বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

২০১৫ সালে আফ্রিকা ঠিক এ ভাবে টুইট করেছে

A screenshot of a graph showing how Africa tweets.

কি ভাবে আফ্রিকা টুইট করে তার এক গ্রাফের স্ক্রিনশট

লন্ডন ভিত্তিক যোগাযোগ প্রতিষ্ঠান পোর্টল্যান্ড তৃতীয় দফা কি ভাবে আফ্রিকা টুইট(#হাউআফ্রিকাটুইট করে বিষয়টি বোঝার জন্য এর অঞ্চল ভিত্তিক ১.৬ বিলিয়ন (১৬০ কোটি) টুইট এবং সেরা ৫০০০ হ্যাশট্যাগ বিশ্লেষণ করেছে।

এই প্রতিবেদনে ১২ ধরণের কেস স্টাডি রয়েছে যে কি ভাবে টুইটার, আফ্রিকার সন্ত্রাস, ইবোলার বিষয়ে সাড়া প্রদান করা, এবং এই মহাদেশটির অর্থনীতির মত বিষয়বলীর সাথে সংশ্লিষ্ট।

সেরা ৫০০০টি হ্যাশট্যাগ সংগ্রহ এবং বিশ্লেষণ করার জন্য কোম্পানি প্রচার মাধ্যম বিশ্লেষণ টুলস সিসোমোস ব্যবহার করেছে। তবে স্যোশাল মিডিয়ায় যথেষ্ট পরিমাণ ডাটা না থাকায় কোম্পানি দক্ষিণ সুদান ও রিপাবলিক অফ কঙ্গো থেকে কোন তথ্য সংগ্রহ করতে পারেনি।

আমাদের এর আগের গবেষণায় দেখা গেছে যে আফ্রিকার টুইটার হচ্ছে অনেক বেশী সামাজিক যোগাযোগ অথবা খেলার ছলে ঠাট্ট বিদ্রূপ বা মজা করার স্থান। এই গবেষণা, যা এই নিয়ে তৃতীয় বারের মত করা হচ্ছে, তাতে প্রদর্শীত হয়েছে টুইটার নামক স্থানটি রাজনীতি ও সরকার বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ বিতর্ক নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়ার সাথে সাথে এটি অনেক বেশী পরিণত হয়েছে। পর্টল্যান্ডের কন্টেন ডেভলপমেন্ট এবং ডিজিটাল স্ট্র্যাটেজির সিনিয়র পার্টনার মার্ক ফ্ল্যানাগান সংবাদ পত্রে প্রদান করা এক সংবাদ বিবৃতিতে এই বিষয়গুলো উল্লেখ করেছেন।

প্রাপ্ত প্রধান তথ্য সমূহ:

  • নাইজেরিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, ইথিওপিয়া, বুরুন্ডি এবং মিশরের নাগরিকেরা টুইটারে সবচেয়ে বেশী রাজনৈতিক আলোচনা করে।
  • রাজনীতিতে আগ্রহ রাষ্ট্রীয় ভৌগলিক সীমারেখা মানে না। নাইজেরিয়ার রাষ্ট্রপতি নির্বাচন এবং বুরুন্ডীর জটিলতা সারা আফ্রিকা সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং ছড়িয়ে পড়া হ্যাশট্যাগ।
  • আফ্রিকার টুইটার জগতে ইংরেজি সবচেয়ে প্রভাবশালী ভাষা, আমরা যে ৫০০০ হ্যাশট্যাগ বিশ্লেষণ করেছি, তার মধ্যে ৭৭ শতাংশ ইংরেজিতে করা হয়েছে। অন্য যে প্রধান ভাষা আরবী ও ফরাসী, তাতে টুইট করার হার উল্লেখযোগ্য পরিমাণ কম–মাত্র ৭ ও ৪ শতাংশ।
  • বিশ্বের অন্যান্য প্রান্তে বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য যতটা টুইটার ব্যবহার করা হয় আফ্রিকায় তার পরিমাণ উল্লেখযোগ্য পরিমাণ কম।
  • আফ্রিকার মধ্যে মিশরের নাগরিকের সবচেয়ে বেশী টুইট করে, বিশ্বের সকল এলাকা থেকে (জিওলোকেটর) পাওয়া মিশরীয়দের টুইটারের পরিমাণ ২৮ শতাংশ, (টুইটারের পরিমাণ ৫০০০ মিলিয়ন), নাইজেরিয়া (জিও লোকেটেড টুইট ৩৬০ মিলিয়ন) দক্ষিণ আফ্রিকা (৩২৫ মিলিয়ন), কেনিয়া (১২৫) এবং ঘানা (৭০ মিলিয়ন)।
  • রুয়ান্ডা হচ্ছে আফ্রিকার একমাত্র দেশ, যে দেশের রাষ্ট্রপতি পল কাগামার টুইটার হ্যাশট্যাগ দেশটির সেরা দশ হ্যাশট্যাগের একটি

#হাউআফ্রিকাটুইট (কি ভাবে আফ্রিকা টুইট করে) হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে কয়েকজন টুইটারকারী তাদের পাওয়া প্রধান তথ্য শেয়ার করেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা অন্য কেউ আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা করার আগে ইবোলা নিয়ে স্যোশাল মিডিয়ায় প্রথম আলোচনা করা হয়।

ইসলামিক এস্টেট সহ উল্লেখযোগ্য কিছু আন্তর্জাতিক বিষয়ে আফ্রিকার নাগরিকেরা তাদের কণ্ঠস্বর তুলে ধরে।

গ্যাবন হচ্ছে এক ফরাসী ভাষী মধ্য আফ্রিকার রাষ্ট্র, কিন্তু দেশটির সেরা দশটি টুইটের মধ্যে তিনটি হচ্ছে নাইজেরিয়ার ঘটনা নিয়ে।

কি ভাবে আফ্রিকা টুইট করে
উগান্ডার সেরা পাঁচটি হ্যাশট্যাগ
#উগান্ডা
#উগান্ডাডিসাইড
#নিউজ
#লেটেস্ট
#এমইউএফসি

পুরো মহাদেশ জুড়ে জন প্রতি টুইট করার হারের দিক থেকে গ্যাবন নামক ছোট্ট দ্বীপ রাষ্ট্রটি সবার উপরে অবস্থান করছে

সাধারণ ভাবে এই সংবাদটি ইতিবাচক সাড়া পেয়েছে। তবে ট্রু আফ্রিকার এক কন্ট্রিবিউটর মেওসিগওয়া ড্যানিয়েল টুইট করেছে:

হাউ আফ্রিকা টুইট-এর সংবাদ হচ্ছে আরেকটি সস্তা জনপ্রিয়তা পাওয়ার এক সংবাদ। অনেক কিছু বাদ পড়ে গেছে।

রিড ক্রেমার এর টুইটের জবাবে, গ্লোবাল ভয়েসেস-এর এক লেখক দেমবা কান্দাহে, পর্যবেক্ষণ করেছেন:

রিড ক্রেমার

আফ্রিকার প্রতি ১০টি টুইটের একটি হচ্ছে রাজনীতি সংক্রান্ত, ২০১৫ সালে যা ১০ শতাংশে পরিণত হয়- পোর্টল্যান্ড কমমসের গবেষণা।

রিড ক্রেমারের টুইটের জবাবে দেমবা কান্দাহে
কৌতূহল তৈরির করার মত তথ্য; শুনে মনে হচ্ছে আপেল ও কমলার মধ্যে তুলনা।

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .