বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

মিয়ানমারের এক কুষ্ঠ পুনর্বাসন কেন্দ্রের অভ্যন্তরে

দক্ষিণের শান প্রদেশে অবস্থিত সেন্ট জোসেফ কোটো লেগনস কুষ্ঠ পুনর্বাসন কেন্দ্র। ছবি পাইয়াই কাইয়াও ও ইরাওয়াদ্দির-এর।

এই প্রবন্ধটি ইরাওয়াদ্দি পত্রিকার পাইয়াই কাইয়াও এর লেখা। মিয়ানমারের এক স্বাধীন সংবাদ ওয়েবসাইট ইরাওয়াদ্দি এবং বিষয়বস্তু ভাগাভাগি চুক্তির অংশ হিসেবে গ্লোবাল ভয়েসেস-এই প্রবন্ধটি পুনরায় প্রকাশ করা হল।

দক্ষিনের শান প্রদেশের লিওলেনে শহর থেকে সাত মাইল দূরে অবস্থিত সেন্ট জোসেফ কোটো লেগনস লেপ্রেসি কলোনি স্থানীয় ভাবে হোহ কাই কুষ্ঠ পুনর্বাসন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত-সেটির স্থাপন করেছিলেন এক ইতালীয় পাদ্রী আজ থেকে প্রায় সত্তর বছর আগে, আর এখন তা সারা দেশের ৯০ জন কুষ্ঠ রোগীর বাসস্থান।

এখানে বসবাসরত রোগীর মধ্যে যেমন ১৩ বছরের শিশু রয়েছে, তেমনি রয়েছে ৮০ বছর বয়স্ক নাগরিকও, এই রোগের কারণে অনেকের শরীরের ক্ষত তৈরি হয়েছে, যাদের এখন যত্ন নিচ্ছেন পাদ্রিরা।

পুনর্বাসন কেন্দ্রে যারা বাস করে, তারা চাষাবাদ করে এবং কিছু দুষ্প্রাপ্য পশু পালন করে, কিন্তু এই রোগের প্রতি মানুষের ভীতি থাকার কারণে, স্থানীয়রা তাদের কাছ থেকে পণ্য কেনে না ।

এখানে বাস করা বেশীর ভাগ রোগী আর তাদের নিজ গৃহে আর ফিরে যেতে চায় না, তার বদলে তারা তাদের ভাগ্যকে ঈশ্বরের হাতে তুলে দিয়েছে।

এ রকম এক রোগীর নাম মায়া, তিনি জানান এই পুনর্বাসন কেন্দ্রেই তিনি মরতে চান। তিনি বলেন, যে যে শহরে তার জন্ম সেখানে এই রোগের কারণে তাকে শহরের কবরস্থানে বাস করতে হত, আর রাতের বেলায় লুকিয়ে তিনি পরিবারের লোকেদের সাথে দেখা করতে যেতেন।

এই আশ্রয় কেন্দ্র সরকারের কাছ থেকে কোন ধরনের সাহায্য পায় না, যদিও সরকার এই রোগে আক্রান্তদের সাহায্য করে থাকে, আর এই আশ্রয় কেন্দ্র রোগীদের সেবার জন্য বিদেশী রাষ্ট্র থেকে প্রাপ্ত সাহায্যের প্রতি নির্ভরশীল।

যে সমস্ত কুষ্ঠ রোগী তাদের জন্য গড়া আশ্রয় কেন্দ্রে বাস করতে চায় না, পাদ্রিরা তাদের জন্য পাঁচটি গ্রাম নিয়ে গঠিত একটি পুনর্বাসন কেন্দ্র স্থাপন করেছে যেখানে ৩০০ জন নাগরিক বাস করে।

২০০৩ সালে, সরকার ঘোষণা প্রদান করে যে তারা দেশটির কুষ্ঠ রোগীর সংখ্যা প্রতি ১০,০০০ জনে মধ্যে একজন নামিয়ে এনে কুষ্ঠরোগ দূর করার হার দ্রুত কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।

যদিও বিগত ১০ বছরে মিয়ানমারে নতুন করে কুষ্ঠরোগে আক্রান্ত হওয়ার হার কমে এসেছে, তারপরে রেঙ্গুন জেনারেল হাসপাতালের সূত্র অনুসারে ২০১৪ সালে দেশটিতে ২,৮৭৭ জন এবং ২০১৫ সালে ২,৫৭১ জন কুষ্ঠরোগীকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

নীচে কিছু ছবি রয়েছে যা কুষ্ঠ আশ্রয় কেন্দ্রে বাস করা নাগরিকদের প্রতিদিনের জীবনের ছবি তুলে ধরছেঃ

প্রতিদিন সকাল ৬ টায় রোগীরা প্রার্থনা করেন, যাদের অনেকের শারীরিক পরিস্থিতি বেশ জটিল- তারা এই আশ্রয় কেন্দ্রের প্রার্থনা গৃহে এই প্রার্থনা করেন। ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

যারা এখনো শারীরিক ভাবে সক্ষম তারা কেন্দ্রের দূর্বল রোগীদের জন্য রান্না করে থাকে। ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

যারা এই আশ্রয় কেন্দ্রে থাকে তারা জমি এবং দূর্লভ প্রজাতির পশু পালন করে থাকে। কিন্তু স্থানীয় বাজারে তাদের পণ্য বিক্রি হয় না কারণ কুষ্ঠ রোগকে মানুষ ভয় পায়। ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

আশ্রয় কেন্দ্রের কৃষিকাজ। ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর

যারা এখনো চাষ করতে কিংবা বনে কাঠ কাটতে সক্ষম তারা বিশ্রাম নিতে সন্ধ্যায় কেন্দ্রে ফিরে আসে। ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

আশ্রয় কেন্দ্রে গোসল করা। ছবি পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

সন্ধ্যায় আশ্রয় কেন্দ্রের নিয়মিত কাজ। ছবি ছবি এবং শিরোনাম পাইয়াই কাইয়াও/ ইরাওয়াদ্দি-এর।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .