বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

ভারত: মেয়েরা একদিন খেলতে এবং নাচতে পারে

ইনডিয়া আনহার্ড ভারতের দুটি ভিন্ন অঞ্চলের ভিন্ন উৎসবের ছবি আমাদের প্রদর্শন করছে যেখানে আদিবাসী সম্প্রদায়ের বিবাহিত মহিলার কেবল একদিনের জন্য কোন ধরনের বিধি নিষেধের বেড়াজাল না ডিঙ্গিয়ে প্রকাশ্যে খেলাধুলা করতে এবং নাচতে পারে।


কেরেলার ঐতিহ্যবাহী ভারতীয় নাচ ছবি স্টিভ কক্সের, সিসি বাই

আদিবাসী উৎসবে নারীত্বকে উদযাপন (ট্রাইবাল ফেস্টিভেল সেলিব্রেট ফেমিনিটি) শিরোনামে লেখায় দেবিদাস গোয়ানকার ব্যাখ্যা করেছে কি ভাবে পিতৃতান্ত্রিক কাঠামো এখনো অনেক আদিবাসী সমাজে টিকে থাকার কারণে। খুব কম অনুষ্ঠানে মেয়েরা তাদের গৃহস্থালী এবং ঘরের দায়িত্ব বাদ দিয়ে সেখানে উপস্থিত থাকতে পারে এবং এই সব উৎসব তাদের একসাথে হবার এবং আনন্দ করার জন্য এক সুযোগ। লেখক বড় হয়েছেন তার মা এবং বোনদের এই দিনটাকে উপভোগ করতে দেখার মধ্যে দিয়ে এবং তিনি উপলব্ধি করছেন যেভাবে পুরুষদের এই ধরনের অনুষ্ঠান উপভোগ করতে দেওয়া হয় সেভাবে মেয়েদের অনুষ্ঠান উপভোগ করতে দেওয়ার সুযোগ তৈরি করে দেওয়া কতটা গুরত্বপূর্ণ ।

নীচের এই ভিডিওটি তুলেছেন দেবিদাস গোয়ানকার। এটি ধিল্লো নামক উৎসবের ছবি প্রদর্শন করছে, যা গোয়াও প্রদেশের কোটিগায় দিপাবলীর একদিন আগে অনুষ্ঠিত হয়:

‘ধিল্লো হচ্ছে একটি প্রতীকের নাম যা মাটি বা গোবর দিয়ে তৈরি করা হয়। নারীরা তাদের বিগ্রহের প্রতীক হিসেবে এটিকে তৈরি করে; এটি গ্রামের মন্দ (এমন একটি জায়গা যেখানে উৎসবটি পালন করা হয়) নামক স্থানে রাখা হয়। সে স্থানে মেয়েরা ঐতিহ্যবাহী নাচ নাচে, যা ‘থেল’ (খেলা) নামে পরিচিত।

মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা, ইনডিয়া আনহার্ড-এর ভিডিও স্বেচ্ছাসেবক, ঠিক একই রকম একটি দিনের কথা বলছেন যেদিন গ্রামেরা নারীরা নাচতে এবং মজা করতে পারে:

এই ভিডিও সংবাদদাতা রোহিনী মহারাষ্ট্রের এক গ্রামে বাস করে। সেখানে নারীদের পুরুষদের চেয়ে নিচু শ্রেণীর মানুষ হিসেবে গণ্য করা হয়। কাজেই পুরুষেরা যা চায় তাই করতে পারে, কিন্তু নারীদের চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে এমনকি যদি তারা ঘর থেকে বাইরে যেতে চায় তাহলে তাহলে তার পরিবারে সদস্যদের কাছ থেকে বিশেষ অনুমতি নিতে হবে। তারা প্রকাশ্যে গান গাইতে, নাচতে বা খেলতে পারবে না। যারা এ রকম কাজ করবে, তাদের এমন ভাবে দেখা হবে যে এই সমস্ত নারীরা তাদের নৈতিক অবস্থান হারিয়েছে। তবে বছরে একবার নাগ পঞ্চমীর দিন তাদের উপর এই প্রতিবন্ধকতা উঠিয়ে নেওয়া হয় এবং আশা করা হয় এই দিন তারা নাচবে এবং খেলবে।

ইনডিয়া আনহার্ড এক সম্প্রদায়গত সংবাদ সেবা প্রদান করে, যা ভিডিও ভলান্টিয়ার নামক প্রতিষ্ঠানটি চালু করেছে: এটি এমন এক সংগঠন, যা সম্প্রদায়ের সদস্যদের সংবাদদাতা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রশিক্ষণ প্রদান করে, যারা সংখ্যালঘুত্বের বা প্রান্তিক সম্প্রদায়ের অন্যান্যতার গল্প, ভিডিও, এসএমএসের মাধ্যমে সংবাদ প্রদান এবং অন্য কোন সামাজিক মাধ্যমের উপাদান ব্যবহার করে উপস্থাপন করতে পারে।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .