বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ইকুয়েডরঃ রাষ্ট্রপতি কোড়িয়া ইউরোপ ভ্রমণে সমালোচনা শিকার


১৯শে জানুয়ারী ২০০৮ তারিখে ভ্রমণের সময়ে গুয়ায়েকুইলের জনতার মিছিলে কোড়িয়া চার্লি পেরেজ তুলেছেন আলোকচিত্রটি, ক্রিয়েটিভ কমনস লাইসেন্স-এর আওতায় ব্যবহৃত।

গত সপ্তাহে আমরা জানিয়েছিলাম যে ইকুয়েডরান রাষ্ট্রপতি রাফায়েল কোড়িয়াকে স্পেনে উষ্ণ সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে যা স্পেনের রাজার সাথে তার ভিন্ন ধরণের সম্পর্ক প্রমান করে। এক্ষেত্রে তিনি ভেনেজুয়েলার রাষ্ট্রপতি হুগো শ্যাভেজের পদাঙ্ক আবশ্যিকভাবে অনুসরণ করেন নি। কিন্তু এর পরেও কোড়িয়া সমবেত জনতার বিরূপ সমালোচনা মুখে পড়েন – দৃশ্যতঃ অভিবাসী সম্প্রদায়ের দাবীর প্রতি উদাসীনতা প্রদর্শন ও কলম্বিয়া বিরোধী অবস্থানের জন্য। স্পেনের হাউস অফ দি আমেরিকাস-এ ১৫০০ জনতার এক সভার ঠিক পরে সংগঠিত এক অপ্রীতিকর ঘটনা ভিডিওতে ধারণ করা হয়েছে। জনসম্মুখে একজন ইকুয়েডোরান অভিবাসী কোড়িয়াকে সমালোচনা করেন এই বলে যে রাষ্ট্রপতি অভিবাসী সম্প্রদায়ের দাবীদাওয়ার দিকে কোন মনযোগ দিচ্ছেন না। বেরিয়ে যাবার সময় রাষ্ট্রপতি লোকটিকে বলেন, “আপনার মত গাধার কারণেই সমস্ত ইকুয়েডোরান সম্প্রদায়ের বদনাম হয়”।

এই অপেশাদারী আচরণ ইকুয়েডোরান প্রচারমাধ্যম ও ব্লগার থেকে শুরু করে সংসদেও সমালোচনার ঝর তোলে। মোরোনা সাটিয়াগো রাজ্যের সংসদ সদস্য ডাইয়োনিসিও ক্যানডো (স্পেনিসে) ইকুয়েডোরের একজন সুপরিচিত সাংবাদিক কার্লোস ভেরার একটা নিবন্ধ তুলে ধরেছেন যেখানে কার্লোস প্রশ্নে তুলেছেন অভিবাসীদের অপমানের দায়ে কোড়িয়াকে কে কারারুদ্ধ করবেঃ

La gran mayoría del país resiste todo menos la humillación. El ecuatoriano nunca dejará de ser digno. Ya verán cómo el indigno gesto de un Primer Mandatario es el primer hito en la reversión de un totalitarismo al cual Ecuador no quiere estar sujeto. El déspota lo sabe. Por eso lo desespera “un idiota”. Terminó de caérsele la careta.

দেশের বেশীরভাগ মানুষ অপমান ছাড়া আর সবকিছুই সহ্য করতে পারে। ইকুয়াডোরানরা কখনই তার আত্মাভিমানকে ভুলে যাবে না। টোটালিটারিয়ানিজমের পথে পহেলা পদক্ষেপ হিসাবে রাষ্ট্রপতির এই অশোভন অঙ্গভঙ্গি দেখুন যা ইকুয়েডোর কখনই নিজেদের হতে দিতে চায় না। স্বেচ্ছাচারী শাসনকর্তা এসব বেশ ভালভাবে জানেন। সেজন্য “একজন গাধা”র জন্য তিনি বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। তার মুখোশ স্রেফ খুলে গেছে।

গুয়ায়েকুইলের একটা ব্লগ লা আলহারাকা (স্প্যানিশে) লিখেছে যে মাদ্রিদ, ব্রাসেলস এবং ফ্রান্স ভ্রমণের সময় কোড়িয়া অভিবাসন প্রসঙ্গটি তুলেছিলেন এবং বলেছিলেন যে অভিবাসন অপরাধ হিসাবে পরিগন্য হবে না। পরবর্তীতে কলম্বিয়া প্রসঙ্গটি এসেছে যখন সেদেশের একজন ছাত্র কোড়িয়ার কলম্বিয়া বিরোধী অবস্থানকে সমালোচনা করেন (স্প্যানিসে)

ক্যাম্বিয়ামস ইকুয়েডরের (স্প্যানিসে)
এলেক্স আনাজকো ভিডিও তুলে ধরেছেন এবং মনে করেন যে অন্যদের নাম না ডেকে কোড়িয়া কলাম্বিয়ার উরাইবের নিকট থেকে শিক্ষা গ্রহণ করবেন।

Mientras el país presenta cada vez más índices económicos preocupantes, el Ec. Correa en lugar de alentar y buscar inversiones, cruzó el charco para gruńir, lo contrario de su homólogo Uribe, que a más de recibir propuestas de Bill Gates [tomado de El Federalista] fue a Europa por más inversiones. Pero el muchachito de presidente que tenemos, chabacano y sabroso como él solo, no se lo ocurre mejor cosa que decir ¡Por idiotas como tú! ante la inquietud de un ecuatoriano en el extranjero… que lástima. ¿Alguna constructiva sugerencia?…

যখন দেশটির অর্থনীতির সূচক ক্রমবর্ধিতহারে সমস্যাগ্রস্থ সেসময় কোড়িয়া বিনিয়োগে উৎসাহ প্রদান না করে কিংবা নতুন বিনিয়োগ না খুঁজে অসন্তোষ উৎপন্ন করছেন। অন্যদিকে তার প্রতিদ্বন্দ্বী উরাইব বিল গেটসের (দ্যা ফেডারেলিস্ট সূত্র মতে) বিনিয়োগ প্রস্তাব প্রাপ্তির সাথে সাথে ইউরোপে গিয়েছেন আরো বেশী বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্যে। অথচ আমাদের শিশুতোষ ও অভদ্র রাষ্ট্রপতি “আপনার মত ইডিয়টের কারণে’ ছাড়া আর ভাল কিছু বলতে পারেন না বহিঃবিশ্বে ইকুয়েডোরানদের ….. কি দুঃখজনক। কারো কাছে কি কোন গঠন মূলক পরামর্শ আছে?

কোড়িয়ার জনপ্রিয়তা হারাবার অনেক বিষয়ের মধ্যে এটা একটা মাত্র। দি কনফেডারেশন অব ইনডিজিনিয়াস ন্যাশনালিটিস অব ইকুয়েডর (সিওএনএআইই) কোড়িয়ার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে তার “অব্যাহত ডানপন্থী নিউলিবারেল অর্থনৈতিক ও বর্ণবাদী সামাজিক নীতিমালার” জন্য। এছাড়া ল্যাপটপ আবিষ্কার করেছে সীমান্ত গোলযোগে নিহত ফার্ক গেরিলা নেতা রাউল রিইসের উপস্থিতি এবং কোড়িয়া ও ঐ গ্রুপের সাথে যোগসূত্রতা। অবশ্য কোড়িয়া পদত্যাগের কথা বলেছেন যদি প্রমান করা যায় সরকার বামপন্থী ফার্ককে পৃষ্ঠপোষকতা করেছে।

রাষ্ট্রপতি ও ইকুয়েডোরান অভিবাসীর মধ্যে সংগঠিত অপ্রীতিকর ঘটনাটি দেখুন ইউটিউব ভিডিওতে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .