বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভারতঃ নেট নাগরিকরা এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়ার প্রতিবাদে সাড়া দিয়েছে

গত মাসে বিশ্বজুড়ে হ্যাকিং-এর জন্য প্রসিদ্ধ এ্যানোনিমাস নামক সংগঠন, ভারত সরকারকে আনুষ্ঠানিক চিঠি বা কমিউনিকে পাঠিয়েছে, যা সম্প্রতি ভারতের আদালতে টরেন্ট এবং ভিমেও -এর মত সাইটসমূহ নিষিদ্ধ করার কারণে। সংগঠনটি ভারতের সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইট সহ বেশ কিছু সাইট হ্যাক করে। এছাড়াও তারা পরবর্তীতে আরো কিছু ভারতীয় ওয়েবসাইট হ্যাক করে এবং ওয়েব ব্যবহারকারীদের জন্য একটি বার্তায় রেখে দেয়, এই বার্তায় ভারতের “ওয়েব সেন্সরশিপের” বিরুদ্ধে ভারতীয় নাগরিকদের ৯ জুন, ২০১২-এ, এক সংগঠিত প্রতিবাদ আয়োজনের আহ্বান জানায়।

সেন্সরশিপ এবং ক্ষমতার অপব্যবহারের কারণে, এ্যানোনিমাস এখন পর্যন্ত বিশ্ব জুড়ে অকুপাই নামক প্রতিবাদের আয়োজন করেছে। এসব আন্দোলনের মধ্য যুক্তরাষ্ট্র অনুষ্ঠিত অকুপাই ওয়াল স্ট্রিট নামক প্রতিবাদ সবচেয়ে জনপ্রিয়।

এই নাটকীয় ইউটিউব ভিডিও ভারতের নাগরিকদের ৯ জুন, ২০১২ তারিখে এক অহিংস প্রতিবাদে অংশ নেবার আহ্বান জানাচ্ছে।

এ্যানোনিমাস পরিচালিত ওয়েবসাইট-এ প্রকাশিত একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে, ১৮টি ফেসবুক কার্যক্রমের মাধ্যমে ভারতের বেশ কয়েকটি শহরের নাগরিকদের এই প্রতিবাদে যোগ দেওয়ার জন্য নিজেদের নাম তালিকাভুক্ত করার আহবান জানানো হয়। এছাড়াও তারা প্রতিবাদ এবং কি ভাবে এ্যানোনিমাস-এর মুখোশ তৈরী করতে হবে সে ব্যাপারে নির্দেশীকা প্রদান করছে। এই বার্তা সবসময় এই ধারনা প্রদান করে যে কোন শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ মানে এই নয় যে তারা কোন অবৈধ কাজ করছে। এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়া নামক সংগঠনটি ভারত সরকারের কাছে এক উন্মুক্ত চিঠি পাঠিয়েছে।

মিডিয়ানামায় নিখিল পাহওয়া মন্তব্য করেছেন:

এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়ার কর্মকাণ্ড কাজে লাগছে। ইন্টারনেট বিষয়ে ভারতে চলা এই ঘটনায় তারা সচেতনতা বৃদ্ধি করছে, সরকারকে আইন সভায় আলোচনায় এবং সেন্সরশিপ আরোপের ক্ষেত্রে, এবং একই সাথে তা অন্যদের অধিকার অপসারণ করার নোটিশ প্রদান এবং জন ডো (মূলত কোন কিছু সৃষ্টিকারীর নাম বিস্মৃত হবার ক্ষেত্রে, এই নাম ব্যবহার করা) নামক আদেশের মাধ্যমে চলচ্চিত্র নির্মাতা এবং কপিরাইটের মালিকদের অধিকার অর্জনে কাজে লেগেছে।

এদিকে, এরপর এ্যানোনিমাস ভারতে এমটিএনএল এর মত আর আরো বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইটে আক্রমণ হানে। উপরের পোস্টে নিখিল একই সাথে চিহ্নিত করেছে ভারতে কোন কিছু সরিয়ে ফেলার যে কার্যক্রম তাতে এ্যানোনিমাসের এই হামলা, হয়ত বিপরীত ফল প্রদান করতে পারে:

ইন্টারনেট স্বাধীনতার জন্য একটিভস্টরা যে সমস্ত কাজ করেছে এই সমস্ত হামলার ফলে, তার অনেক কিছুই হয়ত পণ্ড হয়ে যেতে পারে।
[..]

সাইট ব্লক করার ব্যাপারে একটিভিস্টরা আরো যে সব তথ্য প্রদান করছে, তা কপিরাইটের মালিক এবং আইএসপি প্রতিষ্ঠান সমূহের এই ধরনের কর্মকাণ্ডে ক্ষমতা অপব্যবহারের বিষয় উল্লেখ করে সুনিদৃষ্টভাবে এই মামলার ক্ষেত্রে আদালতের আদেশকে আরো শক্তিশালী করবে এবং একই সাথে তা আইটি আইনের সংশোধনের বিষয়টি উল্লেখ করে। সাইটের দুর্বলতাকে চিহ্নিত করে। কোন সাইটকে অকার্যকর করে ফেলা মানে সেটিকে দুর্বল করে ফেলা।

Anonymous #OpIndia on Twitpicকাফিলায় এক অতিথি লেখক হিসেবে অক্সব্লাড রাফিন (ছদ্মনাম) বলছেঃ

এ্যানোনিমাস গণ সংযোগ-এর জন্য এক মহামারি, যারা এক বাড়াবাড়ি রকমের সমস্যার সৃষ্টিকারী দল। প্রতারণাপূর্ণ কোন দলের দরকার নেই, সংবাদপত্রের জন্য এখন সময় হয়েছে ভিন্নতা সম্পর্কে শিক্ষা লাভ করার।

রাফিন বিস্মিত এই কারণে যে এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়া তার কাজ সমাপ্ত করতে পারবে কিনা:

এর খুব সহজ উত্তর হচ্ছে না। তারা যা বলছে ভারতীয় সরকার তার একটা বাক্যেও শুনবে না। বাস্তবতা হচ্ছে এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়ার কাজের প্রতিক্রিয়া, কর্তৃপক্ষকে আইসিটি আইনকে আরো শক্তিশালী করার কাজে রশদ যোগাচ্ছে। সংবাদপত্রকে এর সাথে যুক্ত করা, ইগোর জন্য ভালো, কিন্তু তা উদ্দেশ্যকে পেছনে ঠেলে দিতে পারে।

এ্যানোনিমাস ইন্ডিয়া এই বিষয়ের উপর গুরুত্ব প্রদান করে রাফিনকে একটা উত্তর প্রদান করেছে, যে রাফিনের মত নাগরিকরা যাতে বিনা বাঁধায় ইন্টারনেটে লিখতে পারে, সে জন্য তারা এই কাজ করছে:

আমরা তাকে প্রশ্ন করতে চাই, এই আন্দোলনের আগে ভারতের কতজন নাগরিক জানতেন যে তারা ইন্টারনেট সেন্সরশিপের শিকার? সরকার আইএসপির মাধ্যমে গোপনে সেন্সরশিপ আরোপ করছে গুগলের কাছে ৪০০-এর বেশী উপাদান ফিল্টার করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। রাফিন বলছে যে আমরা কোনকিছু পাল্টাতে পারব না। আমরা বলছি, আমরা ইতোমধ্যে জনতাকে সরকারের অন্যায় কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে সচেতন করছি, এবং এই বিষয়টি তুলে ধরছি যে আগামীতে এ রকম আরো কিছু ঘটবে।। তারা দেখতে পাবে যে কি ভাবে তাদের দ্বারা নির্বাচিত সরকার, তাদের বাক স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং গোপনীয়তা সেন্সরশিপের নামে তাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিচ্ছে।

এই ঘটনায় ভারতের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক ইন্টারনেট একটিভিস্ট এ্যানোনিমাসের এই আহ্বান শুনেছে এবং সরকারের ক্রমশ বাড়তে থাকা ইন্টারনেট সেন্সরশিপের আরোপের বিরুদ্ধে ভারতের বেশ কয়েকটি শহরে প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে। তরুণ একটিভিস্টরা এ্যানোনিমাসের মুখোশ পড়ে ১৬টি শহরে বিক্ষোভ করে, যার মধ্যে মুম্বাই, পুনে এবং ব্যাঙ্গালুরু (প্রাক্তন ব্যাঙ্গালোর) অর্ন্তভুক্ত ছিল। এই প্রতিবাদে অংশগ্রহণকারীর পরিমান ছিল সংখ্যায় কম। কিন্তু #অপইন্ডিয়া # অকুপাইমুম্বাই, ইত্যাদি হ্যাশট্যাগের মাধ্যমে, তারা টুইটারে তাদের বার্তা ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হয়। এন্যানোমিসানামক দলটি www.cert-in.org.in এবং www.india.gov.in নামক ওয়েবসাইটে আক্রমণ চালায় এবং সেদিন বেশীর ভাগ সময় এই সাইটগুলো কাজ করেনি।

মুম্বাই-এর আজাদ ময়দানে এ রকম এক বিক্ষোভে হয়েজাই উপস্থিত ছিল এবং সে তাঁর অভিজ্ঞতা নিজস্ব ব্লগ পোস্টে তুলে ধরেছে:

আমি ইন্টারনেটে এই এক্ম বিচিত্র সেন্সরশিপের পুরোপুরি বিরুদ্ধে, কাজে আমি এই আন্দোলনকে সমর্থন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি এবং দেখতে যাচ্ছি সেখানে কি ঘটতে যাচ্ছে।[…]

বেশীর ভাগ মানুষের মাথা এবং মস্তিস্ক সঠিক জায়গায় আছে, তারা জানে যে তারা কি করছে এবং তারা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে। [..]

এ্যানোনিমাস এই উদ্যোগ আমি পছন্দ করি কিন্তু সরকারের ওয়েবসাইট অকার্যকর করে রাখাকে সমর্থন করি না। মূলত এর কারণ যতক্ষণ সেগুলো কার্যকর থাকবে, ততক্ষণ আমাদের নাগরিকরা জানবে না যে তাদের এই সমস্ত ওয়েবাসাইট আছে। যদি পারে তাহলে এ্যানোনিমাস দুর্নীতির ঘটনা উন্মোচন করতে এবং দূর করতে সাহায্য করুক। যা আরো বেশী কার্যকর হবে।

এই প্রতিবাদের ছবির জন্য তার পোস্ট দেখুন।

এই ঘটনায় টুইটারের আসা কিছু প্রতিক্রিয়া এখানে পাবেন:

@ উৎকার কোটিয়ান:আরটি @সুপার মারিও, @অকুপাই মুম্বাই, আজাদ ময়দানে ১০০-এর কম নাগরিক উপস্থিত হয়েছে। http://t.co/PjMqLvrc

@মায়েমারিয়াম: # অকুপাই মুম্বাই হয়ত তেমন জোরালোভাবে সফল হয়নি, কিন্তু এখানে সেন্সরশিপ, সরকার, বৈধতা এবং ইন্টারনেট গিকস সম্বন্ধে বেশ কিছু শক্তিশালী মতামত প্রদান করা হয়েছে।

Group snap. #AnonIndia #Mumbai #opIndia on Twitpic

ছবি টুইটপিকের @মাহাফ্রিড-এর মাধ্যমে পাওয়া

@@রেড_ডেভিল:০৫ আরটি@ এমটিভিনয়েজফ্যাক্টরি #অকুপাই মুম্বাইআজাদ ময়দান, বিকেল চারটা @ অকুপাই দিল্লি ইন্ডিয়া, বিকেল পাঁচটা। # অকুপাই কোলকাতা, সাউথ সিটি মল, বিকেল চারটা, # অকুপাইপুনে, শিবাজিনগর বিকেল চারটা।

@ইমেসকিউব: এই পুলিশটা বলল, যদি আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে এখানে জড়ো হয়ে থাকেন…তাহলে আপনাদের প্রতিবাদ কি অনলাইন সম্বন্ধীয় ।#অপইন্ডিয়ার প্রতিবাদ কি নিয়ে তা সে উপলব্ধি করতে পারল না।

@ ইমেসকিউব :খুব জোরে কন্ঠ ছাড়, ইন্টারনেট সেন্সরশিপের বিরুদ্ধে #অপইন্ডিয়া হায়দ্রাবাদ http://t.co/jPrEovoa

এই প্রতিবাদ সম্বন্ধে করা আরো কিছু টুইট এখানে পাবেন

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .