বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মরোক্কোতে ক্রিসমাস

যেহেতু মরোক্কো মূলত: একটা মুসলিম দেশ, এর বেশীরভাগ লোক ক্রিসমাস উদযাপন করেনা। তারপরেও দিনটিতে ছুটির আমেজ পাওয়া যায়, ধন্যবাদ ফরাসী প্রভাব আর বেশ বড় মাপের বিদেশী কমিউনিটির কারনে। এই বছর বিদেশী আর শান্তি রক্ষী ব্লগাররা জানিয়েছেন তারা এই ছুটি কিভাবে কাটিয়েছেন।

এমিলি এন্ড জন ইন মরোক্কো দুইজন শান্তিরক্ষী স্বেচ্ছাসেবীদের ব্লগ যারা ঈদ আর ক্রিসমাস এই বছর উদযাপন করেছে। তারা প্রথম ছুটির দিনটির উপর ছবি আর দ্বিতীয়টি নিয়ে গল্প প্রকাশ করেছে। ক্রিসমাসের জন্য, তারা আমেরিকার লৌকিকতা অনুযায়ী মোজার ঐতিহ্য পালন করেছে তাদেরকে থাকতে দেয়া মরোক্কান পরিবারের সাথে:

দ্বিতীয় ধাপ: মোজা

তাই গতকাল রাত্রে আমরা আমাদের পরিবারকে বলেছি ‘পাপা নোয়েলের’ (সান্তা ক্লস) এর কথা আর আমাদের লৌকিকতা যে জানালার উপরে মোজা ঝোলানোর (এখানে কোন আগুন জ্বালাবার জায়গা নেই)। জন আর আমি দেখালাম পর্দার রডের উপরে আমাদের মোজা রেখে। দুভাগ্যজনক যে আমাদের পরিবার সেটা বুঝতে পারে নি আমরা রাতে শোয়া না পর্যন্ত। মধ্যরাত্রের দিকে আমরা মোজাগুলো সংগ্রহ করে আর বোঝার চেষ্টা করলাম কার কোনটা… যেটা আমরা ভুল করেছি, আমরা মার মোজার সাথে ভাই এর আর দুই বোনেরটাও মিলিয়ে ফেলেছিলাম.. আহ, কিন্তু তা ছাড়া, মোজাগুলো বেশ জনপ্রিয় হয়েছিল।

ফ্রম র‌্যাপ টু ওয়েফট এর ব্লগার, চালান কান্তারা ক্রাফটস (মরোক্কো আর আমেরিকার মধ্যে একটি ফেয়ার ট্রেড বানিজ্য প্রচেষ্টা), এক দলকে বাহবা দিয়েছেন এই প্রচেষ্টার জন্য টাকা তুলতে সাহায্য করায়:

ডিসেম্বর ছুটির মাস ছিল:

ইদ উল আজহা- মুসলিমদের আত্মত্যাগের উৎসব ডিসেম্বর ৮ ( আরো আসছে!)

সোলস্টাইস- ঋতু পরির্বনের জন্য ইকুইনোক্স উদযাপন ডিসেম্বর ২১

হানুক্কাহ- ইহুদিদের আলোক উৎসব ডিসেম্বর ২২-২৯

ক্রিসমাস – খ্রীস্টানদের নবী জিশুর জন্মদিন উদযাপন ডিসেম্বর ২৫

কোয়াঞ্জা- আফ্রিকার হেরিটেজ উদযাপন ডিসেম্বর ২৬ – জানুয়ারি ১

সব ধর্ম বাদ দিলেও আর একটা কারন আছে উদযাপনের। ওবারলিন অল্টারনেটিভ গিফট ফেয়ারে ক্রেতাদের ভালো দানের কারনে কান্তারা ক্রাফটস প্রায় ১২০ মারকিন ডলার তুলতে পেরেছিল মরোক্কোর স্থানীয় শিক্ষা প্রকল্পে অনুদান হিসেবে।

মাই মারাকেশের মারিয়াম নতুন জায়গায় উদযাপিত প্রথম ক্রিসমাসের গল্প বলেছেন: তার পরিবারের নতুন নির্মিত অতিথি বাড়ীতে:

আর এটা ক্রিসমাস ছিল। তাদের প্রথম পিকক প্যাভিলিয়নে। আর যদিও এটা একটা মাইলফলক ছিল, তার আনন্দ তার চারপাশের সব কিছু দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ছিল। না খোলা বাক্স, শুধু সিমেন্ট করা মাটি, আর না গড়ে তোলা বাগান থেকে। শীতকালে হিটিং ছাড়া থাকা জীবন নিয়ে।

সব কিছু যা করা হয়নি।

কিন্তু পিকক প্যাভিলিয়ন নিয়ে তার স্বপ্ন ছিল। মারাক্কেশের মধ্য দিনের সুর্যের তাপে, তখনো এটা পাওয়ার মতো মনে হচ্ছিল। নাগালের মধ্যে মনে হচ্ছিল তখনো। তখনো মনে হচ্ছিল বাঁকের ওই দিকে, বা অন্তত তার পরের বাঁকে।

আর তাই এই ক্রিসমাস সে যা আশা করেছিল তেমন যদি না হয়ে থাকে, তাহলে সব সময়ে পরের ক্রিসমাস আছে। তার বাচ্চারা তখনো বড় হবেনা আর যারা বিশ্বাস করে সান্টা তাদের জন্য তখনো আসল থাকবে।

আর অর্ধেক যুদ্ধ হচ্ছে বিশ্বাস করা।

মারাক্কেশ থেকে আনন্দের ক্রিসমাস আর ভালোবাসা।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .