বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

২০১৭ সালের গ্লোবাল ভয়েসেস সামিট কলম্বো, শ্রীলঙ্কা হতেঃ ইনটু দি ডিপ নামের পডকাস্ট থেকে

গত বছরের ডিসেম্বর মাসে শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোর হোটেল মাউন্ট লাভেনিয়া হোটেলের খেলাধুলার জন্য বিশেষ ভাবে সজ্জিত এক কামার ভেতরে শব্দ ধারণ করার কিছু সামান্য যন্ত্রপাতি নিয়ে গ্লোবাল ভয়েসেস-এর দশ জন কন্ট্রিবিউটর যখন আন্তর্জাতিক বন্ধুত্ব, ভিন্ন রাষ্ট্রের সংস্কৃতির মাঝে সহযোগিতা এবং সম্প্রদায়ের মূল্যবোধ নিয়ে আলোচনায় যখন মেতে উঠেছিলো, তখন বাইরে চলছিল ক্রান্তীয় ঝড় আর কান পাতলে শোনা যাচ্ছিল তার গর্জন করছিল।

প্রচার মাধ্যম, সম্প্রদায়, এবং স্বয়ং গ্লোবাল ভয়েসেস নামে সংগঠনের ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনার জন্য গ্লোবাল ভয়েসেস-এর দ্বি বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে মাউন্ট লাভেনিয়া হোটেলে একত্রিত হয়েছিল বিশ্বের ৬০টি দেশের লেখক, অনুবাদক এবং সম্পাদকেরা।

ইন টু দি ডিপ হচ্ছে গ্লোবাল ভয়েসেস-এর পডকাস্ট, যেখানে আমার একটি বিষয় নিয়ে গভীর ভাবে আলোচনা করি যা প্রয়োজন অনুসারে প্রচার মাধ্যমের মনোযোগ আকর্ষণ করতে পারে না।। আর এই পডকাস্টে আমরা আপনাদের সাম্প্রতিক অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া গ্লোবাল ভয়েসেস সম্মেলনের এক ঝলক শোনাবো।

গ্লোবাল ভয়েসেস হচ্ছে আন্তর্জাতিক সংগঠন ও তাদের কর্মীদের নিয়ে গড়ে ওঠা এক নেটওয়ার্ক যেখানে মনযোগী, একাগ্র নাগরিকেরা ট্যাব হাতে নিয়ে অনলাইনে যুক্ত হয়, অত্র অঞ্চলে কী ঘটছে সে সম্বন্ধে আলোচনার জন্য। এই সংগঠনের কন্ট্রিবিউটর ১৭৬ দেশের কাহিনী তুলে ধরে যাদের বেশীর ভাগই স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করে এবং এরপর এই সকল সংবাদ ৩০টির বেশী ভাষায় অনুবাদ করা হয়। একসাথে, আমরা আত্মোপলব্ধির এক সেতু নির্মাণ করি, বিশেষ করে আমরা তাদের আহ্বান জানাই এখানে কাজ করার জন্য, যদিও আমাদের এই ডিজিটাল সংবাদ মাধ্যমের যাত্রা শুরু হয়েছে ২০০৫ সালে।

এই পর্বে, আমরা ফ্রি মিউজক আর্কাইভ থেকে ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স কিছু মিউজিক তুলে ধরেছি, যার মধ্যে রয়েছে কেভিন ম্যাকলেওড-এর রাইট অফ প্যাসেজ, কোয়াসি মোসান এবং টিকোপিয়া

এই প্রবন্ধে ফিচার ইমেজ হিসেবে ফারিস আদামের তোলা সেলফি ব্যবহার করা হয়েছে যা কলম্বোয় অনুষ্ঠিত গ্লোবাল ভয়েসেস সামিটের সময়-এর সময় তোলা হয়।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .