বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

অনলাইনে উগ্র মতবাদ ছড়ানোর অভিযোগে রাশিয়ায় প্রথমবারের মতো একজনের কারাদণ্ড

Users charged with spreading extremist materials on the RuNet have previously avoided real prison terms. Images mixed by Tetyana Lokot.

রুনেট অঞ্চলে উগ্র মতবাদ ছড়ানোর অভিযোগে একজন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারী কারাদণ্ডের সম্মুখীন হয়েছেন। এর আগে এ ধরনের অভিযোগে কারাদণ্ড হয়নি কারো। ছবি সম্পাদনা টেটিয়ানা লোকট।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উগ্র মতবাদ ছড়ানোর অভিযোগে রাশিয়ার আদালত প্রথমবারের মতো একজনকে কারাদণ্ড দিয়েছে। এর আগে একই ধরনের অভিযোগে অভিযুক্তদের আর্থিক জরিমানা করা হতো। কখনো সাজা দিলেও সেটা স্থগিত হয়ে যেত।

সাইবেরিয়ার সুগাট শহরের একজন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর ক্ষেত্রে সাজা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। আর এই সাজার ফলে তাকে বন্দি শিবিরে একবছর থাকতে হবে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উগ্র মতবাদের জিনিসপত্র ছড়ানোর অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার মিউনিসিপ্যাল আদালত রাশিয়ার অপরাধ আইনের ২৮২ ধারায় তার বিরুদ্ধে এই রায় দেয়। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ওলিগ নভঝেনিন ইউক্রেনের জাতীয়বাদী সংগঠন রাইট সেক্টর এবং উগ্রপন্থী সংগঠন আজভ ভলেন্টিয়ার ব্যাটেলিয়ন-এর অডিও ও ভিডিও ফাইল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ করেছিলেন। উল্লেখ্য, রাশিয়া ইউক্রেনের জাতীয়বাদী সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে।

তবে এবারই কিন্তু প্রথম নয়, এর আগেও রাশিয়ায় উগ্র মতবাদ প্রচারের অভিযোগে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা বিচারের সম্মুখীন হয়েছেন। উগ্র মতবাদকে উস্কে দেয়ার অভিযোগের সাথে সাথে বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা যেমন মিছিল, প্রতিবাদ সমাবেশ করার কারণেও বিচারের সম্মুখীন হয়েছেন। কোনো একটি ছবি’র রিটুইট, ভিকনটাক্টেতে কোনো লেখার পুনর্মুদ্রণ, এমনকি ফ্যাসিবাদ বিরোধী ডোনাল্ড ডাক কার্টুনের কারণেও রাশিয়ার নাগরিকদের ইন্টারনেটে অবাধ প্রবেশিকার বাধাগ্রস্থ হতে পারে।

২৮২ ধারায় উগ্র মতবাদের বিষয়ে যে সংজ্ঞা দেয়া হয়েছে, তাতে বিষয়টি নিয়ে বেশ ধোঁয়াশা রয়ে গেছে। ব্যাপকভাবে সেন্সরশিপ আরোপের জন্য অপরাধ আইনের এই ধারাটিকে ব্যবহার করা হচ্ছে। অন্যান্য নিয়ন্ত্রণমূলক আইনের সাথে এটি থাকার কারণে আদালতে এই ধরনের রায় এসেছে। তবে আগে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কারাদণ্ডের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়ে প্রশাসনিক ব্যবস্থা এবং আর্থিক জরিমানা করতো। কিন্তু এখন সুগাটের আদালত অনলাইনে উগ্রপন্থা ছড়ানোর অভিযোগে কারাদণ্ড দিয়ে একটি নজির স্থাপন করলো।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .