বন্ধ করুন

আমাদের স্বেচ্ছাসেবক সম্প্রদায় কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের কোনা থেকে না বলা গল্পগুলো আপনাদের কাছে তুলে ধরতে। তবে আপনাদের সাহায্য ছাড়া আমরা তা পারব না। আমাদের সম্পাদনা, প্রযুক্তি এবং প্রচারণা দলগুলোকে সুষ্ঠুভাবে চলতে সহায়তার জন্যে আপনারা আপনাদের দানের অংশ থেকে কিছু গ্লোবাল ভয়েসেসকে দিতে পারেন।

সাহায্য করুন

উপরের ভাষাগুলো দেখছেন? আমরা গ্লোবাল ভয়েসেস এর গল্পগুলো অনুবাদ করেছি অনেক ভাষায় যাতে বিশ্বজুড়ে মানুষ এগুলো সহজে পড়তে পারে।

আরও জানুন লিঙ্গুয়া অনুবাদ  »

কুয়েত একজন সৌদী ব্যক্তিকে শিয়া মসজিদের আত্মঘাতী বোমারু হিসেবে চিহ্নিত করেছে

কুয়েত সংবাদ সংস্থা (কুনা) আল-সাদিক মসজিদের আত্মঘাতী বোমারুকে ফাহাদ সুলেইমান আব্দুলমোহসেন আল-গাব্বাআ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। কর্তৃপক্ষ উল্লেখ করেছে যে সে একজন সৌদী নাগরিক যে হামলার দিন সকালে আকাশপথে কুয়েত পৌঁছায় এবং কুয়েত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মাধ্যমে প্রবেশ করে। কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী পরবর্তীতে হামলাকারী ১৯৯২ সালে জন্ম গ্রহণ করেছে বলে উল্লেখ করেছে।

আইসিস শিয়া মসজিদে এই হামলার দায়িত্ব স্বীকার করেছে, যে হামলায় ২৭ জন মারা গেছে এবং ২০০এরও বেশী লোক আহত হয়েছে। বিগত সপ্তাহগুলোতে সৌদী আরবের পূর্ব প্রদেশের শিয়া মসজিদগুলোর উপর দু'টি পৃথক হামলার পর এই হামলার ঘটনাটি ঘটলো।

এই ইয়্যুটিউব ভিডিওটি বিষ্ফোরণের পর তোলা ছবির সংকলনের একটি পর্যায়ক্রমিক প্রদর্শন।

https://www.youtube.com/watch?v=PqqXrP7Os_U

আরও অনেক টুইটার ব্যবহারকারীদের মতো সৌদী আরব থেকে কাতিফীয় তার ১১হাজার অনুসারীকে আল-গাব্বাআর একটি ছবি টুইট করেছে:

কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী উল্লেখ করেছে যে শিয়া মসজিদের বোমারু একজন সৌদী ছিল

অন্যান্য টুইটার ব্যবহারকারীরা মসজিদের প্রধান কামরায় বোমারু প্রবেশ করার আগের মুহুর্তের ছবি বিনিময় করেছে। ছবিটি মসজিদের সিসিটিভি থেকে নেয়া। বাহরাইনীয় কর্মী এলা'আ শেহাবি আরও কিছু ছবি বিনিময় করেছে:

আত্মঘাতী বোমারু ২০০০ উপাসকপুর্ণ জনাকীর্ণ মসজিদে প্রবেশ করছে সে সময়ের ছবি সিসিটিভি থেকে নেয়া

এই হামলার সংশ্লিষ্ট আর বেশ কয়েকজন ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে বলে কুয়েতের সরকার আরও ঘোষণা দিয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একজন ছিল ২৬-বছর-বয়েসী আব্দুল-রহমান সাবাহ আইদান, যাকে নিয়োজিত গাড়ী চালক হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে, যে আত্মঘাতী বোমারুকে মসজিদ পর্যন্ত চালিয়ে নিয়ে এসেছে।

কুয়েত শনিবার দিনকে শোক দিবস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে এবং জুনের ২৬ তারিখে কুয়েত শহরের আল-সায়াবির জেলার মসজিদটির বিষ্ফোরণে মারা যাওয়া ২৭জন ব্যক্তিকে কবর দেবার জন্য একটি গণ অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠান পালন করে।

আক্রমণের পরপরই, কুয়েতের আমীর শেখ সাবাহ আল-সাবাহ বিষ্ফোরণের স্থল পরিদর্শন করেছেন, এবং তারপর কুয়েতের সর্ববৃহৎ সুন্নি মসজিদ প্রধান (গ্র্যান্ড) মসজিদে জনগণের সাথে তাদের শোকানুষ্ঠানে যোগদান করেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত মসজিদটি পুনর্নির্মাণেরও আদেশ প্রদান করেন।

রেডিও সেওয়ার সাংবাদিক জাইদ বেঞ্জামিন আমীরের পরিদর্শনের একটি ছবি ও ভিডিও টুইট করেছে:

#কুয়েত-এর আমীর প্রধান মসজিদ পরিদর্শন করে যেখানে শুক্রবারের মসজিদ বিষ্ফোরণে মারা যাওয়া ডজন ডজন লোকের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া পালিত হচ্ছিল

#কুয়েত-এর আমীর আল-ইমাম আল-সাদেক মসজিদ পরিদর্শন করে যেখানে কিছুদিন আগে আত্মঘাতী হামলা করা হয়

ইতোমধ্যে, বোমা হামলার পরপরই আহতদেরকে রক্ত দান করতে ছুটে গেছে জনগণ:

কুয়েতের কেন্দ্রীয় রক্ত ব্যাংক, এই মুহুর্তে: #কুয়েতএক

ক্ষতিগ্রস্তদেরকে তাদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার প্রস্তুতি হিসেবে কুয়েতীয় পতাকায় জড়িয়ে রাখা হয়েছে:

ইমাম আল সাদিক মসজিদে গতকালকের #কুয়েত-এর মসজিদ বোমা হামলার শহীদদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া এই মুহুর্তে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

সুন্নি ও শিয়া কুয়েতীয়রা একটি অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া মিছিল করার জন্য সমবেত হয়েছে এবং কুয়েতের প্রধান মসজিদে পাশাপাশি দাঁড়িয়ে প্রার্থনা করছে।

মসজিদে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য শোকরত আমীরের একটি ছবি দেয়া হলো:

যুবরাজ ও উত্তরাধিকারী যুবরাজ প্রধান মসজিদে শহীদদের পরিবারের সাথে শোক পালন করছে

টুইটারের হ্যাসট্যাগগুলো সামাজিক মাধ্যমগুলোতে শিরোনাম হচ্ছে, সর্বশেষটি হচ্ছে আরবী হ্যাসট্যাগ ‘কুয়েত সবল‘ যেখানে মানুষ তাদের সমবেদনা ও সংহতি জ্ঞাপন করেছে, সেই সাথে সাথে দেশটির মধ্যে সুন্নি ও শিয়া উভয়ের মধ্যে ঐক্য নির্দেশ করে এমন ছবি বিনিময় করেছে।

টুইটার ব্যবহারকারীরা অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া থেকে একটি ভিডিও টুইট করেছে:

কুয়েতীয়রা ‘সুন্নি ও শিয়া ভাতৃগণ, আমরা আমাদের এই স্বদেশ বিক্রয় করে দেব না’ ধ্বনি তুলছে, যে ধ্বনি বাহরাইনের প্রতিবাদের সময়ে প্রায়শই শোনা গিয়েছিল:

‘আল মাজিল্লিস’ নামের অন্য আর এক টুইট ব্যবহারকারী বেশ কয়েকজন ক্ষতিগ্রস্তের ছবি বিনিময় করেছে:

কুয়েতে শিয়াদেরকে লক্ষ্য করে করা বিষ্ফোরণের পরপর কুয়েত দৃঢ় ঐক্য দেখিয়েছে। টুইটারে জনগণ জোর দিয়েছে যে কুয়েত সুন্নি এবং শিয়া উভয়ের জন্য এবং তারা আইসিসকে তাদের সমাজটিকে বিভাজিত করতে দেবে না।

সকল কুয়েতীয় সম্পূর্ণভাবে একতাবদ্ধ এবং জঙ্গিবাদকে প্রত্যাখ্যান করেছে, যা ঘটেছে তা হলো কুয়েতীয় জনগণের একতার প্রতি নাশকতা করার একটি প্রচেষ্টা

কুয়েতের ক্ষতিগ্রস্তদের সমর্থন করতে আপনাকে শিয়া হবার প্রয়োজন নেই কিন্তু আপনার শুধু একজন মানুষ হওয়া প্রয়োজন

শিয়া মসজিদে হামলার বিষয়ে নিন্দা জ্ঞাপন করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের (জিসিসি) সদস্যদের সাথে যোগ দিয়েছে, এবং কুয়েতের ক্ষমতাশীন পরিবার ও জনগণের প্রতি তাদের সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে।

এই ঘটনার উপর আরও হালনাগাদ তথ্য এবং প্রতিক্রিয়া জানার জন্য গ্লোবাল ভয়েসেস চেকডেস্ক দেখুন: Suicide Bomb Attack on a Mosque on Kuwait.

আলোচনা শুরু করুন

লেখকেরা, অনুগ্রহ করে লগ ইন »

নীতিমালা

  • অনুগ্রহ করে অপরের মন্তব্যকে শ্রদ্ধা করুন. যেসব মন্তব্যে গালাগালি, ঘৃণা, অবিবেচনা প্রসূত ব্যক্তিগত আক্রমণ থাকবে সেগুলো প্রকাশের অনুমতি দেয়া হবে না .