্তার রোধে উভয়কে স্থানীয় দলগুলির সহায়তায় ইংরেজি এবং হিন্দি ছাড়াও সাতটি আঞ্চলিক ভাষায় তথ্য যাচাই করে। ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডোর আঞ্চলিক দলগুলি স্থানীয় সাংবাদিকদের সমন্বয়ে গঠিত যারা স্থানীয় ভাষায় কথা বলে এবং তারা যেখানে কাজ করে তাদের অনন্য সাংস্কৃতিক এবং রাজনৈতিক পরিবেশ বোঝে। ফেসবুকের ক্রাউডট্যাঙ্গেলের মতো সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করে দলগুলি বিভ্রান্তিকর এবং মিথ্যা তথ্য ট্র্যাক করতে কয়েকশ গ্রুপ এবং সামাজিক মিডিয়া অ্যাকাউন্ট পর্যবেক্ষণ করে। ফ্যাক্ট ক্রিসেন্ডো হোয়াটসঅ্যাপ টিপ লাইন এবং গ্রুপ ব্যবহার করে যাতে তাদের ফ্যাক্ট-চেকাররা স্থানীয় সম্প্রদায়ের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে এবং তাদের নিজস্ব ভাষায় যাচাই করা তথ্য সরবরাহ করতে পারে।

কেবল ভারতে কথিত প্রধান ভাষা ইংরেজী বা হিন্দিতে ভুল তথ্য উৎপন্ন হয়ে ছড়িয়ে পড়ে তা নয়, বিদেশ থেকেও ভুল তথ্য দেশে প্রবেশ করে। ইতালি ও স্পেনের করোনভাইরাস সম্পর্কিত মিথ্যা দাবি আঞ্চলিক ভাষায় প্রবেশের আগে স্পেনীয় এবং ইতালিয়ান থেকে ইংরেজি এবং হিন্দিতে ছড়িয়ে পড়ে, নামবোরি বলেছিলেন। প্রতিটি পরিবর্তনের সাথে স্থানীয়করণের প্রসঙ্গে একটি স্তর যুক্ত করা হয়, যা ভুল তথ্যকে আরও বিশ্বাসযোগ্য করে তোলে এবং এটি ভাষাগত সম্প্রদায়সমূহের সম্প্রদায়ের মধ্যে বিষয়টি নিয়ে বিবেচনা করতে নির্ভরযোগ্য তথ্যে খুব কম অ্যাক্সেস বা কোন কোনো ক্ষেত্রে অ্যাক্সেস দেয়না।

কথা বলার ক্ষেত্রে পূর্ব আফ্রিকার দেশ ইথিওপিয়া একইভাবে বৈচিত্রপূর্ণ; দেশটিতে তিনটি প্রধান এবং ৮৬ টি অন্যান্য ভাষা ব্যবহার করা হয়। ইথিওপিয়া থেকে আসা এন্ডালকাচিউ চালা বলেছিলেন, “এই ভাষাগুলির বেশিরভাগই অপ্রচলিত ভাষা এবং এই ভাষাগুলিতে কোনো ফ্যাক্ট-চেকিং হয়না। যদিও এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ভাষা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে প্রচুরভাবে ব্যবহৃত হয়, তবুও তাদের বহুল ব্যবহারকারীদের যাচাই বা নির্ভরযোগ্য তথ্যে সহজ ​অ্যাক্সেস নেই

সম্প্রতি, দেশটিতে যুদ্ধের কারণে উত্তর টাইগ্রেরি অঞ্চলে ইন্টারনেট বন্ধ থকা অপ্রচলিত ভাষার স্যুটিকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। চালা বলেছিলেন যে এটি “তথ্যের হিসেবে দুটি মহাবিশ্ব সৃষ্টি করেছে, যেখানে টাইগ্রেরি অঞ্চলে বাস করা মানুষ জানেন না, বাইরের পৃথিবীতে কি হচ্ছে”। চালা যোগ করেছেন, সেখানকার লোকেরা কেবল আঞ্চলিক মিডিয়া দ্বারা সম্প্রচারিত তথ্যের অ্যাক্সেস পায়, যা পরিস্থিতি সম্পর্কে বুঝতে “অসংলগ্ন” হয়ে দাঁড়িয়েছে, বিশেষত টাইগ্রেরির তাদের ক্ষেত্রে যারা যারা বাইরের বাসিন্দাদের প্রতি আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি আছে।

চালা ইথিওপিয়া জুড়ে স্বাস্থ্য সম্পর্কিত ভুল তথ্য প্রসারিত হতেও দেখেছে। কোভিড-১৯ মহামারী সম্পর্কে মিথ্যা দাবিগুলি ইথিওপিয়ায় বিভিন্ন ভাষায় ও ভাষাগত সম্প্রদায়ের মধ্যে, উভয় জায়গায় ছড়িয়ে পড়েছিল। তথ্য-পরীক্ষণকারী সংস্থাগুলির অভাব বা অপ্রচলিত ভাষাগুলোতে নির্ভরযোগ্য তথ্যের অ্যাক্সেসের ফলে এই গুজবগুলি ক্ষুদ্র গ্রামীণ সম্প্রদায় এবং ভাষাগত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ে প্রবেশ করতে পেরেছিল।

চালা বলেছিলেন, “ইথিওপিয়া জুড়ে এমন কিছু লোক রয়েছে যারা যাচাই করতে এবং ফ্যাক্ট চেক করতে ইচ্ছুক,” বৈদেশিক তহবিল প্রায়শই সবসময় রাজনৈতিক সংযোগে বা শহুরে কেন্দ্রগুলিতে প্রভাবশালী ভাষার বক্তাদের কাছে যায়। তিনি আরও যোগ করেছেন যে, বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম এবং বিদেশী সংস্থাগুলিকে এই সম্প্রদায়ের জন্য তথ্য যাচাই করতে সহায়তা করার জন্য সংখ্যালঘু ভাষাগুলির নেটিভ স্পিকারদের নিয়োগ করা দরকার যাতে নন-নেটিভ স্পিকারের উপর নির্ভর না করতে হয়।

আফ্রিকার অন্য একটি জায়গায়, মহাদেশের পশ্চিমাঞ্চলে সংখ্যালঘু বাম্বারা ভাষার বক্তারাও অনুরূপ রিসোর্সিং সমস্যাগুলি নিয়ে কাজ করে। যদিও বাম্বারা সম্প্রদায়ের সদস্যরা টিভি এবং রেডিওতে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলি থেকে তাদের সংবাদ পেয়ে থাকেন এবং তাই অনলাইন ভুল তথ্যের সুনামি এড়াতে পারেন, তারা পুরোপুরি গতানুগতিক মিডিয়া আউটলেটের উপর নির্ভরশীল বলেও জানিয়েছেন কেপেনাহী ট্রউরি। তথ্যের প্রতিবেদন করার জন্য এই আউটলেটগুলির দায়িত্ব তাই আরও বেশি কারণ বাম্বারা সম্প্রদায়গুলি প্রায়শই ইন্টারনেটে অ্যাক্সেস পায় না তারা যা শুনছে তা খতিয়ে দেখার জন্য। যদিও স্থানীয় সংস্থাগুলির কাছে বর্তমানে তাদের সম্প্রদায়ের কাছে যাচাইকৃত তথ্য প্রেরণের সংস্থান নেই, তবে আরএফআই ম্যান্ডেনকান সহ বিদেশি সংস্থাগুলি রয়েছে যারা বাম্বারা এবং অন্যান্য স্থানীয় ভাষায় ফ্যাক্ট-চেক করে, ট্রউরি বলেছেন।

গ্লোবাল ভয়েসেসের অবিলা বলেছেন, আমাজনে, যেখানে আদিবাসী সম্প্রদায়গুলি প্রধানত মৌখিকভাবে যোগাযোগ করে, এটি মূল বিষয় ছিল যে রিসোর্স – বিশেষত করোনাভাইরাস সক্রমিত এলাকার আশেপাশের নিকটবর্তী অঞ্চলগুলিতে – একইভাবে ” স্থানীয়করণ করা হয়েছিল”। “একটি সংস্কৃতিতে কাকে অথবা কীসের উপর নির্ভর করা যেতে পারে তা অন্য সংস্কৃতিতে একই নাও হতে পারে, এবং তাই আমরা অনলাইনে যে ধরণের বিষয় দেখছি তা বিবেচনায় রাখা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ” “

যদিও বিভিন্ন ব্যক্তি এবং নির্দিষ্ট কিছু সংস্থাসমূহ অপ্রচলিত ভাষাগুলির বক্তাদের যাচাইকৃত তথ্য সরবরাহ করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে,তবে ভাষাগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী এখনও প্রভাবশালী ভাষায় কথা বলার ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র অসুবিধায় রয়েছে। এমনকি যদিও ইন্টারনেটের মাধ্যমে বিশ্ব আরও বিশ্বায়িত হয়ে উঠেছে, তবুও যারা এইসবের সাথে কম সংযুক্ত কিংবা যারা যোগাযোগের ক্ষেত্রে এই প্রচলিত পদ্ধতি ব্যবহার না করে ভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে করে তারা পেছনে পড়ে যাচ্ছে। মিডিয়া আউটলেট এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলি মিডিয়া সাক্ষরতা তৈরি করতে এই স্থানীয় সম্প্রদায়গুলিতে বিনিয়োগ করতে পারে যেন তাদের ভাষাগুলিতেও যাচাই করা তথ্যে সমান অ্যাক্সেস পায় অন্যান্য ভাষার মতো।

এবং এখন পর্যন্ত এই পৃথিবী-বিস্তৃত উদাহরণগুলি সংখ্যালঘু ভাষাগুলিতে ভুল তথ্য রোধ সমস্যা সমাধানের পরিকল্পনার সময় স্বাক্ষরতার হার বা ইন্টারনেট সংযোগের মতো বিস্তৃত প্রশ্নগুলির সমাধান করার প্রয়োজনীয়তার উপরও জোর দেয় ।ভাষাগত সম্প্রদায় কীভাবে যোগাযোগ করে তা বোঝা গণমাধ্যমের সাক্ষরতার উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো তৈরির মূল চাবিকাঠি।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .