বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

রসকমনাদজর প্রধান দাবী করেছেন যে গুগল ও এ্যাপেল তাদের সার্ভার রাশিয়াতে সরিয়ে নিচ্ছে

While some Internet companies, like eBay and Viber, have confirmed they plan to comply with data localization demands, bigger players remain tight-lipped on the matter. Images mixed by Kevin Rothrock.

ইবে ও ভাইবারের মতো কোন কোন ইন্টারনেট কোম্পানী যখন তথ্য স্থানীয়করণ চাহিদা মেনে চলার পরিকল্পনা নিশ্চিত করছে, তখন বড় বড় কোম্পানীগুলো এবিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটে রয়েছে। ছবিগুলোর সংমিশ্রণ করেছেন কেভিন রথরক। 

রাশিয়ার গণমাধ্যমগুলোর নজরদানকারী রসকমনাদজর প্রধান-এর বরাতে বলা হয় পশ্চিমা ইন্টারনেট ও প্রযুক্তির দেবতা গুগল ও আপেল হয়তো ব্যবহারকারীর তথ্য সংরক্ষিত তাদের সার্ভারগুলোর কয়েকটিকে রাশিয়াতে সরিয়ে নেবার কাজ করছে। রুনেট নিয়ন্ত্রকদের প্রধান আলেকজান্ডার ঝারভ বর্তমানে রাশিয়ার রাজধানীতে অনুষ্ঠিতব্য ‘ইন্টারনেট অর্থনীতি’ সম্মেলনের করিডোর এই তথ্যটি সাংবাদিকদের কাছে ফাঁস করে দিয়েছেন, তবে উল্লেখ করেছেন যে এই তথ্যটি ‘অনানুষ্ঠানিক'।

‘ফেসবুক এবং গুগল এখনো আমাদের কাছে কোন উত্তর পাঠায় নি’, তাস (টিএএসএস) তথ্য সংস্থার দ্বারা ঝারভ একথা বলেছেন বলে উদ্ধৃতি দেয়া হয়। ‘তথ্য মোতাবেক, আমরা বলতে পারি অনানুষ্ঠানিকভাবে, আমরা জানি যে গুগল ও আপেল উভয়ই তাদের তথ্যভাণ্ডার রুশ এলাকাগুলোতে স্থানীয়করণ করতে কাজ করে যাচ্ছে।’

ফেসবুক ও টুইটারও তথ্য স্থানীয়করণ নীতি মেনে চলতে কাজ করছে কি না যখন জিজ্ঞাসা করা হলো তখন রসকমনাদজর প্রধানের প্রকাশ করার মতো নতুন আর কিছুই ছিল না। ‘আমি আপনাদেরকে কোন কিছুই বলতে পারব না। সময় যখন আসবে, আমরা সেগুলোকে পরিদর্শন করবো এবং তখন খুঁজে বের করবো’, ঝারভ বলেছেন বলে বলা হয়।

ঝারভের সর্বশেষ দাবীর তেমন গুরুত্ব নেই, কারণ রাশিয়াতে তথ্য স্থানীয়করণ করার বিষয়টি ঘিরে ইতোমধ্যেই একটি দীর্ঘমেয়াদী অনুমান, গুজব, এবং অস্বীকার করার বিষয়টি ঘুরপাক খাচ্ছে। বুকিংডটকম, ইবে, এবং ভাইবারসহ কোন কোন কোম্পানী যখন ব্যবহারকারীর তথ্য সংরক্ষণ চাহিদা মেনে চলতে তাদের পরিকল্পনার কথা নিশ্চিত করেছে, তখন কোন কোন বড় প্রতিষ্ঠানগুলো এবিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটে রয়েছে।

২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে সংবাদ সংস্থা জানায় যে গুগল ইতোমধ্যেই তথ্য স্থানীয়করণ আইন মেনে চলতে রাজী হয়েছে বলে দাবী করা হয়, কিন্তু গুগল পরিবর্তীতে এই দাবীটি অস্বীকার করে এবং গ্লোবাল ভয়েসেসকে বলে যে এই প্রতিবেদনগুলো ‘অশুদ্ধ'।

২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে রুশ মাধ্যম জানায় যে আপেল রাশিয়ার দাবীর কাছে হার মানে এবং ইক্সসেলারেট নামের একটি কোম্পানীর মালিকানাধীন রুশ তথ্য কেন্দ্রে সার্ভারের জায়গা ভাড়া নিতে শুরু করে। এই সময়, ইক্সসেলারেট এবং আপেল উভয়ই মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানায়।

১লা সেপ্টেম্বর ২০১৫ থেকে তথ্য স্থানীয়করণ আইন আরোপ করা হয়েছে যেখানে ইন্টারনেট কোম্পানী এবং পরিষেবাগুলোকে রুশ ব্যবহারকারীদের তথ্য রাশিয়ার অভ্যন্তরে সার্ভারের মধ্যে রাখতে আজ্ঞা করা হয়েছ। যেই ইন্টারনেট পরিষেবাগুলো নতুন আইন মেনে চলবে না তাদেরকে লঙ্ঘনকারীর তালিকাভূক্তি করা হবে এবং রাশিয়ার ইন্টারনেট নজরদানকারী রসকমনাদজার-এর আদেশে তাদেরকে বন্ধও করে দেয়া হতে পারে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .