বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

থাইল্যান্ডের বিপর্যস্ত বন্যা পরিস্থিতির মানচিত্র

এই লেখার সময় পর্যন্ত থাইল্যান্ডে দুই মাসের ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে সৃষ্ট বন্যায় ২৫২ জন মারা গেছে। দেশটির রাজধানী ব্যাংককের অনেক জায়গায় ইতোমধ্যে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে

বন্যার পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ আকার ধারন করার প্রেক্ষাপটে বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং নাগরিকদের সে বিষয়ে তথ্য প্রদান করার জন্য বিভিন্ন অনলাইন মানচিত্র স্থাপন করা হয়েছে।

ব্যাংককের বন্যা। ছবি টুইটার খেকে @খুননো-এর সৌজন্যে

ব্যাংককের বন্যা। ছবি টুইটার খেকে @খুননো-এর সৌজন্যে

থাইল্যান্ড বন্যা মানচিত্র ভয়াবহ, জটিল পরিস্থিতি সম্পন্ন এলাকা এবং বন্যা প্রবেশ করেছে এমন এলাকা সমূহকে উল্লেখ করেছে:

Thai Flood Map

থাইল্যান্ডের বন্যা মানচিত্র

নীচে থাই সরকারের থাইল্যান্ডের বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন সিস্টেম:

Thai government flood monitoring

থাই সরকারের বন্যা পর্যবেক্ষন

পানির স্তর পরিমাপক পদ্ধতি বিভিন্ন খাল এবং নদীর পানির প্রবাহের উচ্চতা পর্যবেক্ষন করছে :

Water Measurement System

পানি পরিমাপক পদ্ধতি

হাইওয়ে বিভাগ বন্যায় আক্রান্ত রাস্তা সমূহকে চিহ্নিত করছে। নীচের এই মানচিত্রে লাল গাড়ি মানে সে সব রাস্তা বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে এবং এই সব রাস্তা দিয়ে চলাচল করা অসম্ভব। সবুজ গাড়ি মানে এই সব রাস্তায় বন্যার পানি উঠলেও সাবধানে চলালে এ সব রাস্তা দিয়ে চলাচল করা সম্ভব। আর এখানে নীল লাইন মানে সড়ক বিভাজন।

সরকার বন্যার জন্য ব্রাহমান নামক পানি কমানো প্রার্থনার আয়োজন করেছে। এতে ব্যাংককের বন্যা যাতে দ্রুত কমে যায়, তার জন্য পানির “দেবী কাং কার” প্রার্থনা করা হবে। বন্যা আক্রান্তদের সাহায্যের জন্য দ্রুত হটলাইন নাম্বার অনলাইনে পোস্ট করা হয় এবং রেডক্রস থাইল্যান্ডের বন্যায় সাহায্য করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

রিচার্ড ব্যারো ব্যাংককের পরিস্থিতি বর্ণনা করেছে:

বন্যা প্রতিরোধ বাঁধ থাকা সত্ত্বেও, বাঁধের বাইরের চাও ফারাইয়া নদী, ব্যাংকক নোই খাল এবং মাহা সোয়াত খালের পাশে বাস করা ২৭ টি সম্প্রদায়ের ১,২০০ পরিবার এখনো ঝুঁকির মধ্যে রয়ে গেছে।

আমি মনে করি এই ঘটনায় বিশেষ কিছু এলাকায় স্বল্প সময়ের জন্য বন্যা দেখা দেবে। বন্যা থেকে ব্যাংকক শহরটিকে রক্ষার জন্য তারা অনেক কিছু করেছে। গত বছর আমরা খুব খারাপ পরিস্থিতির শঙ্কা করেছিলাম কিন্তু শেষ পর্যন্ত দেখা গেল পরিস্থিতি ততটা খারাপ হয়নি। নিঃসন্দেহে দেশের বাকী অংশের ক্ষেত্রে কাহিনীটা আলাদা।

বন্যার সময় একটি স্টোরের খালি তাক, ছবি টুইটার ব্যবহারকারী @আইসটিমআইসটিম

বন্যার সময় একটি স্টোরের খালি তাক, ছবি টুইটার ব্যবহারকারী @আইসটিমআইসটিম এর সৌজন্যে

বিগত কয়েকদিনে #থাইফ্লাড নামক টুইটার হ্যাশট্যাগটি সক্রিয় হয়ে উঠেছে :

@টাম্বলার_পি : শুনতে পেলাম যে ব্যাংককের বন্যার পানি বের করে দেবা জন্য যে সব অতিকায় সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়েছিল সেগুলো কাজ করেছে না। দয়া করা আমাকে বলবেন না যে এগুলো মেকি সুড়ঙ্গ..

@ফ্রেকিংক্যাট: কয়েক মাস ধরে প্রবল বর্ষণ হচ্ছে- ব্যাংকক ডুবে যাচ্ছে।

@ব্যাম্বুহাটস:#থাইফ্লাড, থাইল্যান্ডের যারা বন্যার শিকার তাদের পরিবারের জন্য আমাদের গভীর সমবেদনা রইল। আমরা আশা করছি যে শীঘ্রই এই সঙ্কট কেটে যাবে এবং খুব সামান্য পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হবে।

@দিলিলিফিশ: এটা একটা অবিশ্বাস্য বিষয় যে আয়ুত্থায়ার বাসিন্দারা ৩ মিটার পানির নিচে থাকা সত্ত্বেও চাঙ্গা এবং বন্ধুত্বপূর্ণ মনোভার প্রদর্শন করেছে…

পানি যাতে আর বাড়তে না পারে তা জন্য বালির বস্তার বাঁধ।

পানি যাতে আর বাড়তে না পারে তা জন্য বালির বস্তার বাঁধ। ছবি টুইটার ব্যবহারকারী @খুননো-এর।

@আলেকজান্দ্রচুয়া: রিটুইট @ ভি ভ্যানেসা, থাইল্যান্ডের ৭৭ টি প্রদেশের ৫৫ টি বন্যায় আক্রান্ত, আর বাকিগুলো তাদের ভাগ্যের জন্য অপেক্ষা করছে।

@ছাইয়াবেঞ্জ: খোন কায়েনে বন্যার পরিস্থিতি ভয়াবাহ একার ধারন করছে। নাম্পোং নদীর পানি ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

@থাই_ইন্টেল: সংবাদ পাওয়া গেছে যে অনেক শপিং সেন্টারে বিনে পয়সায় গাড়ী রাখার সুযোগ করে দিচ্ছে, যাতে বন্যা আক্রান্ত গাড়ির মালিকরা নিরাপদে গাড়িকে সেখানে রাখতে পারে।

@তুলসাথিত: বন্যা দেশের প্রায় ১,২০০ ফ্যাক্টরিকে আক্রান্ত করেছে, যার ফলে ৪১,০০০ শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সরকার ফ্যাক্টরিগুলোকে বন্ধ রাখতে বলেছে কিন্তু শ্রমিকদের ছাঁটাই করতে মানা করেছে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .