বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ফিলিপাইনে যৌন হয়রানির শিকার হওয়া নারীদের সহায়তা করছে ‘গ্যাবি’ চ্যাটবট

গ্যাবি ফেসবুক পাতা

পরিচিত হয়ে যান ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জার বট গ্যাবি’র সাথে যা ফিলিপাইনে যৌন হয়রানির শিকার হওয়া নারীদের সাহায্য করছে। ফিলিপাইনের নারীদের একটি গ্রুপ গ্যাব্রিয়েলা’র একটি প্রকল্প হচ্ছে গ্যাবি বট।

দেশটিতে ২০১২ সালেই ১৫ থেকে ৪৯ বছর বয়সী শারীরিক এবং যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন প্রায় ১০,০০০ নারী। একই সময়ে পুলিশ প্রয় ২৩,০০০ নারীদের শারিরীক ভাবে আহত করার মামলা নথিভুক্ত করেছে এবং ১,৮৯৭টি ধর্ষনের মামলা হয়েছে। ফিলিপাইন পরিসংখ্যান কর্তৃপক্ষ ২০১৩ সালের এক জরিপে এ তথ্যগুলো তুলে ধরেছে।

গ্যাবি বটের সহায়তায় আক্রান্ত নারীরা নিজেদের উপর হয়ে যাওয়া হয়রানি ও আক্রমনের বিষয়গুলো যাতে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানায় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার সুযোগ আছে বলে মনে করছে গ্যাব্রিয়েলা।

যেভাবে গ্যাবি কাজ করে: যেকোন ব্যক্তি গ্যাবিকে কোন বার্তা পাঠাতে পারেন। বার্তায় তিনি নারী কিংবা পুরুষ নিজেই যৌন হয়রানির শিকার কিনা অথবা যৌন সহিংসতা’র কোন তথ্য জানতে চাইতে পারেন। যে ধরনের তথ্য চাওয়া হয় সে ধরনের সহায়তা মূলক তথ্য দিয়ে সহায়তা করে গ্যাবি। ফিলিপাইনের আইন এবং নারীদের ওপর সহিংসতা বিষয়ক নানা তথ্যাদি তখন শেয়ার করে গ্যাবি।

যদি কোন ব্যবহারকারী নিজের বা পরিচিত কারো হয়রানির বিষয়ে মামলা করতে চান, গ্যাবি তখন নানা ধরনের প্রশ্ন জিজ্ঞেস করে ব্যবহারকারীকে। ঘটনাটি সম্পর্কে সেসব তথ্যাদি একটি নির্দিষ্ট ফরমে যুক্ত করা হয় যা ব্যবহারকারী চাইলে ডাউনলোড করে যেকোন আইনজীবী, মানবাধিকার কর্মী অথবা সরকারি কোন সংস্থায় জমা দিতে পারেন। এছাড়া অভিযোগটি চাইলে গ্যাবিয়েলার কাছেও ফরওয়ার্ড করার সুযোগ রয়েছে।

ফেসবুকের ব্যবহারকারী লাভলী রামোস পরীক্ষামূলক ভাবে বিষয়টি পরীক্ষা করেছেন এবং বেশ শিক্ষামূলক তথ্যাদি পেয়েছেন। নীচে এর বেশ কিছু স্ক্রিনশট দেওয়া হলো যা গ্যাবি’র সাথে আলোচনায় পাওয়া গেছে।

যখন ব্যবহারকারী ঠিক কি ধরনের হয়রানির শিকার হয়েছে সেটি সঠিক ভাবে উল্লেখ করতে পারেন তখন গ্যাবি সে অনুযায়ী সাধারণ তথ্যাদি, সে সংক্রান্ত আইনের বিষয়টি বিস্তারিত তুলে ধরে। ফেসবুক পেজের স্ক্রিণশটটি লাভলি রামোসের কাছ থেকে নেয়া। 

এক ই-মেইল বার্তায় গ্যাব্রিয়েলার জোমস সালভাদর উল্লেখ করেন, কিভাবে গ্যাবি যৌন হয়রানির শিকার নারীদের সহায়তা করছে:

গ্যাবি মূলত একটি ভিন্নধর্মী প্ল্যাটফর্ম যা আক্রান্ত নারীদের যৌন হয়রানির বিষয়টিকে বেনামে গ্যাব্রিয়েলাকে জানাতে সহায়তা করে। গ্যাব্রিয়েলা এক্ষেত্রে সমস্যাটি অনুযায়ী কি ধরনের উদ্যোগ নিতে হতে পারে সে বিষয়টি সম্পর্কে পরামর্শ সহায়তা দিয়ে থাকে…ফেসবুক যেহেতু ফোনে কথা বলা বা সরাসরি কথা বলার চেয়ে বেশ সহজ তাই আমরা ফেসবুকেই এ চ্যাটবটটি চালু করেছি। শুধু পরামর্শই নয়, গ্যাবি অভিযোগের ভিত্তিতে তথ্যগুলো সুন্দর ভাবে নির্দিষ্ট ফরমে লিপিবদ্ধ করতে সহায়তা করে যা আমাদের ছোট আকারের প্রতিষ্ঠান এবং স্বেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে পরিচালনা করে যাচ্ছি।

সালভাদর জানান, গ্যাবি আরো বেশি শিক্ষার্থী এবং তরুন ইন্টারনেট ব্যবহারাকারীদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে:

যদিও গ্যাবি ইতিমধ্যে এক বছর পার করেছে তারপরেও যৌন হয়রানিতে আক্রান্ত নারী এবং সহজে সবার মাঝে হয়রানির বিষয়গুলো এবং নারীদের অধিকার নিশ্চিতের ব্যাপারে কাজ করে যেতে পারে । আমরা আশাবাদী গ্যাবি আরো তরুন নারীদের এ মাধ্যমে যুক্ত করতে পারবে এবং নারীদের মাঝে আরো ছড়িয়ে যেতে পারবে যাতে করে যৌন হয়রানির মতো বিষয়গুলো প্রকাশ্যে আসে এবং ডিজিটাল মিডিয়াতে বিষয়গুলো তুলে ধরা যায়।

২০১৭ সালের নভেম্বরে যাত্রা শুরুর পর থেকেই গ্যাবি’র কার্যক্রম বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে এবং বিভিন্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, টাউন হল এবং ট্রেন স্টেশনে নানা আয়োজনের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে এর কার্যক্রম।

গ্যাব্রিয়েলা ইতিমধ্যে গ্যাবিকে বিভিন্ন ভাষায় সেবা দেয়ার জন্য তৈরি করছে। এখন পর্যন্ত গ্যাবি শুধুমাত্র ইংরেজি ভাষায়ই সহায়তা করতে পারে। এছাড়াও গ্যাব্রিয়েলা পরিকল্পনা করছে ফিলিপিনো নারী শ্রমিক ও কর্মীদের কাছে গ্যাবিকে পরিচিত করে তুলতে:

আমরা যদি গ্যাবি’র কার্যক্রমকে বাড়াতে পারি তাহলে ফিলিপিনোর বিভিন্ন নারী শ্রমিক ও কর্মীদের কাছেও বিষয়টি তুলে ধরতে পারবো বলে আমাদের বিশ্বাস। এতে করে দেশের বাইরে থাকা ফিলিপাইন্সের নারী শ্রমিক, কর্মীরা যৌন হয়রানির মতো বিষয়গুলো সম্পর্কে আরো নানা তথ্যাদি জানতে পারবে।

প্রায় ১ কোটি ২০ লাখের মতো ফিলিপিনো নাগরিক ফিলিপাইন্সের বাইরে কাজ করে।

যদিও যৌন হয়রানি এবং সহিংসতা বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সহায়তা করছে টুলসটি তারপরেও বিষয়টি নিয়ে ব্যক্তিগত তথ্য ও সুরক্ষার বিষয়টি নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। তবে গ্যাবি’র তথ্য অনুযায়ী এটি এমন ভাবে তৈরি করা হয়েছে যা দেশের তথ্য নিরাপত্তা আইন এবং ব্যবহারকারীর তথ্য সুরক্ষার বিষয়টি যুক্ত রয়েছে। কিন্তু গ্যাবি’র ব্যবহারকারীদের তথ্য নিয়ে এখনও ডিজিটাল মাধ্যম হিসেবে ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জার অ্যাপে তথ্য রয়েছে যা সম্পূর্ণ ফেসবুকের নিয়ন্ত্রনাধীন।

ফেসবুকের বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে নানা সময়ে ব্যবহারকারীদের নানা ধরনের ব্যক্তিগত তথ্য বেহাত হওয়ার অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে ফেসবুক তাদের ৫ কোটি অ্যাকাউন্টের তথ্যাদি কারিগরি ত্রুটির কারণে বেহাত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে গ্যাবি’র মতো বিভিন্ন ব্যক্তিগত চ্যাটের বার্তাও রয়েছে। ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে ১৮ লাখ ফিলিপিনো ফেসবুক ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্য ক্যাম্ব্রিজ অ্যানালেটিকা ডেটা বেহাতের মধ্যে ছিল বলে ধারনা করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, ফিলিপাইন্স ন্যাশনাল প্রাইভেসি কমিশন ফেসবুকের কাছে চিঠি লিখেছে এবং ফিলিপিনো ফেসবুক ব্যবহারকারীদের যে ধরনের তথ্যাদি বেহাত হয়েছে সেগুলোর বিস্তারিত জানানোর জন্য  প্রমাণস্বরূপ ব্যাখ্যাও দাবি করেছে।

তারপরেও ফেসবুক এখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো ফিলিপাইন্সেও সবচেয়ে জনপ্রিয় ম্যাসেঞ্জার অ্যাপ। সে দিক দিয়ে নারীদের যৌন হয়রানি ও সহিংসতার বিষয়টিতে সহায়তা করা গ্যাবি বটটি বেশ কার্যকরী বলা যায়। আগামী মাসে দুই বছরে পা দিতে যাচ্ছে গ্যাবি। এখন গ্যাব্রিয়েলার দায়িত্ব বাড়বে যাতে করে ব্যবহারকারীদের ব্যক্তিগত তথ্যাদি আরো বেশি সুরক্ষিত রাখা যায় এবং জনপ্রিয়তা ও আরো বেশি ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছানো যায়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .