বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

· জানুয়ারি, 2011

গল্পগুলো আরও জানুন মধ্য এশিয়া-ককেশাস মাস জানুয়ারি, 2011

পোস্টটি পড়ুন

কাজাখস্তান: ওএসসিই শীর্ষ বৈঠকের গুঞ্জন

  23 জানুয়ারি 2011

২০০০ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে কাজাখস্তান চেষ্টা চালিয়ে অবশেষে সুযোগ পেয়েছে ইউরোপের সহোযোগিতা আর নিরাপত্তা সংস্থার (ওএসসিই) এর সভাপতিত্ব করার। কাজাখ কর্তৃপক্ষ এই সভাপতিত্বকে মূলত সম্মানজনক একটা হাতিয়ার হিসাবে দেখছেন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তার ভাবমূর্তি বাড়ানোর জন্য।

পোস্টটি পড়ুন

আর্মেনিয়া: পুলিশ ইমোসকে লক্ষ্যবস্তু করেছে

  17 জানুয়ারি 2011

যদিও আর্মেনিয়া তুলনামূলক রক্ষণশীল এবং ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির এক দেশ, তারপরে সেখানে সংবাদে প্রকাশ যে পুলিশ, ইমোসকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করেছে। ইমোস হচ্ছে গতানুগতিক বিষন্নতায় ভুগতে থাকা বিশেষ গোষ্ঠী বা সাব-কালচার, বিশেষ করে কিশোর কিশোরীদের দলের সাথে যুক্ত সঙ্গীতের ধারা। এই ঘটনা অনেক খোলা মনের ব্লগার এবং ফেসবুক ব্যবহারকারীর ভেতরে শঙ্কা এবং ক্ষোভের সঞ্চার করেছে।

পোস্টটি পড়ুন

আফগানিস্তান: কাবুলে ইরান সরকারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

  14 জানুয়ারি 2011

বৃহস্পতিবার আফগানিস্তানের নাগরিকরা কাবুলে অবস্থিত ইরানি দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। আফগানিস্তান, ইরানে বাস করা আফগান অভিবাসী এবং শরণার্থীর প্রতি ইরানের দুর্ব্যবহারের বিরুদ্ধে, এছাড়াও আফগানিস্তান, তার উপর ইরান আরোপিত তেল নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে।

পোস্টটি পড়ুন

আর্মেনিয়া ও জর্জিয়া… এবং টুইটারে বড়দিন

  13 জানুয়ারি 2011

যখন পশ্চিমা বিশ্বে ২৫ ডিসেম্বর বড়দিন পালন করা হয়, তখন অন্যান্য অনেক এলাকায় জানুয়ারীর প্রথম সপ্তাহে বড়দিন পালন করা হয়ে থাকে। তবে আর্মেনিয়ায়, এমনকি টুইটারেও এই বড়দিন একটি ধারায় পরিণত হয়েছে।

কাজাখস্তান: ব্লগাররা ধর্ম নিয়ে আলোচনা করছে

  6 জানুয়ারি 2011

যেহেতু কাজাখস্তানের কোন সুনির্দিষ্ট ধর্মীয় নীতি নেই, কাজেই সেখানে এটাই প্রথা যে, সকলে তাদের নিজস্ব ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে ধর্ম পালন করতে পারে। এখন থেকে কুড়ি বছর আগে হিসেবটা অনেকটা এই রকম ছিল, এই বহুমাত্রিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কেউ মাথা ঘামাত না, যার প্রমাণ হচ্ছে ধর্ম এবং ঐতিহ্য নিয়ে বিতর্ক, সম্প্রতি যা ব্লগোস্ফিয়ারে ছড়িয়ে পড়েছে।