বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

সবুজ তালিকা: পরিবেশ রক্ষায় এশীয় স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র

ফিলিপাইনের নুয়েভা ভিজকাইয়ার একটি খনির কার্যক্রম। “দাগামি দেতয়” (এটি আমাদের ভূমি) চলচ্চিত্রের পর্দাছবি। সূত্র: সিনেমাতা

এই তালিকাটি এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় সামাজিক ও পরিবেশগত চলচ্চিত্রের মঞ্চ সিনেমাতা থেকে নেওয়া হয়েছে। এটি একটি অলাভজনক মিডিয়া, প্রযুক্তি ও সংস্কৃতি সংগঠন এনগেজমিডিয়ার একটি প্রকল্প। এটি বিষয়বস্তু ভাগাভাগি করে নেওয়ার চুক্তির অংশ হিসাবে গ্লোবাল ভয়েসেসে সম্পাদিত এবং পুনঃপ্রকাশিত।

৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে অলাভজনক মিডিয়া, প্রযুক্তি ও সংস্কৃতি সংগঠন এনগেজমিডিয়া এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল জুড়ে সম্প্রদায়গুলি কীভাবে পরিবেশের অবক্ষয়, শিল্পায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে তাদের জমি সংরক্ষণ ও সুরক্ষার জন্যে লড়াই করছে তা নিয়ে তথ্যচিত্র এবং স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রগুলির একটি বাছাইকৃত তালিকা তৈরি করেছে। নতুন আপলোড ও সংরক্ষিত চলচিত্রগুলির মিশ্রণ সমৃদ্ধ সিনেমাতার এই চলচ্চিত্রগুলি ফিলিপাইনের নুয়েভা ভিজকাইয়া (“দাগামি দেতয়“) এবং ভিয়েতনামের নাম দিন প্রদেশের (“আরো একটি পলায়ন“) থেকে আমাদেরকে মালয়েশিয়ার সারাওয়াকের (“মেলিকিন“) অঞ্চল এবং মিয়ানমারের তাউঙ্গি’ (“প্লাস্টিক আমাদের চেয়ে দীর্ঘায়ু“) অঞ্চলে নিয়ে যায়।

তালিকাটিতে পুরস্কারপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রগুলির মধ্যে “দাগামি দেতয়” (ফিলিপাইনের বিকল্প চলচ্চিত্রের জন্যে গাওয়াদ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভিডিও বিভাগে ২০২০ সালের বিজয়ী),  “আনাক পোকক” (জঙ্গলের চলচ্চিত্র, এসএক্সএসডাব্লু কমিউনিটি স্ক্রিনিং) এবং রাফকাট প্রডাকসন্স এর “ক্যায়সে জিবো রে!” (১৯৯৭ সালে আমস্টারডামের আন্তর্জাতিক তথ্যচিত্র চলচ্চিত্র উৎসবের বিজয়ী) রয়েছে।

ফিলিপাইন: দাগামি দেতয় (এটা আমাদের ভূমি)

এটা আমাদের ভূমি”-তে ফিলিপিনো চলচ্চিত্র নির্মাতা ননি আবাও ইতিহাস লিখেছেন যে কীভাবে উত্তর ফিলিপাইনের নুয়েভা ভিজকাইয়ার স্থানীয় আদিবাসী সম্প্রদায়ের জনগণ পৃথিবীর অন্যতম বৃহত্তম সোনা ও তামা উৎপাদনকারী ওসেনাগোল্ডকে বন্ধ করে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বছরের পর বছর ধরে পরিবেশ অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এই তথ্যচিত্রটি ফিলিপাইনের বিকল্প চলচ্চিত্রের জন্যে গাওয়াদ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের ভিডিও বিভাগে ২০২০ সালের গ্র্যান্ড পুরস্কার এবং ২০২০ সালে ইয়েল পরিবেশ ৩৬০ ভিডিও প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয় স্থান লাভ করেছে। আবাওয়ের চিত্রগ্রহণ শেষ হওয়ার পরে পুলিশ ও কোম্পানির প্রতিনিধিদের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত সড়ক অবরোধ তৈরি করা কয়েকজন সক্রিয় কর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে।

`

মালয়েশিয়া: দোয়া সেওরাং নেলায়ান (একজন জেলের প্রার্থনা)

জাকারিয়া ইসমাইল বিশ্বাস করে যে সহকর্মী উপকূলীয় জেলেদের রক্ষা করার জন্যে তার ঐশ্বরিক প্রার্থনা দক্ষিণ পেনাংয়ের একটি জমি পুনরুদ্ধার প্রকল্পে সাড়ে ৪ হাজার একর পুনরুদ্ধারকৃত জমির নিচে তাদের মৎস্যভূমির তলিয়ে যাওয়ার হুমকি থেকে রক্ষা করেছে। তিনি এবং তার গ্রামের অন্যান্য সদস্যদের নাম দেওয়া হয়েছে বি৪০ অর্থাৎ নিন্ম ৪০ শতাংশ মালয়েশীয় পরিবার যাদের মাসিক আয় ৩,৯০০ রিঙ্গিত (প্রায় ৮০ হাজার টাকা)) বা এর নীচে। শ্রেণি সংগ্রাম, আধুনিক ও ঐতিহ্যবাহী মূল্যবোধগুলির মধ্যে টানাপোড়েন এবং রাজনৈতিক নেতাদের ম্যাকিয়াভেলীয় (দ্বৈত নৈতিকতার) হস্তক্ষেপের এই গল্পে জাকারিয়া নতুন মালয়েশিয়ায় পরিচালিত সবচেয়ে উচ্চাভিলাষী প্রকল্পের মধ্যে একটির বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর জন্যে জ্ঞান ও সাহস পেতে তার ঈশ্বরের মুখাপেক্ষী হয়।

ইন্দোনেশিয়া: ধরিত্রী মাতা (ইবু বুমি)

কেন্দ্রীয় জাভার কেন্দেং পর্বতমালার উর্বর অঞ্চলে বসবাসকারী ২০ বছর বয়সী কৃষক বাগুস তার অঞ্চলের পরিবেশগত ক্ষতি নিয়ে উদ্বিগ্ন। বাগুস তার পাঙ্ক ব্যান্ডদল কেন্দেং স্কোয়াডের সাথে মিলে এই উদ্বেগটি প্রকাশ করে। প্রকৃতি এবং ঘটে যাওয়া ধ্বংসের শব্দগুলি রেকর্ড করতে তিনি একটি ভিডিও ক্লিপ “বেরানী বার্তানি” (চাষাবাদের সাহস) তৈরি করেন। বাগুস আশা করেন এই সংগীতটি তরুণ প্রজন্মকে প্রকৃতি রক্ষা করতে অনুপ্রেরণা জোগাতে পারে।

ভিয়েতনাম: আরো একটি পলায়ন

ভিয়েতনামের একটি মাৎস্য গ্রাম জোয়ার-ভাঁটার টানে ঢেউগুলি তীরে ভেঙ্গে পড়ার সময় কাকভোরের প্রার্থনার ফিসফিস শব্দে জেগে ওঠে। পুরানো প্রজন্মের জেলেরা চুপচাপ পুরানো সুদিনের স্মরণ করে উদ্বেগ নিয়ে অনাগত দিনে কী হয় তার জন্যে অপেক্ষা করছে। প্রতি ৫০ বা ৬০ বছরের মধ্যে গণস্থানান্তর সম্পর্কে তারা জানে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে তাদের উপকূল থেকে আরো দূরে সরে যেতে হবে। একসময়ের সমৃদ্ধ পাড়াগুলি দরিদ্র জেলেদের গ্রামে পরিণত হবে। সমুদ্রের জল উর্বর শস্যক্ষেত্র এবং ফলের বাগানগুলি ধ্বংস করে দেবে। “আরো একটি পলায়ন” ভিয়েতনামি চলচ্চিত্র নির্মাতা লে নুয়েনের একটি স্বল্পদৈর্ঘ্য তথ্যচিত্র।

মিয়ানমার: বিহীন

খরা আক্রান্ত মিয়ানমারের বিভিন্ন অঞ্চলে জল সরবরাহ বাড়ানোর জন্যে মিয়ানমার কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে তদবির করতে প্রচারণার এই চলচ্চিত্রটি ব্যবহৃত হয়েছে। মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনে অনুষ্ঠিত পিকচার পিপল আয়োজিত পরিবর্তনের জন্যে দৃশ্যমান গল্পবলার কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীরা ২০১৬ সালে এই চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করেছে।

ইন্দোনেশিয়া: দৈত্যের মুখোমুখি দায়াক

ইন্দোনেশিয়ার অব্যাহত শিল্পায়ন তার আদিবাসীদের বিপন্ন, ব্যাপক পরিবেশগত ধ্বংস এবং সামাজিক সংঘাত সৃষ্টি করছে। এই তথ্যচিত্রটি কালিমান্তানের দায়াক আদিবাসী জনগণকে অনুসরণ করেছে, এসব হুমকির বিষয়ে বিশেষত এই অঞ্চলে বনের আগুন এবং বিষাক্ত ধোঁয়ার প্রতি তাদের প্রতিক্রিয়া জানার জন্যে।

মালয়েশিয়া: মেলিকিন

এটা মেলিকিন অঞ্চলের গল্প। বরণীয় দ্বীপের সারাওয়াকের অনেক আদিবাসীর গল্প, যারা পাম তেল কোম্পানিগুলির কাছে তাদের আদিভূমি হারিয়েছে। দুর্নীতিবাজ রাজনীতিবিদদের সহায়তায় আদিবাসীদের তাদের নিজস্ব পৈতৃক জমিতে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে বেড়া দিয়ে প্রায় ১০,০০০ হেক্টর (প্রায় ২৫ হাজার একর) বন ও কৃষিজমি সমতল করে ফেলা হয়েছে।

কম্বোডিয়া: বন সংরক্ষণ: আদিবাসী নারীদের একটি বার্তা

“জলবায়ু পরিবর্তন একটি বাস্তবতা। এর বিরূপ প্রভাব হ্রাস করার জন্যে আমাদের যে বন সংরক্ষণ করতে হবে, তাতে কোন সন্দেহ নেই। এই ভিডিওটিতে বন বলতে কম্বোডিয়ার কৌ আদিবাসীদের কাছে কী বোঝায় এবং আদিবাসী নারীরা কীভাবে বন সংরক্ষণের নেতৃত্ব দিচ্ছে তাদের নারী ও পুরুষদের সে সম্পর্কে আরো জানাতে দেখা গেছে।”

মিয়ানমার: প্লাস্টিক আমাদের চেয়ে দীর্ঘায়ু

সরকারি এই পরিষেবা ঘোষণাটির (পিএসএ) উদ্দেশ্য হলো মিয়ানমারের তাউঙ্গি অঞ্চলের অধিবাসীদের প্লাস্টিক পুনর্ব্যবহার পদ্ধতিগুলিতে পরিবর্তন আনতে প্রভাবিত করা। ২০১৯ সালের অক্টোবরে মিয়ানমারের তাউঙ্গিতে সামাজিক পরিবর্তনের জন্যে পিকচার পিপলের দৃশ্যমান গল্পবলার কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীরা এই চলচ্চিত্র তৈরি করেছে। তাউঙ্গি মিয়ানমারের শান প্রদেশের রাজধানী, ৪,৭১২ ফুট উচ্চতায় থাজি-কিয়াংটন সড়কে অবস্থিত।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .