বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

যুক্তরাষ্ট্র: হিস্পানিক জনগোষ্ঠীর মাঝে দারিদ্রের হার বৃদ্ধি

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতি একটা পর্যায়ে এসে স্থবির হয়ে আছে এবং মনে হচ্ছে যেখানে ছিল সেখানে থেকে আর বের হয়ে আসতে পারছে না। অনড় বেকারত্বের হার দেশটির দারিদ্র সীমায় যোগ হচ্ছে, যা দেশটির ৪ কোটি ৬০ লক্ষ মানুষের উপর প্রভাব ফেলছে। সাম্পতিক এক আদমশুমারি থেকে প্রাপ্ত পরিসংখ্যানে অনুসারে তা দেশটির মোট জনসংখ্যার ১৫.১ .শতাংশ। বিশেষজ্ঞরা নিশ্চিত করেছে যে ১৯৯৩ সালের পর দারিদ্রের এটাই সর্বোচ্চ হার।

এই সংখ্যা যে দৃশ্য উন্মোচন করেছে তা মোটেও কোন উৎসাহজনক বিষয় নয়। ২০০৯ সালের পর থেকে গৃহস্থালী বিষয়ক গড় উৎপাদন ২.৩ শতাংশ কমে গেছে। চিকিৎসা বীমা নেই এমন নাগরিকের সংখ্যা এখন ৫ কোটি, আর গত এক বছরে কাজ নেই এমন ১৬ বছর বয়স উর্ধ নাগরিকের সংখ্যা ২০০৯ সালের ৮ কোটি ৩৩ লক্ষ থেকে বেড়ে ৮ কোটি ৬৭ লক্ষে এসে দাঁড়িয়েছে।

Homeless in San Francisco, USA. Image by Son of Groucho (CC BY 2.0).

যুক্তরাষ্ট্রের, সানফ্রান্সিসকোর এক গৃহহীন নাগরিক। ছবি সন অফ গুরুচো-এর (সিসি বাই ২.০)

দুর্ভাগ্যজনক ভাবে, দেশটির সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, বিশেষ করে হিস্পানিক বা স্প্যানিশ ভাষী জনগোষ্ঠী দারিদ্রের এই ছোবল থেকে মুক্ত নয়। ২০০৯ সালে গড়ে একজনের আয়ের হার ৩৯,৬৬৭ ডলার থেকে হ্রাস পেয়ে ৩৭,৭৫৯ ডলারে নেমে যায়, যা নির্দেশ করে যে এই গ্রুপ ১৯৯৯ সালের অর্থনৈতিক মন্দার হাত থেকে নিজেদের বের করে আনতে পারেনি, যা ২০০১ সালে এই পতনের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এই বিষয়টিকে গুরুত্বের সাথে দেখলে, দেখা যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে দারিদ্রের হার ল্যাতিন আমেরিকার অন্যান্য দেশ যেমন আর্জেন্টিনা (৮.১ শতাংশ), চিলি (৯.৮ শতাংশ), উরুগুয়েকে (৬.৩ শতাংশ) ছাড়িয়ে গেছে এবং তা ব্রাজিলের (১৯.৩ শতাংশ)-এর কাছাকাছি এসে পৌঁছেছে। লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অর্থনৈতিক কমিশন ( ইকোনমিক কমিশন ফর ল্যাটিন আমেরিকান এন্ড ক্যারিবিয়ান বা এ্যাকলাক) প্রকাশিত এক রিপোর্টে এই সংবাদ জানা গেছে :
ইউএসএ স্প্যানিয়ল [ স্প্যানিশ ভাষায়] হচ্ছে ক্রিস্টিনা এফ. পেরেদার ব্লগ। তিনি এই হতাশাজনক সংখ্যার উল্লেখ করেন যা হিস্পানিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নকে অস্বীকার করে।

Mientras que la renta per cápita se redujo en 1.2 por ciento para el conjunto de la población, en el caso de los hispanos descendió un 3.5 por ciento entre 2008 y 2009. También empeoró el nivel de ingresos de las familias, que se redujo casi un 8 por ciento, sólo por detrás de las afroamericanas (con un 11.8 por ciento) y en comparación con niveles del año 2000.

যেখানে ২০০৮ থেকে ২০০৯-এর মধ্যে সামগ্রিক ভাবে এই জাতির মাথা পিছু আয় ১.২ শতাংশ কমে গেছে, সেখানে হিস্পানিক জনগোষ্ঠীর মাথা পিছু গড় আয় প্রকৃতপক্ষে কমে ৩.৫ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। এতে পারিবারিক আয় দারুণভাবে প্রভাবিত হয়েছে, যার পরিমাণ কমে প্রায় ৮ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। যদি ২০০০ সালের পর থেকে প্রাপ্ত তথ্যকে এর সাথে যুক্ত করা হয়, তাহলে তা আফ্রিকান –আমেরিকান নারীদের আয়ের (১১.৮ শতাংশ) কাছাকাছি এসে দাঁড়িয়েছে।

জিবি ল্যাটিনো টিভি [স্প্যানিশ ভাষায়] নামক ব্লগে আর্জেন্টিনার এক সাংবাদিকের ভিডিও রিপোর্ট যুক্ত করা হয়েছে, যেখানে এর উপস্থাপক যুক্তরাষ্ট্রের দারিদ্রের হারের পরিমাণ জেনে বিস্মিত। তিনি এই বিষয়ে একটি সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করছেন :

El 15,2% de los estadounidenses vive en la pobreza, lo que se traduce en más de 46 millones de habitantes. Su nivel más alto desde 1993, informó la oficina de censos de ese país.

১৫.২ শাতাংশ মার্কিন নাগরিক দারিদ্রের মধ্যে বাস করে। যার অর্থ হচ্ছে ৪ কোটি ৬০ লক্ষ বাসিন্দা দারিদ্র সীমায় পতিত হয়েছে। ১৯৯৩ সালের পর দারিদ্র সীমার এটাই সর্বোচ্চ হার, যা জাতীয় আদমশুমারির তথ্য থেকে পাওয়া গেছে।

ইমিগ্রেন্ট টিভি [স্প্যানিশ ভাষায়] একই পরিসংখ্যান প্রদান করার পাশাপাশি, ধারনা প্রদান করছে যে ওবামা প্রশাসন দেশের প্রকৃত অর্থনৈতিক অবস্থার চিত্র তুলে ধরছে না:

Esta es otra situación muy negativa, sobre todo cuando el presidente acaba de presentar un plan de empleo con el cual se espera darle un estímulo a la economía.

এটা খুব একটা অনুকূল পরিস্থিতি নয়, বিশেষ করে যখন রাষ্ট্রপতি দেশের অর্থনৈতিক গতি বৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি প্রদান করে কর্ম সংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে এক পরিকল্পনা প্রদান করার পর, এই ধরনের ঘটনা ঘটে।

টুইটার ব্যবহারকারীরা জনসংখ্যা বিষয়ক এই ধরনের ফলাফল আশা করেনি। পিভি মার্কেটিং (@পিভিএমকেটি) [স্প্যানিশ ভাষায়] একটি ভিডিও প্রদর্শন করছে :

Video que habla de que uno de cada cuatro #hispanos en EU, son pobres. http://goo.gl/bKMkX

এই ভিডিও বলছে যে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি ৪ জন হিস্পানিক ( #হিস্পানোস) নাগরিকের মধ্যে ১ জন গরীব। (#hispanos)http://goo.gl/bKMkX [স্প্যানিশ ভাষায়]

মেরিডিথ ডডসন (@ডডসনএ্যাডভোকেট) [স্প্যানিশ ভাষায়] অস্বস্তিকর পরিসংখ্যানে তেমন একটা বিস্মিত নয়:

Alarmante, pero no del todo 🙁 RT @alexcawthornedc: tasas de pobreza para negros e hispanos (>27%) más de 2 veces q los blancos #povertydata#Census

আশঙ্কাজনক, কিন্তু তার সবটাই নয় 🙁 আরটি @এ্যালেক্সক্যাথোরনেড): নিগ্রো এবং হিস্পানিক জনগোষ্ঠীর মধ্যে দারিদ্রের হার (২৭ শতাংশের চেয়ে কম) দেশটির শ্বেতাঙ্গ জনগোষ্ঠীর প্রায় দ্বিগুণ। #প্রোভার্টি, #সেনসাশ

হিস্পানিক জনগোষ্ঠীর শিশুদের মধ্যে দারিদ্রের হার দেখে কারমেন অর্টিজ-ম্যাকঘি (@অর্টিজম্যাকঘি) বিস্ময়ে হতবাক:

Hispanos=37 por ciento de los niños en pobreza según un nuevo reporte del censo…espeluznante!

নতুন আদমশুমারি থেকে প্রাপ্ত এক তথ্য অনুসারে হিস্পানিক জাতির ৩৭ শতাংশ শিশু দারিদ্র…এ যে মাথার চুল খাড়া করে দেবার মত বিষয়

এ্যালেক্স গুয়েরেরো (@ভাজলা২২) [স্পানিশ ভাষায়] তার টুইটে প্রথম বাক্যে এইসব বিষয় উপস্থাপন করছে :

Inaceptable: 15% de estadounidenses viven en pobreza. Entre los latinos el % es 26.1% = 1 de cada 4 >> http://1.usa.gov/pCOqCe#latism

বিষয়টি মোটে গ্রহণযোগ্য নয়: যুক্তরাষ্ট্রের ১৫ শতাংশ নাগরিক দারিদ্রের মধ্যে বাস করে। ল্যাটিনোদের ( স্প্যানিশভাষী জনগোষ্ঠী) মধ্যে এই হার ২৬ শতাংশ, এই জনগোষ্ঠীর প্রতি চারজনের মাঝে একজন দারিদ্রের মধ্যে বাস করছে>> http://1.usa.gov/pCOqCe #ল্যাটিইজম

উপসংহারে, এলিন সি. রিভেরার (@এলিনসিরিভেরার) কাছে আদমশুমারির এই ফলাফল, দেশটির সংখ্যালঘুদের অবস্থানের আরেকটি খারাপ দৃষ্টান্ত প্রদান করল:

Más malas noticias del reporte del Censo: tasa de pobreza para hispanos se disparó al 26.6 por ciento, para los negros aumentó a un 27.4 por ciento. http://wapo.st/nF4sMS

আদমশুমারিতে আরো খারাপ সংবাদ রয়েছে; হিস্পানিকদের ক্ষেত্রে দারিদ্রের হার বেড়ে ২৬.৬ শতাংশ এবং নিগ্রোদের ক্ষেত্রে বেড়ে ২৭.৪ শতাংশে এসে দাঁড়িয়েছে। http://wapo.st/nF4sMS

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .