বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

হ্যালোউইনঃ ভুতুড়ে মজা, নাকি বিশাল পশ্চিমা ষড়যন্ত্র

Halloween celebrations in Kyrgyzstan. Photo from Kloop.kg.

কিরগিজস্তানে হ্যালোউইন উৎসব উদযাপন। ছবি ক্লপ.কেজির

ক্ষতিকর নয় এমন কোন বার্ষিক উৎসবের আয়োজন, নাকি হীন পশ্চিমা কৌশল?

যেহেতু হ্যালোউইনকে নিয়ে দেশটিতে বিতর্ক রয়েছে, আর তাই ৩১ অক্টোবরের দিনটি যত ঘনিয়ে আসতে থাকে ততই এই অচেনা ছুটির দিনটাকে ঘিরে প্রাক্তন সোভিয়েত ইউনিয়নের এই অঞ্চলে প্রতি বছর নাগরিকদের কাছে উপরের এই প্রশ্নটি রাখা হয়।

এই অঞ্চলে তাজিকস্তানের সরকার সম্ভবত সবচেয়ে বেশি হ্যালোউইন উৎসবকে ঘৃণা করে (এই তালিকায় পুলিশী রাষ্ট্র তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তানকে যোগ করার দরকার নেই), এখানে ২০১৩ ও ২০১৪ সালে এই উৎসব উদযাপন করার জন্য তাজিক তরুণদের আটক করা হয় এবং পুলিশ অফিসাররা তাদের কড়া ভাবে বকে দেয়।

আর এ বছর কিরগিজস্তানে, যেখানে তুলনামূলক নাগরিক স্বাধীনতা রাষ্ট্রীয় স্তরে ঐতিহ্যবাহী মূল্যবোধের সাথে সংঘর্ষের মাধ্যমে অর্জিত হচ্ছে, সেখানে স্থানীয় এক জনপ্রিয় তারকা আসসোল মোলদোকমাতোভা সকল হ্যালোসের রাতের প্রকাশ্য সমালোচনায় যোগ দিয়েছে:

Я – против праздника Хэллоуин и запрещаю моим детям, родным и близким праздновать гвалт «восставших из ада». Дети, столь часто вовлеченные в эту вакханалию, нередко испытывают буйство эмоций, подавленность, одиночество, озлобленность и склонность к суициду

আমি হ্যালোউইন-এর বিরুদ্ধে। আর আমার সন্তান, পরিবারে সদস্য ও বন্ধুদের এই নরক গুলজার করা হল্লা উদযাপন করতে নিষেধ করছি। শিশুরা প্রায়শই এই সকল বেলাল্লাপনা যোগ দেয় যা পরে এক দাঙ্গায় পরিণত হয়, যার শেষে পরিণতি হতাশা, নিঃসঙ্গতা, ক্ষোভ ও আত্মহত্যা।

ভুতড়ে স্পুটনিক-এর দর্শন ছাড়া তাহলে এটা আদৌ হ্যালোউইন হবে না। স্পুটনিক হচ্ছে রাস্ট্র নিয়ন্ত্রিত একটি সংবাদপত্র, আজারবাইজান থেকে প্রকাশিত যার সংস্করণটি (আজারবাইজানীদের পক্ষে) এই প্রশ্নটি করেছে, কে সারা বিশ্বে এই বিশ্বাসঘাতকের (হ্যালোউইন উদযাপন)? জন্ম দিয়েছে

উত্তরঃ অবশ্যই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

Screenshot from the website of Moscow-controlled Sputnik.az. The introduction notes that "according to experts" the Halloween fad is being driven by "vested interests"

মস্কো নিয়ন্ত্রিত স্পুটনিক।এ জেড ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া স্ক্রিনশট। এর সুচনায় বলা হয়েছে, “বিশেষজ্ঞদের মত অনুসারে” হ্যালোউইন-এর পাগলামির পেছনে কারো কায়েমি স্বার্থ রয়েছে।

এদিকে ভদ্রমহিলার যথেষ্ট সমর্থক রয়েহে, তারপরেও কিরগিজস্তানের মোলদকমাতোভা স্বদেশে হ্যালোউইন সাথে আত্মহত্যা সংক্রান্ত কোন সুস্পষ্ট প্রমাণ হাজির করতে পারেনি। আর এই দুটি ভিন্ন অবস্থান নিয়ে দ্রুত ফেসবুকে তীব্র এক বিতর্ক শুরু হয়।

আইনজীবী কেজি নামক এক ব্যবহারকারী ক্ষোভের সাথে ধারণা প্রদান করেছন যে “আসসোলকে নিষিদ্ধ” করাটা হবে “ভাল এক পরামর্শ”। এদিকে অন্য আরেক ব্যবহারকারী মোলদোকামতোভা প্রসঙ্গে (নীচে যার ছবি দেওয়া হয়েছে) নির্দয় ভাবে উল্লেখ করেছে, সে বাস্তব জীবনে এক মুখোশ পড়ে আছে।

Screen capture of Assol Moldokmatova from YouTube.

ইউটিউবের স্ক্রিন থেকে নেওয়া আসসোল মোলদোকমাতোভার ছবি।

বর্তমানে, অন্তত কিরগিজস্তানে, হ্যালোউইন নিয়ে বিতর্ক তরুণদের মাঝে এই উৎসবকে আরো জনপ্রিয় করে তুলেছে, যেমনটা তরুণদের দ্বারা পরিচালিত সংবাদ পত্রিকা ক্লপ.কেজির এই ভিডিও সংবাদ সে সাক্ষ্যই প্রদান করছে:

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .