বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কাজাখস্তান: ব্লগাররা দাবি করেছেন যে বন্যা দুর্গতদের জন্য রাষ্ট্রীয় সাহায্যের অভাব রয়েছে

গত ১১ই মার্চ কাজাখস্তানে মাটির ধ্বসে কয়েক ডজন লোক মারা যাওয়ার পরে, অনেকে ভয় পাচ্ছেন যে দেশের অন্যান্য বাঁধ বিষ্ফোরণ আরো বেশী ক্ষতি করতে পারবে। এই ভীতি বেড়ে যাচ্ছে বেশ উচুঁ মাত্রার অস্বাভাবিক বৃষ্টিসহ লাগাতার আবহাওয়ার গোলযোগের ফলে। ব্লগার শ্রিফটস্টেলার লিখেছেন:

কাজাখস্তানে অনেক পুরানো আর বাতিল বাঁধ আছে যেটা ধ্বংস হতে পারে, বিশেষ করে ইরতিশ নদী অঞ্চলের বাঁধ আর জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র। আক্ষরিক অর্থে সময় খুব কম, তাদেরকে বন্যার সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে।

ইতোমধ্যে কাজাখবাসীরা প্রয়োজনীয় অর্থ আর ত্রাণ সামগ্রী সংগ্রহ করছেন বন্যা আক্রান্তদের জন্য আর সন্দেহ করছেন যে কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করে দূর্যোগের গুরুত্বকে কম করে দেখিয়েছেন। মাকস-কাজাখ লিখেছেন:

তারা দেশে জাতীয় শোক কেন ঘোষণা করছে না? কর্তৃপক্ষের গাফিলতির জন্য কাইজেল-আগাশের দূর্ঘটনা ঘটেছে। হয়ত এই কারনে তারা আসল নিহতের সংখ্যা গোপন করছে?

লুনারিক ট্যাক্সিতে চড়েছিলেন, আর ট্যাক্সিচালক গল্প করেছেন তিনি কিভাবে ‘নুরোটান’ [কাজাখস্তানের শাসক দল] কর্মীদের কাইজেল-আগাশে নিয়ে গিয়েছিলেন:

তিনি একটা লোকের কথা বলেন যে খাবার চাচ্ছিল। সে নিজেকে আর তার ছেলেকে বাঁচাতে পেরেছিল কারন দুর্যোগের ঠিক আগে তারা গ্রাম ছেড়ে চলে গিয়েছিল, আর যখন সে ফিরে আসে, তার বাড়ী ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল, তার ৭০ বছরের বাবা, মা, স্ত্রী আর তিন মেয়ে সবাই মারা গেছে। ট্যাক্সি চালক আরো জানায় যে বন্যা দুর্গতদের জন্য সংগ্রহ করা কাপড়ের কন্টেইনার এখনো খোলা হয়নি, কারন কর্তৃপক্ষের কয়েকজন ঠিক করেন যে এগুলো দেয়ার সঠিক সময় হয়নি- আর সংগ্রহ করা অর্থের গন্তব্যও একই। তিনি আরো বলেন যে কর্তৃপক্ষরা সেনাবাহিনীর বিশেষ ক্যাম্পে রাত্রে থাকেন চুলা নিয়ে, আর যারা বেঁচে গেছেন তাদের অর্ধ ভাঙ্গা বাড়িতে থাকতে হবে…

লর্ড ফেম কাইজেল-আগাশ বিপর্যয়ের উপরে দৃষ্টি রাখছেন:

বিপর্যয়ের পরে, যারা বেঁচে ছিলেন তাদেরকে টেল্ডি-কুরগান পর্যন্ত হেঁটে যেতে হয়েছিল [এলাকার প্রশাসনিক কেন্দ্র]। স্থানীয় কর্তৃপক্ষরা তাদের সাথে দেখা করেন বিমানবন্দরের কাছে। এখন তারা ডর্মিটরি, হোটেল আর এয়ারবেইজে বাস করছেন। কাইজেল-আগাশ থেকে টাল্ডি-কুরগানে ৫০ কিমির কম না। কর্তৃপক্ষ খুবই অকার্যকর ছিল।

সাংবাদিক তিমুর নুসেম্বেক আর সানাত উরনালিভ ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় গিয়েছিলেন। তারা এটা দেখেছেন:

এটা এগেন-সু, অত্র এলাকার একটি গ্রাম যা ১২ই মার্চ এর বাধ বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত। এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে এই মানুষগুলো সভ্যতা থেকে বিচ্যুত। তারা ঘড়া ব্যবহার করে নিজেরা খাদ্য আর পানি আনছে। আমরা যখন ওখানে ছিলাম (১৮ই মার্চ সন্ধ্যা থেকে ১৯শে মার্চ বিকাল পর্যন্ত) দুর্গতদের প্রতি রাষ্ট্রিয় কর্তৃপক্ষ বা সরকারী সাহায্যের কোন কিছু দেখা যায়নি।

রেল স্টেশন

রেল স্টেশন

গ্রাম

গ্রাম

১২ই মার্চ সকাল পর্যন্ত এখানে ক্ষেত ছিল

১২ই মার্চ সকাল পর্যন্ত এখানে ক্ষেত ছিল

পাড়সহ রেললাইনের একটি অংশ ভূমি ধ্বসে মিলিয়ে গেছে

পাড়সহ রেললাইনের একটি অংশ ভূমি ধ্বসে মিলিয়ে গেছে

আদম-কেশের এই সব সাংবাদিকের রিপোর্ট আবার পোস্ট করেছেনথাউজেন্ড-পা মন্তব্য করেছেন:

কর্তৃপক্ষ একই ধরনের ব্যবহার করেন প্রত্যেকবার তারা বিপর্যয়ের সম্মুখীন হন- বেশি জনসংযোগ, কম সাহায্য। মনে হয় সরকারের পক্ষ থেকে কেউ ঠিক করেন যে বিপর্যয়ের স্থানে চকচকে একটা রাস্তা তৈরি করে সেটা টেলিভিশনে দেখান উচিত। আর আক্রান্তরা বাকি সব ঠিক করুক। মানুষ-বিরোধী যুক্তি, আমাদের স্বরাষ্ট্র নীতিতে আরো অনেকের মতো।

এক্স এক্স রক যোগ দিয়েছে:

এই বিপর্যয় কাজাখস্তানের দুর্নীতিগ্রস্ত আর স্থবির ক্ষমতার আর একটি প্রমান।

নেরুয়াদ সংক্ষেপে বলেছে:

এই শীতে ‘কাজাখস্তানের আসল অর্থনৈতিক চমৎকারিত্ব’ দেখা গেছে। আমি পরে একটা পোস্ট লিখব- এখন কেবল খারাপ কথা মাথায় আসছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .