বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

লাল সমুদ্র: চীনা নববর্ষ উদযাপন

তাইওয়ানের বড় মাতসু মন্দিরে ধূপ সহযোগে প্রার্থনা। ফিলিপ নুবেলের ছবি।

তাইওয়ানের বড় মাতসু মন্দিরে(大 天 后宮) ধূপ সহযোগে প্রার্থনা। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

চৈনিক কৃষি ঐতিহ্য অনুযায়ী চীনা নববর্ষ হ'ল একটি ছুটির দিন যা শীতের দীর্ঘ মাসগুলোর সমাপ্তিকে উদযাপন করে। ২৪শে জানুয়ারী ২০২০ এর মধ্যরাতে শুরু হওয়া চৈনিক চন্দ্র নববর্ষ পালন বেশ কয়েক দিন ধরে চলবে চিনা বলয়ের দেশগুলোতে। সারা বিশ্বের চৈনিক মানুষেরা “শুকরের বছর” থেকে “ইঁদুরের বছরে” পদার্পণকে পালন করছে।

প্রতি বছর চৈনিক নববর্ষ উদযাপনের তারিখ পরিবর্তিত হয় কারণ এটি চন্দ্রসূর্য দিনপঞ্জি অনুযায়ী নির্ধারিত হয়। জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারির মাঝে যেইদিন নতুন চাঁদ ওঠে, সেইদিনকে নববর্ষ হিসেবে ঘোষিত হয়। এ কারণেই পূর্ব এশিয়ার বহু সংস্কৃতিতে এটিকে বিভিন্ন নামে বর্ণনা করা হয় এবং বিভিন্নভাবে এটি উদযাপিত হয়।

তবে এই নববর্ষ উদযাপনের একটি নাম সর্বত্র, বিশেষ করে চীনে ব্যবহৃত হয় — সেটা হ'ল বসন্ত উৎসব (春节)। ভিয়েতনামবাসিরা টেট শব্দটি ব্যবহার করে (যার অর্থ ভোজ এবং এটি পুরো নাম টেট নুয়েন দান বা ‘প্রথম দিনের প্রথম সকালের ভোজ’)। তিব্বতীয় সংস্কৃতি এটিকে লোসার হিসাবে আখ্যায়িত করে (যা আক্ষরিক অর্থ নববর্ষ)। চন্দ্র নববর্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে তাইওয়ান, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর এবং সারা বিশ্বের চৈনিক প্রবাসী সদস্যদের দ্বারা উদযাপিত হয়।

তাইওয়ানের তাইনান শহরে একটি ফানুশে আঁকা 春 অক্ষরটি যার অর্থ বসন্ত (উৎসব)। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

লালের শক্তি: দৈত্য তাড়ানোর একটি কার্যকর উপায়

চাইনিজ নববর্ষের পূর্বে এবং উৎসবের সময়ে মানুষের পোশাক, দরজা, ঘর, মন্দির এবং দোকান,অথবা ইচ্ছা কার্ডগুলি লাল রঙে রাঙ্গানো হয়।

তাইওয়ানের তাইনানে নতুন বছরের গৃহসজ্জা বিক্রি হচ্ছে রাস্তার ধারের বাজারে। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

এই উদযাপনটির সূচনা হয়েছিল একটি পৌরাণিক কিংবদন্তীর কাহিনী থেকে, যেখানে ভবিষ্যদ্বাণী করা হয়েছে যে নিয়ান নামক একটি দৈত্য গ্রামবাসীদের আক্রমণ করবে এবং খেয়ে ফেলবে — যতক্ষণ না লাল রঙের পোশাক পরা একজন বৃদ্ধ ঘোষণা দেন যে তিনি রাতে আতশবাজি ফাটিয়ে গ্রামটিকে রক্ষা করবেন। সেই দানব আতশবাজির আওয়াজে ভয় পেয়ে দুরে চলে যাবে। তাই লাল পোশাক পরার এবং রঙটি প্রদর্শন করার পাশাপাশি পূর্ববর্তী বছরের সমস্ত ‘নেতিবাচক শক্তি’ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য আতশবাজি ব্যবহার করা, এইভাবে এটি শুভ উপায়ে নতুন বছরকে বরণ করার একটি রীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তাইওয়ানের তাইনানে দোকানে প্রদর্শিত নতুন বছরের পোশাক। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

চীনা রাশিফল

চীনা ঐতিহ্যে, প্রতিটি বছর নির্ধারিত ১২টি প্রতীকী প্রাণীর মধ্যে একটি প্রতিনিধিত্ব করে। ২০২০ সালের নববর্ষ শূকরবর্ষ থেকে ইঁদুরবছরে উত্তরণকে চিহ্নিত করে, যা এই ১২-বছরের চক্রের প্রথম প্রাণী।

চৈনিক ভাষায় ব্যবহৃত 鼠 (শু) শব্দটি ধেড়ে ইঁদুর বা নেংটি ইঁদুরের মধ্যে পার্থক্য করে না, ফলস্বরূপ এই বছরের অনেকগুলি সজ্জায় লাল রঙের পোশাক পরা সুন্দর ছোট ইঁদুরের দেখা মেলে।

তাইওয়ানের তাইানানে লাল রঙা ইঁদুর আঁকা লণ্ঠন। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

একই রাশিচক্র – এবং এর সম্পর্কিত প্রতীকী প্রাণী গুলি জাপান, কোরিয়া, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া এবং থাইল্যান্ডেও বহুল ব্যবহৃত হয়।

তাইওয়ানের তাইনানে রাস্তার সজ্জা। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি সহ ব্যবহৃত।

পারিবারিক নৈশভোজ এবং মন্দির দর্শন

নববর্ষের উদযাপনের কেন্দ্রবিন্দু হ'ল পারিবারিক নৈশভোজ। এর জন্যে প্রজন্ম ধরে সমস্ত পরিবারের সদস্যরা দুর দূরান্ত থেকে ছুটির সময় এসে একসাথে হয়ে এক খাবার টেবিলে জড়ো হয়। পরিবেশিত খাবার ভৌগলিক এবং স্থানীয় খাবারের রীতি অনুসারে পরিবর্তিত হয়। উত্তর চীনে এটি সাধারণত ডাম্পলিং হয় যা জিয়াওজি নামে পরিচিত। দক্ষিণাঞ্চলীয় চীনা সংস্কৃতিতে থাকবে নানগাও নামে একটি আঠালো নতুন বছরের কেক। এখানে উত্তর চীনের ঐতিহ্যবাহী কয়েকটি জনপ্রিয় খাবার রয়েছে:

নতুন বছর শুরু হওয়ার কয়েক ঘন্টা আগে পরিবারগুলি স্থানীয় মন্দিরে যায় এবং নিজেদের সমৃদ্ধি, সুস্বাস্থ্য এবং ব্যবসা বা পরীক্ষায় সাফল্যের জন্য প্রার্থনা করে। পরের দুই সপ্তাহে তাদের আরও অনেক ধরনের আচার ও প্রার্থনা থাকে, যার মধ্যে আত্মীয়দের বাসায় যাওয়া এবং পাড়া বেড়ানো উল্লেখযোগ্য।

তাইওয়ানের তাইানানে মধ্যরাতের ঠিক আগে মন্দির দর্শন। ফিলিপ নুবেলের ছবি, অনুমতি নিয়ে ব্যবহৃত।

চৈনিক রাশিচক্র অনুসারে, প্রতিটি প্রাণী প্রতীক হিসাবে বর্ণনা করে বছরের পরবর্তী অংশে কি প্রত্যাশা করা যেতে পারে। এবং যদি কেউ চৈনিক রাশিফলকে বিশ্বাস করে, তবে ২০২০ সালটি আকর্ষণীয় হওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয়: “ইঁদুর চীনা রাশিচক্রের অন্যতম শুভ লক্ষণঃ একটি অত্যন্ত অনুভবক্ষম প্রাণী হিসাবে সে আশেপাশের পরিবেশ অনুধাবন করতে পারে এবং সেই অনুযায়ী তার প্রভাব ফেলে”।

হংকংয়ের বাসিন্দা এক ভূতত্ত্বের মাস্টার প্রতিটি রাশিচক্রের প্রতীকের জন্য বিশদ পূর্বাভাস দিয়েছেন: “এটি আসলে মহাবিশ্বের আইন এবং প্রবাহকে খুঁজে পাবার বিষয়। আপনি কীভাবে এটি গণনা করতে পারবেন তা জানার পরে, আপনি সমস্ত কিছুর প্রবণতার পূর্বাভাস দিতে পারেন।”

যাই হোক, 新年 快樂! শুভ নববর্ষ!

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .