বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

রাশিয়ায় উন্মুক্ত স্থানে ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে চান? সেক্ষেত্রে নিজের পরিচয় প্রদান করুন।

Russia will soon require a passport from those wishing to use public Wi-Fi. Images mixed by author.

রাশিয়ায় যারা সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে ওয়াই-ফাই ব্যবহার করতে ইচ্ছুক, শীঘ্রই তাদের এর জন্য পাসপোর্ট-এর প্রয়োজন হবে। ছবি মিশ্রণ লেখকের।

আগামীতে রাশিয়ার ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা আর সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে নাম পরিচয় লুকিয়ে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে সক্ষম হবে না। সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে ইন্টারনেট ব্যবহার করার জন্য রুশ সরকার ব্যবহারকারীদের পাসপোর্ট অথবা পরিচয়পত্র প্রদর্শন অত্যাবশ্যকীয় করতে যাচ্ছে। ব্যবহারকারীকে ব্যক্তিগত ডাটা এবং তার সাথে যে যন্ত্র ব্যবহার করা হচ্ছে সে বিষয়ে তথ্য প্রদান করতে হবে এবং এর মধ্যে আলাদা আলাদা ম্যাক অ্যাড্রেস অর্ন্তভুক্ত থাকবে। রুশ প্রচার মাধ্যমের সংবাদ অনুসারে, ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ সরকারী অধ্যাদেশে স্বাক্ষর করেছে (সম্পূর্ণ অধ্যাদেশ সরকারি আইনসভার পোর্টালে পাওয়া যাচ্ছে)।

এই অধ্যাদেশ ওয়ারলেস হটস্পটের মালিকদের জন্য বাধ্যতামূলক হবে- যার মধ্যে রয়েছে রেস্তোরাঁ, কফিখানা, লাইব্রেরী–তাদের আইএসপি অ্যাড্রেস এবং সাথে যারা তাদের পাবলিক সংযোগ ব্যবহার করেছে তাদের তালিকা, নাম, একই সাথে ঠিকানা এবং আইডি নাম্বার প্রদান করতে হবে। এই ধরনের তালিকা প্রতি তিন মাস বা এ রকম সময়ের মধ্যে হালনাগাদ করতে হবে।

র‍্যাম্বালার এন্ড কোম্পানির সরকারি সম্পর্ক বিষয়ক পরিচালক, মাতভিয়ে আলেক্সিভ মনে করেন এই অধ্যাদেশ খানিকটা বিস্ময়কর, বিশেষ করে মস্কোর ওয়াই ফাই কাভারেজ-এর কারণে, যেমন-এর উদাহরণ, পার্কের অংশ এবং এমনকি রাস্তায় কারো আসল পরিচয় পাওয়া বেশ কঠিন।

Идентификация пользователя при доступе к Сети через Wi-Fi в общественных местах неосуществима. Только в Москве покрытие открытого Wi-Fi охватывает все парки и места общественного доступа. Не думаю, что все, кто придет в парк Горького, будут показывать свои паспорта.

যখন কেউ সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে ওয়াই-ফাই ইন্টারনেট ব্যবহার করে তখন ব্যবহারকারীর পরিচয় বের করা অসম্ভব। মস্কোয় প্রায় সকল পার্ক এবং জনগণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে ওয়াই-ফাই ইন্টারনেট পাওয়া যায়। আমি মনে করি না যারা গোর্কি পার্কে আসে তারা সকলে তাদের পাসপোর্ট প্রদর্শন করবে।

তাদের ব্যক্তিগত ডাটা সংরক্ষণ করার মানে হচ্ছে সকল ক্যাফে এবং পার্কের লোকেদের অবশ্যই রসোকমান্ডাজোর এর সাথে পার্সোনাল ডাটা অপারেট-এর লাইসেন্স এর আবেদন করতে হবে, আর যদি তারা তা করতে ব্যর্থ হয় তাহলে তাদের জরিমানা প্রদান করতে হবে।

তবে সরকারি কর্মকর্তারা মনে করেন এই অধ্যাদেশ অনেক জরুরী, বিশেষ করে বর্তমানে যখন রাষ্ট্র একটি “তথ্যযুদ্ধের মাঝে পড়ে গেছে”, তখন তা ছদ্মাবরণে থাকা সন্দেহজনক ব্যক্তির সংখ্যা কমিয়ে আনবে। এমনটা বলেছেন দুমার তথ্য রাজনীতি, প্রযুক্তি এবং যোগাযোগ কমিটির প্রথম উপপ্রধান ভাদিম দেনজিন:

Речь идет о безопасности. Идет информационная война. Анонимное подключение к интернету в общественных местах позволяет осуществлять противозаконные действия безнаказанно. Найти нарушителя бывает весьма сложно. Американцы боятся войны, сейчас им лучше всего воевать в информационном пространстве. Они усилили свой холдинг «Голос Америки». Те, кто заинтересован в дестабилизации, пытаются насытить Сеть мошенниками, фашистами и экстремистами. Всё, что связано с интернетом, должно быть идентифицировано.

আমরা নিরাপত্তা নিয়ে কথা বলছি, বর্তমানে এক তথ্য যুদ্ধ চলছে। নাম না প্রকাশ করে উন্মুক্ত স্থানে ইন্টারনেটে যুক্ত হওয়া যে কেউ শাস্তি ছাড়াই যে কোন অন্যায় কর্মকাণ্ড ঘটানোর সুযোগ পেয়ে যায়। এর ফলে দুষ্কৃতিকারীদের খুঁজে বের করা খুবই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকরা যুদ্ধের ভয়ে ভীত, এই মূহুর্তে তাদের জন্য সবচেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে তথ্য বলয়ে যুদ্ধ চালানো। তারা ভয়েস অফ আমেরিকা নামক সংস্থাকে শক্তিশালী করেছে। যারা সরকারের ক্ষমতাকে কমিয়ে আনতে আগ্রহী তারা ওয়েবকে অসৎ, ফ্যাসিস্ট এবং উগ্রবাদী কর্মকাণ্ডে ভরে তোলার চেষ্টা করছে। ইন্টারনেটে সংযুক্ত হওয়া সকল নাগরিককে অবশ্যই পরিচয় প্রদান করতে হবে।

রাশিয়া, যা কিনা প্রাক্তন সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ, সে তার কিছু প্রতিবেশী রাষ্ট্র, যেমন উজবেকিস্তানের পদক্ষেপ অনুসরণ করতে যাচ্ছে, যারা ইতোমধ্যে সর্ব সাধারণের জন্য উন্মুক্ত স্থানে ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য পরিচয় প্রদান অবশ্যক করেছে, এই বাস্তবতায় আমরা কেবল ধারণা করতে পারি যে ক্রেমলিন তার পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য আসলে কি ভাবছে, বিশেষ করে যখন তার কর্মকর্তারা মুক্ত ইন্টারনেটের সম্ভাবনার বিষয়ে ক্রমশ সন্দেহ বাতিকগ্রস্ত হয়ে উঠছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .