বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

নেট-নাগরিক প্রতিবেদন: রাজনৈতিক বিষয়বস্তুর জন্যে চীনা ও ইন্দোনেশীয় কর্তৃপক্ষের হুমকির মুখে হোয়াটসঅ্যাপ-টেলিগ্রাম অ্যাপ

পাখির ঝাঁক। উইকিমিডিয়ার মাধ্যমে ক্রিস্টোফার এ রাসমুসেনের ছবি। পাবলিক ডোমেইন লাইসেন্স।

গ্লোবাল ভয়েসেস এডভোকেসির নেট-নাগরিক প্রতিবেদন বিশ্বজুড়ে ইন্টারনেটের অধিকারগুলির চ্যালেঞ্জ, জয়লাভ ও উদীয়মান প্রবণতার একটি সংক্ষিপ্ত আন্তর্জাতিক চিত্র প্রদান করে।

১৫ জুলাই “ইন্দোনেশীয়দেরকে জঙ্গি গোষ্ঠীতে নিযুক্ত করতে এবং ঘৃণা ও হামলা চালানোর বিভিন্ন পদ্ধতি ছড়িয়ে দিতে” এটা ব্যবহার করা হচ্ছে বলে যুক্তি দেখিয়ে ইন্দোনেশিয়ার যোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় নিরাপদ মেসেজিং এপ্লিকেশন টেলিগ্রামকে নিষিদ্ধ করার হুমকি দিয়েছে।

আংশিক পদক্ষেপ হিসেবে সরকার ইতোমধ্যে টেলিগ্রামের ওয়েব সংস্করণ প্রদান করা ১১টি ইউআরএল (ইউনিফর্ম রিসোর্স লোকেটর – যা মূলতঃ নথির স্বকীয় বৈশ্বিক ঠিকানা)-এ প্রবেশাধিকার অবরুদ্ধ করে দিয়েছে। এর প্রতিক্রিয়ায় টেলিগ্রাম তার প্ল্যাটফর্ম থেকে “সন্ত্রাসী” বিষয়বস্তু অপসারণের প্রচেষ্টাকে দ্বিগুণ করার অংশ হিসেবে ইন্দোনেশিয়ায় নেটওয়ার্কগুলি নজরদারি এবং যত দ্রুত সম্ভব এই ধরনের সামগ্রী সরিয়ে দেওয়ার জন্যে মধ্যস্থতাকারীদের একটি দল  গঠন করেছে।

একেবারে নিষিদ্ধ হয়ে যাওয়ার চেয়ে টেলিগ্রাম বরং এই সমাধান পছন্দ করে থাকতে পারে। তবে কোম্পানিটির সম্ভাব্য বেশি বেশি সম্মতি আইনসম্মত কথাবার্তার উপর সেন্সরশিপের সম্ভাবনা বৃদ্ধি করতে পারে।

১৮ জুলাই তারিখে চীনের নোবেল বিজয়ী লিউ জিয়াবোর শেষকৃত্য সম্পন্ন হওয়ার পর চীনে ফেসবুকের জনপ্রিয় বার্তাবাহী অ্যাপ্লিকেশন  হোয়াটসঅ্যাপ অবরুদ্ধ করা হয়েছে। ২০০৯ সালে চীনের গণতান্ত্রিক সংস্কারের আহবান জানানো ঘোষণাপত্র চার্টার ০৮ এর মাধ্যমে “রাষ্ট্র ক্ষমতার বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাত কে উস্কে দেওয়ার” অপরাধে বিশ্বখ্যাত গণতন্ত্রের এই প্রচারককে ১১ বছরের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছিল এবং তিনি ১৫ জুলাই তারিখে লিভার ক্যান্সারে মৃত্যুবরণ করেন।

লিউ-এর মৃত্যুর পর সোশাল মিডিয়ার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের উপর সেন্সরশিপের একটি নতুন তরঙ্গ সৃষ্টি করেছে, যা উইচ্যাট এবং সিনা ওয়েইবোতে কথোপকথনকেও প্রভাবিত করছে। মৃত্যুর আগে উইচ্যাটে লিউ-এর আলোচনা সংবেদনশীল বিষয়গুলো স্পর্শ না করা পর্যন্ত চালিয়ে যেতে দেয়া হয়েছিল। তার মৃত্যুর পর তার নামের সামান্যতম উল্লেখ থাকা একক চ্যাটগুলোতে পাঠানো সব ছবিসহ সব বার্তা ব্লক করা হয়েছে। এই সপ্তাহ পর্যন্ত হোয়াটসঅ্যাপই ছিল দেশে প্রবেশাধিকারযোগ্য একমাত্র ফেসবুক অ্যাপ্লিকেশন পণ্য।

তুরস্ক কোন অভিযোগ ছাড়াই মানবাধিকার সুরক্ষাকর্মীদের আটক করে রেখেছে

৫ জুলাই তারিখে ইস্তাম্বুলে একটি ডিজিটাল নিরাপত্তা এবং তথ্য ব্যবস্থাপনা কর্মশালায় অংশ নেওয়ার সময় গ্রেপ্তারকৃত  ১০জন মানবাধিকার সুরক্ষাকর্মী ১৮ জুলাই তারিখে একজন বিচা্রকের কাছ থেকে একটি প্রাথমিক রায় পেয়েছে। সুরক্ষাকর্মীদের চারজন জামিনে মুক্তি পেয়েছে আর অবশিষ্ট ছয়জনকে তাদের অপরাধ মূল্যায়ন করা পর্যন্ত প্রাক-বিচার আটক থাকতে হবে। কর্তৃপক্ষ অভিযোগের সমর্থনে কোনও প্রমাণ না দিলেও “সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীকে সহায়তা করেছে” বলে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে এবং তারা আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত কিনা তা স্পষ্ট নয়। তাদের মুক্তির আহ্বান জানিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ইথিওপিয়ার প্রতিরোধ সঙ্গীতশিল্পীরা গ্রেপ্তার ও সেন্সরের সম্মুখীন

ইথিওপীয় কর্তৃপক্ষ এখন সঙ্গীতশিল্পীদের উপর অভিযান চালাচ্ছে।  কয়েক সপ্তাহ আগে সাতজন প্রযোজক এবং একজন জনপ্রিয় ইউটিউব ভিডিওর অভিনেতাকে গ্রেপ্তার করে গত সপ্তাহে তাদের বিরুদ্ধে সঙ্গীত ভিডিও তৈরি ও ‘ইউটিউবে তাদের আপলোড’ করার জন্যে সন্ত্রাসের অভিযোগ আনা হয়েছে। সম্প্রতি অভিযুক্তদের মধ্যে একজন হলেন রাজধানী আদ্দিস আবাবাকে অরোমো অঞ্চলে প্রসারিত করার সরকারী পরিকল্পনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ আন্দোলনের সাউন্ডট্র্যাক প্রদানকারী এবং তাদের অনুপ্রেরণার একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস হয়ে ওঠা সুপরিচিত গায়ক সিন্না সলোমনের মতো সঙ্গীতশিল্পী। পরিকল্পনাটির ফলে ব্যাপকভাবে বিক্ষোভ এবং ২০১৪-২০১৬ পর্যন্ত একটি সহিংস দমন অভিযান সংঘটিত হয়। সলোমনের কারাদণ্ড হলেও ইউটিউবে সেটা ক্রমেই বিস্তৃতি লাভ করছে।

কাতারের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রতি “সহানুভূতি দেখানোর” জন্যে আমিরাতে আরেকজন গ্রেপ্তার

কাতারের  সামাজিক গণযোগাযোগ মাধ্যমের প্রতি সহানুভূতি দেখানোর কারণে একজন আমিরাতি নাগরিককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাতারের অবরোধের সময় আমিরাতি নাগরিকদের কাতারের ভাইদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর আহ্বান জানিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করার পর ঘনিম আবদুল্লাহ মাতারকে আটক করা হয়। কাতারের প্রতি সহানুভূতির কোনও প্রদর্শন সংযুক্ত আরব আমিরাতে অপরাধ, যার জন্যে ১৫ বছরের কারাদণ্ড এবং ১৩,৫০০ ডলার (প্রায় ১০লক্ষ ৯০হাজার বাংলাদেশী টাকা) পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। গ্রেপ্তারের পর থেকে মাতারের অবস্থান অজানা রয়ে গেছে।

বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি আইনে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে রেকর্ডসংখ্যক মামলা

বিতর্কিত তথ্য ও যোগাযোগ আইন আইনে বিগত চার মাসে বাংলাদেশে আইন ও শৃংখলা “ব্যাহত”, “রাষ্ট্র বা ব্যক্তির সুনাম ক্ষুণ্ন করা”, বা “ধর্মীয় বিশ্বাসে আঘাত” বিশজনেরও বেশি সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে, যা ডিজিটাল বার্তাগুলিকে বাধাগ্রস্ত করছে। যে 57 ধারাতেই এসব মামলা দায়ের করা হয়েছে তা আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মে মাসে বিলোপের অঙ্গীকার করলেও এ পর্যন্ত এর তেমন কোন অগ্রগতি দেখানো হয়নি। ২০১৩ সালে সংশোধিত হওয়ার পর থেকে এই আইনে প্রায় ৭০০টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

চীন জাতিগত সংখ্যালঘু অঞ্চলে নাগরিকদের মোবাইলে নজরদারী সফটওয়্যার চালু করতে বাধ্য করছে

১০ জুলাই তারিখে উরুমকি শহরের তিয়ানশান জেলার মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা জিংওয়াং (অথবা “ওয়েব পরিষ্কারক”) নামের একটি নজরদারি অ্যাপ্লিকেশন ইনস্টল করার নির্দেশ সম্বলিত জেলা সরকারের একটি মোবাইল ফোন বিজ্ঞপ্তি পেয়েছে। পুলিশ থেকে পাওয়া বিজ্ঞতিটিতে বলা হয়েছে অ্যাপ্লিকেশনটি সন্ত্রাসীদের ভিডিও, ছবি, ইবুক এবং নথিসহ “অবৈধ ধর্মীয়” কার্যকলাপ এবং “ক্ষতিকারক তথ্য”-এর  উৎস ও বিতরণ পথ সনাক্ত ও অনুসরন করবে। অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে, অ্যাপ্লিকেশনটি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের পাসওয়ার্ডের প্রয়োজনীয়তা প্রত্যাখ্যান করে কোনও বাঁধা ছাড়াই কম্পিউটারের হার্ড ডিস্কে প্রবেশ করতে পারে

ভারতে ফেসবুক পত্রিকার এ্যাকাউন্টগুলো অবরোধ করেছে

কোন কারণ স্পষ্ট না করেই গত দুই মাসে ফেসবুক কর্তৃক অবরুদ্ধ হয়েছে  দু’টি ভারতীয় সংবাদপত্র। প্রথমটি বার্তা ভারতীকে জুন ও জুলাই মাস মিলে দুইবার এবং দ্বিতীয়টি কাশ্মির ইঙ্ককে জঙ্গি কমান্ডার বুরহান ওয়ানির প্রচ্ছদ ছবি পোস্ট করার পর জুলাই মাসে ব্লক করা হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়া কি যুক্তরাষ্ট্রের প্রযুক্তিদৈত্যদের নিরাপত্তা মানকে দুর্বল করার ক্ষেত্রে শক্তিশালী হতে পারে?

অস্ট্রেলীয় সরকার একটি নতুন সাইবার নিরাপত্তা আইন প্রস্তাব করেছে যা ফেইসবুক ও গুগলকে সরকারী সংস্থাগুলোকে সংকেতায়িত বার্তাগুলিতে প্রবেশাধিকার দিতে বাধ্য করবে। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী ম্যালকম টার্নবুল বলেছেন যে এই আইনটি যুক্তরাজ্যের তদন্তকারী ক্ষমতা আইনের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হবে যাতে অস্ট্রেলিয়ার সরকারকে ব্যাপক নজরদারি ক্ষমতা পায় এবং তদন্তের ক্ষেত্রে সংস্থাগুলো তাদেরকে “যথাযথ সহায়তা” প্রদান করতে হয়। ব্যবহারকারীদেরকে কারিগরি কোম্পানীগুলোর নিয়ন্ত্রণের বাইরে থাকা ডেটা ঘুরিয়ে নিতে পারে এমন সফ্টওয়্যারের দিকে ধাবিত হওয়া থেকে বিরত রাখতে সরকার কী পরিকল্পনা করেছে সে সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে টার্নবুল বলছেন যে অস্ট্রেলিয়ার আইনগুলো গণিতের আইনকে অগ্রাহ্য করবে।

নেট-নাগরিক সক্রিয়তা

প্রগতিশীল যোগাযোগ সমিতি অনলাইনে হুমকি এবং যৌন অভিব্যক্তি বেড়ে যাওয়ার তথ্য সংগ্রহের একটি জরিপ শুরু করেছে। জরিপটি এই লিংকে পাওয়া যায়।

নতুন গবেষণা

নেট-নাগরিক প্রতিবেদনের গ্রাহক হোন

 

 

এলিরি রবার্ট বিডল, এঞ্জেল ক্যারিয়ন, লীলা নাচাওয়াতি, ইঞ্জি পেনু, এবং  সারাহ মেয়ার্স ওয়েস্ট এই প্রতিবেদনে অবদান রেখেছেন।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .