বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

চীনদেশ: ব্লগ করা মানে স্বপ্ন দেখা

দক্ষিন চীনের গুয়াঙঝো শহরে বসবাসরত দুই আমেরিকান প্রায় এক বছর লম্বা ব্লগিং সফরের পরিকল্পনা করছেন যা তাদের চায়নার মুল ভূখন্ডের ২২টি প্রদেশের সবকটিতে নিয়ে যাবে। এই সফরে তারা বিভিন্ন পরোপকারী কাজের জন্যে অর্থসংগ্রহ করবেন, চাইনিজ ছাত্রদের পশ্চিমা দেশগুলোতে পড়তে যাওয়ার জন্যে স্কলারশীপ যোগার করে দেবেন এবং পার্ল নদীর বদ্বীপের ক্যান্সারের রুগীদের জন্য (যেখানে এরুপ রুগীর সংখ্যা বেশী) অর্থসংগ্রহ করবেন।

লনি বি হজ, আমেরিকার এই দুই প্রাক্তন সৈনিকের মধ্যে বড়, ন্যাশনাল এনডোমেন্ট অফ আর্টস পদক প্রাপ্ত এবং এশিয়ায় গত দুই দশক ধরে বসবাস করছেন। ২০০৪ সাল থেকে তার ওয়ান ম্যান ব্যান্ডউইডথ ব্লগটির মাধ্যমে তিনি চীনদেশের ইংরেজী ব্লগিং কমিউনিটিতে একটি গুরুত্বপুর্ন ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি শুধু সেরা ব্লগার এবং সেরা ছবির প্রতিযোগিতাই আয়োজন করেননি সারা দেশ জুড়ে চ্যারিটির উদ্যোগ নিয়েছেন। এছাড়াও রয়েছে তার বানিজ্য সংক্রান্ত কলাম, জীবনযাত্রা নিয়ে লেখা (একটি পিএইচডি অর্জন) এবং একজন শিক্ষক এবং বানিজ্যিক পরামর্শদাতা হিসেবে বর্তমান চীনে জীবন কেমন হতে পারে তার দর্শনক্যান্সার, সেন্সরশীপ, ক্যম্পাসে দুর্নীতি ইত্যাদি বিবিধ বিষয়ে রয়েছে তার লেখার পদচারনা।

ওয়ান ম্যান ব্যান্ডউইডথ ব্লগের গত বছর সবচেয়ে উল্লেখিত টপিক ছিল ক্যান্সার। হজ কয়েকজন ক্যন্সারাক্রান্ত মহিলার জীবন অনুসরন করেছেন (তিনি তাদের নাম দিয়েছেন দ্যা লীগ অফ এক্স্ট্রাঅর্ডিনারী চায়নীজ উইমেন) এবং ব্রেস্ট ক্যান্সার নিয়ে তাদের কষ্টের কথা লিখেছেন বিশ্বকে জানানোর জন্যে। এরা একসময় পাঁচজন ছিলেন, এখন বেঁচে আছেন একজন। তার আসে পাশের সবাই মারা যাচ্ছে এবং হজেরও আর বেশীদিন নেই

এবং এভাবেই পেলেন অনুপ্রেরনা ম্যাকাউ ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজীর শিক্ষক হজ এবং তার সহকর্মী ডেভিড ডিজিস্ট এই নতুন উদ্যোগের – “দ্যা ড্রিমব্লগ: ট্রাভেলিং চায়না ফর চ্যারিটি এন্ড আন্ডারস্ট্যান্ডিং“।

এই দুজনের প্রথম ভ্রমন হচ্ছে আগামী ১৫ই আগস্টে তিব্বতে এবং পরবর্তী ভ্রমনের তথ্য অচিরেই জানানো হবে। এই নতুন ব্লগের একটি সাম্প্রতিক পোস্টে এশিয়া পাঠাগার প্রকল্প নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এনিয়ে গতসপ্তাহে তোলা একটি ছোট ভিডিও দেখুন নীচে:

হজ এবং ডিজিস্ট এর মানুষের স্বপ্ন পূরনের প্রথম পদক্ষেপ হচ্ছে পাঠকদের আমন্ত্রন জানানো তাদের স্বপ্নগুলোকে এই ব্লগে পোস্ট করার জন্যে:

ড্রিমব্লগের পাঠকরা এবং এর কর্পোরেট স্পন্সররা এই ব্লগে পোস্ট করা কিছু স্বপ্ন পূরনে ইতিমধ্যে সাহায্য করছে। আপনারা কিভাবে সাহায্য করতে পারেন তা জানার জন্যে আমাদের হেল্প পাতাটি দেখতে পারেন এবং দয়া করে আমাদের চীনদেশ জুড়ে ভ্রমনপর্বটি অনুসরন করেন। এই সাইটটি থেকে পাওয়া সকল বিজ্ঞাপনের আয় সেইসমস্ত চাইনিজ এবং আমেরিকান লোকদের জন্যে ব্যায় করা হবে যাদের স্বপ্নের বাস্তবায়ন স্বাস্থ্য বা সামাজিক কারনে পিছিয়ে গেছে।

এবং বেশ কিছু স্বপ্ন ইতিমধ্যেই এসেছে:

টিডিগার্ডেনের স্বপ্ন:
প্রতিটি শিশুরই একটি বই থাকবে যা তারা জড়িয়ে ধরতে পারবে, সঙ্গে রাখতে পারবে এবং নিয়ে যেতে পারবে তাদের এক নিজস্ব স্বপ্নের জগতে।

হেইলভিক্টের স্বপ্ন:
এমন একজন হওয়া যে প্রতিদিনই উল্লেখযোগ্য কিছু করে।

এমএমহালিমের স্বপ্ন:
চীনদেশ ভ্রমন। আমি ধারনা করতে পারিনা কি বিশাল ব্যবস্থা এইদেশের এতসব মানুষকে সংগঠিত করতে পারে এবং একই সাথে এরা বিশ্বের অন্যতম সেরা দেশ হতে পারে।

তাইতাইয়ের স্বপ্ন:
আমার এখনকার সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন স্বপ্ন হচ্ছে আমার শাশুরীর ফুসফুসে বেড়ে যাওয়া মাংষপিন্ডটিতে ক্যান্সার না পাওয়া যাওয়া। এটি করতে পারলেই হবে, ধন্যবাদ।

কেভিনের স্বপ্ন:
আমি আশা করব ‘ব্লগ অফ ড্রিমস’ প্রকল্পটি সাফল্যমন্ডিত হবে।

রক্সি কোপল্যান্ডের স্বপ্ন:
একজন পিয়ানিস্ট এবং গায়ক হিসেবে বিশ্ব ভ্রমন করা।

- জন কেনেডি

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .