বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

বর্ণবাদ শুধু আটলান্টাতে নয়, ব্রিটিশ কলম্বিয়ার ভিক্টোরিয়াতেও রয়েছে

Racism in Victoria BC Canada

আমি রাতে এদিক সেদিক ঘোরাঘুরি করে ব্রিটিশ কলম্বিয়ার ভিক্টোরিয়ার ছবি তুলতে পছন্দ করি। তবে এই মুহূর্তে সবাই তা করতে পারে না। নেভিন থম্পসনের তোলা ছবি। লাইসেন্স: সৃজনশীল সাধারণ স্বীকৃতি ৩.০।

এই নিবন্ধটি মূলত ফেসবুক এবং মিডিয়ামে প্রকাশিত একটি ব্যক্তিগত রচনা থেকে নেওয়া হয়েছে।

১৭ মার্চ, রোজ বুধবার আটলান্টার জর্জিয়ায় এক ভয়াবহ গণগুলিবর্ষণে আটজন নারী নিহত হয়েছে। একজন শ্বেতাঙ্গ মানুষ এশীয় লোকদের, নারীদের এবং সাধারণভাবে সেইসব দুর্বল ও কলঙ্কিত ব্যক্তিদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে যাদের পাওনা পরিশোধের জন্যে যৌনকর্ম হিসেবে শ্রেণিবদ্ধ কাজের উপর নির্ভর করতে হয়।

আমি ব্রিটিশ কলম্বিয়ার ভিক্টোরিয়াতে থাকি। নিকটবর্তী ভ্যাঙ্কুভারের তুলনায় ভিক্টোরিয়া একটি শ্বেতাঙ্গ প্রধান শহর। আমরা একটি দ্বীপে থাকলেও আমি বুঝতে পারি যে অন্য কোথাও গুলিবর্ষণ এবং অন্যান্য জাতিগত সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে এবং ঘটছে। তবে আমি মনে করি যে আমরা যে শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ এবং নারীবিদ্বেষের বিষয়ে সংবাদ পড়েছি তা বেশি দূরে নয়। তার পরিবর্তে বর্ণবাদ এবং নিপীড়ন কানাডীয় সমাজের বুননে প্রোথিত হয়েছে।

উদাহরণস্বরূপ আমি বিশেষ করে রাতে ছবি তুলতে চাই। গুলিবর্ষণের আগের রাতে আমি আমার পকেট ফোন গিজমোর “জ্যোতির্বিজ্ঞান আলোকচিত্র” বৈশিষ্ট্যটি ব্যবহার করেছি। এর অর্থ হলো আমি পার্কের অন্ধকারে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে ছিলাম। আমি কিছু সুন্দর ছবি পেয়েছি। তার উপরে এই প্রবন্ধের শুরুতে আমার অন্য রাতে নেওয়া একটা ছবি রয়েছে।

“অন্ধকারের মধ্যে বাইরে হাঁটতে পেরে অবশ্যই ভাল লাগবে,” আমি বাড়ি ফিরে গেলে আমার স্ত্রী এম বলেছিলেন। এটা ছিল আসল এবং আন্তরিক মন্তব্য। “এটা অবশ্যই ভাল।”

“আমি প্রচুর মহিলাকে গোধূলির সময় শারীরীক কসরৎ করতে দেখলাম,” খানিকটা (আমাকে সমস্যার অংশ করে তোলা) খেই হারিয়ে আমি বললাম।

“ভাল কথা, তারা তো শ্বেতাঙ্গ,” এম বলেছিল। তিনি জাপানের এবং, শ্বেতাঙ্গ অধ্যুষিত এই শহরে তিনি এশিয়ান হিসেবে বিবেচিত। “আমি এখনই রাতে বাইরে ঘুরে বেড়াতে চাই কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত নই। এশীয়দের জন্যে খুবই বিপজ্জনক।”

পরের দিন আটলান্টায় লক্ষ্যবস্তু করে গুলি চালানো হয়। আমার কানাডার কয়জন বন্ধুবান্ধব সেটা খেয়াল করেছে কিনা আমি নিশ্চিত না হলেও এক বছর আগে মহামারী শুরুর পর থেকে এশীয়-আমেরিকানদের বিরুদ্ধে জাতিগত আক্রমণ নাটকীয়ভাবে বেড়ে যায়। ধারণা করা হয় যে ট্রাম্পবাদের তৈরি করা ক্রমবর্ধমান বর্ণবাদী মনোভাবের পাশাপাশি কোভিড-১৯-কে প্রাথমিকভাবে “চীনা ভাইরাস” এবং “উহান ফ্লু” হিসেবে চরিত্রায়ণ এই ঘটনাগুলির সূত্রপাত ঘটিয়েছিল।

কানাডা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উভয় স্থানেই এশীয় বংশোদ্ভূত লোকদের বাদ দেওয়া বা লক্ষ্যবস্তু করা আইনের একটি দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে যার সক্রিয় প্রভাবে এভাবেই আমাদের সমাজ আমার স্ত্রীর মতো চেহারার লোকদের বিবেচনা করে থাকে।

এশীয়দের উপর আক্রমণের সংখ্যা বৃদ্ধি কেবল আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। গত এক বছরে ভ্যাঙ্কুভার অঞ্চল এশীয়দের বিরুদ্ধে লক্ষ্যবস্তু করে নিয়মিত হামলা দেখে আসছে। টরন্টো এবং কানাডার অন্যান্য শহরগুলিও এসব আক্রমণ দেখেছে। এখানে ভিক্টোরিয়ায় এম কেনাকাটায় বের হতো বলে এশীয় মহিলাদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করা সহিংসতার সংবাদ এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতিবেদনগুলি আমার জন্যে নিয়মিত উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

এখন পর্যন্ত সে কোন সহিংসতার মুখোমুখি না হলেও এম জানিয়েছে সে তার মধুর, সদয় এবং স্বভাব দিয়ে দোকানগুলিতে তার সাথে অভদ্র আচরণ করা, এমনকি তার উপর ধাক্কা খাওয়া (শ্বেতাঙ্গ) লোকদের পথ এড়িয়ে যেতো।

বাস্তবে ২০০৪ সালে আমরা কানাডায় চলে আসার পর থেকে এম ভিক্টোরিয়ায় নিয়মিত এই ধরনের আচরণের মুখোমুখি হতো। সে মাঝে মাঝেই বাস স্টপে প্রকাশ্য হয়রানির শিকার হতো (“কিন্তু আমার মাথায় হেডফোন থাকায় আমি সেগুলি উপেক্ষা করার ভান করতাম”)। এমনকি বেশ কয়েকবার তাকে বাড়ি পর্যন্ত অনুসরণ করা হয়। নিজেকে একজন এশীয় হিসেবে উপস্থাপন করা বা সে একজন মহিলা হওয়ায় সে এবং সব মহিলারা অথবা এই দু’টোর সংমিশ্রণের কারোনে এই হয়রানির শিকার হয়, তা বলা মুশকিল।

অভিজ্ঞতালব্ধ বর্ণবাদী আচরণের খুব সামন্যই, যদি আদৌ হয়ে থাকে, অর্থবোধক প্রতিকার হয়েছে বলে মনে হয়। গত মার্চ মাসে আমাদের ছোট ছেলেকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বর্ণবাদী উপহাস করা হয়। তাকে জাপানি হিসেবে উপস্থাপন করা হয়। অন্য দু’টি ছেলে তার বিরুদ্ধে “উহান ফ্লু” ছড়ানোর অভিযোগ করে। সেসময় এটা তাকে বিচলিত করে প্রধানত এই কারণে যে সেই একই ছেলেরা আগের সপ্তাহে তার স্লেজটি চুরি করে সেটা ভাঙচুর করে এবং তারপর এটা নিয়ে মিথ্যা বলে।

স্লেজের ব্যাপারটি নিয়ে স্কুলটি দ্রুতই ছেলেদের তাড়িয়ে দিয়ে পরিস্থিতি সংশোধন করার পদক্ষেপ নেয়। ছেলেদের একজনের পিতামাতা একটি স্লেজ কিনে সেটা বদলে দেয়। এটা কোন দুর্দান্ত সমাধান না হলেও তার মা  অন্তত তার ছেলে যে আঘাতটি করেছিল সেটা স্বীকার করে নিয়েছিলেন।

তবে আমি পরবর্তী হয়রানির খবর দিলে – এটি ছেলে দুটি তার  স্লেজ চুরি করে নেওয়ার পরে্র ঘটনা! – স্কুল বিষয়টি অস্বীকার করে।

“আমি তাদের সাথে এই বিষয়ে কথা বলবো,” অধ্যক্ষ বলেন। তবে এর মধ্যে কোন জবাবদিহিতা এবং আঘাতের কোন স্বীকৃতিটাও ছিল না।

আমি ছেলেদের মধ্যে একজনের পিতামাতাকেও জানিয়েছি যে তার ছেলে বর্ণবাদী মন্তব্য করেছে। তার জবাব ছিল, ” আপনি তাকে বর্ণবাদী বললে সে ভয়ানক বোধ করে।”

আমার জন্যে শিক্ষাটি হলো আমি খুব স্পষ্টবাদী একজন শ্বেতাঙ্গ হলেও আমার আগেকার উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষকতা পেশার কারণে আমি শিক্ষকদের ব্যবহৃত পেশাগত বেদবাক্যটি জানি বলে বর্ণবাদকে গুরুত্ব দেওয়া কোন শ্বেতাঙ্গ খুঁজে পাইনি।

আমি ভেবে পাচ্ছিলাম না অ-শ্বেতাঙ্গ পরিবারগুলিকে কী ধরনের হয়রানি বা চলমান ফুটন্ত ক্ষুদ্র-আগ্রাসন (অথবা সহিংস আগ্রাসন) বছরের পর বছর সহ্য করে যেতে হবে।

এখানে ব্যাপারটা হলো আমার স্ত্রী (সে শক্ত ধাতের)  বা আমার ছোট ছেলের (এবছর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে যে তার সেরা জীবন যাপন করে খুশী) সাথে সহানুভূতি দেখানো নয়।

একটা বর্ণবাদী ঘটনার কথা জানানোর পরেও সঠিক কাজটি করতে ব্যর্থ হওয়ার জন্যে আমি স্কুলটাকে দোষ দিচ্ছি না। এটা একটা পদ্ধতিগত এবং সাংস্কৃতিক সমস্যা যার কারণে সমাজ হিসেবে আমরা ন্যায়বিচার এবং জবাবদিহিতাকে অগ্রাধিকার দিতে বা এমনকি বুঝতে ব্যর্থ হই। পদ্ধতিগত বর্ণবাদের ক্ষেত্রে বিষয়গুলি ঠিক করার জন্যে অধ্যক্ষটির কাছে কোন সরঞ্জাম বা বুঝ, কোন কিছুই নেই।

তাই আমি আরেকটা বর্ণবাদী গণগুলিবর্ষণের পর ব্রিটিশ কলাম্বিয়াস্থ ভিক্টোরিয়ার শ্বেতাঙ্গ সংখ্যাগরিষ্ঠদের আটলান্টায় নিহত নারীদের নামগুলি স্মরণ করার আহ্বান জানাতে চাই।

আমি ভিক্টোরিয়ার জনগণকেও আহ্বান জানাতে চাই আমরা কী ধরনের বর্ণবাদী শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদী – চুরির জমিতে নির্মিত – একটি সমাজে বসবাস করছি এবং প্রায়শই তার সুবিধা নিই সেটা বিবেচনা করার। আমরা কীভাবে কী দেখি, আমরা যা এড়িয়ে যাই এবং উপেক্ষা করি,  আমরা আমাদের দিন পার করার সময় কীভাবে আচরণ করি এবং কীভাবে বিষয়গুলিকে আরো উন্নত করতে সাহায্য করতে পারি, সে ব্যাপারে আমাদের সক্রিয় আগ্রহ থাকা উচিত।

শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ কানাডীয় সংস্কৃতিতে প্রোথিত। নারীবিদ্বেষ কানাডীয় সংস্কৃতিতে প্রোথিত। এই নিপীড়ন আমার মতো লোকদের প্রতিদিনের জীবনযাত্রা বেশ সহজ করে তুললেও অন্য অনেকের জন্যে তা মারাত্মক হতেই পারে।

অভিবাসন, লিঙ্গ, শ্রেণি, পুলিশি ব্যবস্থা এবং সাম্রাজ্যকে যুক্ত করে এশীয় এবং এশীয় মার্কিন ও কানাডীয় যৌনকর্মীদের সংগঠিত করা দু’টি গোষ্ঠী সম্পর্কে জানুন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .